একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প – ১২

একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প – ১১
হিসহিস করে বলে,আমার সামনে এর আগে এত গলা তুলে কেউ কথা বলে নি’যুবকটি অতর্কিতে সজোরে চড়টা খেয়ে থমকে যায় ; এরপর অতর্কিতে একটানে নীতা ওর জামাটা ধরে টান মারতেই ছিঁড়ে যায় জামাটা। নীতা ওর সুঠাম পেশিবহুল শরীরটা দেখে থমকে যায়…এরপর হাতের চাবুকটা ওর মেদহীন পেটের চামড়ায় উপর বুলোতে বুলোতে বলে,’তোর নাম কিরে? এলি কোথা থেকে?’ও চুপ করে থাকে। নীতা ধীরে ধীরে বলে ,তোর নাম যাই হোক ,আমি তোকে একটা নতুন নাম দেব ;এখন থেকে তোর পরিচয় তুই আমার গোলাম….আমার একান্ত নিজের গোলাম।..এখন থেকে আমার ইচ্ছার দাস হবি তুই…তুই ঘুরে বেড়াবি এই প্রাসাদে সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে…তোর গলায় থাকবে আমার নাম লেখা কলার।’ এবার নীতা মকবুল কে হুকুম করে ,এই এটাকে নাঙ্গা কর.. ওকে হতচকিত করে মকবুল ওর প্যান্টটা জোর করে খুলে নেয়।
ওর জাঙ্গিয়া পরা শরীরটার দিকে বেশ কিছুক্ষন তাকিয়ে থাকে নীতা । এরপর ওর জাঙ্গিয়াটা একটানে নামিয়ে দেয় নিচে …. বেরিয়ে পড়ে যুবকটির সুবিশাল পুরুষাঙ্গটা…. উল্লাসে চেঁচিয়ে ওঠে নীতা; মকবুলকে বলে , এটাকে ওখান থেকে নামিয়ে ওর হাতদুটো পেছনে বেঁধে দে’.মকবুল তাই করে। যুবকটি হঠাৎ চিৎকার করে নীতার দিকে থুথু ছেটায়। এরকম বেয়াদপি নীতা কোনোদিন স্বপ্নেও ভাবেনি…. ও সজোরে এক লাথি মারে ওকে ; হাত পেছনে বাঁধা থাকায় যুবকটি তাল সামলাতে পারে না,সম্পূর্ণ পড়ে যায়..ও গড়িয়ে পড়তেই নীতা তার হাতের লিকলিকে চাবুকটা বাতাসে জোরে আছড়ায়,শঙ্কর মাছের চাবুকটা তীব্র শিস দেওয়া শব্দ তোলে বাতাসে ; এরপর মাটিতে পরে যাওয়া লোকটির নগ্ন শরীরের চামড়া ছিঁড়ে বসে যেতে থাকে চাবুকটা।
যুবকটি চিতকার করতে থাকে জন্তুর মতো| নীতাকে উন্মাদের মতো চাবুক চালাতে দেখে মকবুল হতবাক হয়ে যায় ; এর আগেও মালকিনকে চাবুক মারতে দেখেছে ও, কিন্তু ওর এত হিংস্র রূপ এর আগে ও দেখেনি। ও হতভম্ভ হয়ে দাঁড়িয়ে থাকে, বুঝতে পারে ,সারা গায়ে রক্তের দাগ ফুটে ওঠা ওই যুবকটি এবার থেকে ওর মালকিনের সম্পূর্ণ বাধ্য হয়ে উঠবে,ও হবে মালকিনের সত্যিকারের গোলাম ;সামান্য বেয়াদপির কথা মাথায় এলেই ওর মনে পড়বে ওই কালো লিকলিকে চাবুকটাকে….মনে পড়বে ওই চাবুকটার মালিক এই ভয়ঙ্কর সুন্দরী মহিলাকে।..ওর সারা শরীরটা লুটিয়ে পড়তে চাইবে মালকিনের পায়ে অপরিসীম ভয় আর ভক্তিতে।….
চাবুকটা তখনও চলছিল;যুবকটা সম্ভবত জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। আরো কিছুক্ষন ওর মাটিতে পরে থাকা নিথর শরীরে চাবুকটা চালায় নীতা। একটু পরে চাবুকটা ছুঁড়ে দিয়ে নীতা বলে,মকবুল ,এটার জ্ঞান ফিরলে শিখিয়ে দিবি এখানের সহবতগুলো;ডাক্তার মিত্র কে খবর দে..ওনাকে বলে দিবি আমি চাই না আমার এই সুন্দর বান্দার শরীরে এই চাবুকের দাগগুলো যেন বেশীদিন থাকে ;বিড়বিড় করে বলে , ওটা শুধু থাকবে ওর মনের মধ্যে …আজীবন….নীতা গিয়ে বসে গাড়িতে|
গাড়ি থেকে নেমে এগিয়ে যেতে যেতে মকবুলকে বলে ,রিনাকে আমার বেডরুমে পাঠিয়ে দে;
একটুক্ষণ পরের কথা | বিরাট বেডরুমটার ডিভানে আধশোয়া হয়ে স্কচে চুমুক দিচ্ছিলো নীতা ;এমন সময় রিনা এসে ঢোকে;এসে বসে ওর পায়ের কাছে;নীতা ওর দিকে একটু তাকিয়ে থাকে তারপর হঠাৎ ওর মাথার চুলগুলো মুঠো করে ধরে ওকে টেনে নেয় নিজের কাছে;মাথাটা ঢুকিয়ে দেয় ওর পুসিতে,চেপে ধরে বলে , চাট….চাট ভালো করে ; ওই ছেলেটাকে চাবকানোর পরে আমার এখানে অনেক রস জমে উঠেছে ,তুই তোর জিভের খেলায় ওখানটা কাঁপিয়ে দে..ইনাম পাবি…অনেক ইনাম..’রিনা এর আগেও অনেকবার তার মালকিনকে এভাবে খুশি করেছে , কিন্তু আজ ওর মনে হয় মালকিনের উত্তেজনাটা অনেক বেশি।
মালকিন ওকে বলেছে কাকেও তীব্রভাবে শাস্তি দিলেই ওর শরীরে ভীষণ যৌন উত্তেজনা জাগে ,যা প্রশমনের জন্য যেমন ডাক পরে ছেলেবান্দাদের , তেমনি কখনো কখনো আবার ডাক পরে ওর ; লেসবিয়ান সেক্সেও মালকিনের সমান উৎসাহ।.রিনা ওর পুসিতে সরু জিভটা পুরো ঢুকিয়ে দেয়…ওর কুশলী জিভ খুব দ্রুত ছুয়ে ফেলে ওখানের ছোটো বিন্দুটা;জিবটা আরো তীক্ষ করে ওখানে চাপ দেয় ও; নিতা আরো জোরে চেপে ধরে ওর মাথাটা ; নীতার শিৎকার প্রতিধ্বনি তোলে বিশাল ঘরটাতে ;একটু পরেই রিনা প্রায় তৃষ্ঞার্তের মতো শুষে নেই ওকে; নীতার শরীরটা ক্রমশ শান্ত হয়ে আসে।
রিনা ওর অভিজ্ঞতা থেকে জানে এসময় ওর মালকিন প্রায় কল্পতরু হয় ; কতবার এইসময় ও নীতার কাছে মূল্যবান গয়না চেয়ে নিয়েছে;আজ কিন্তু ওর চাওয়াটা পুরোপুরি আলাদা;ওই অসাধারণ দেখতে লোকটা ,যে আগে ছিল মালকিনের প্রেমিক, এখন মালকিন ওকে লাগিয়েছে আস্তাবলের কাজে;ওকে আর যদি মালকিন না ভোগ করতে চায় তাহলে ও ওকে ওর মালকিনের কাছ থেকে চেয়ে নেবে; ওর অনেক দিনের ইচ্ছে, এখানে যেমন অনেকে পুরুষদের অন্যভাবে ভোগ করতে আসে সেও অমনি একটাকে নিজের করে তাকে গোলাম বানাবে, ইচ্ছে মতো ভোগ করবে তাকে। এই প্রাসাদের থেকে একটু দূরে তার বাড়িতে একটা মেয়ে ওর কাজকর্ম করে দেয় ,ওই লোকটাকে দিয়ে তখন বাড়ির যাবতীয় কাজ যাবে;তাছাড়া ইচ্ছেমতো ভোগ করা যাবে ওকে…কয়েকবছর আগে ওর স্বামী হঠাত মারা যাওয়ার পর থেকে ও প্রায় উপোসী র়য়েছে… এখন যদি মালকিনের কাছে কথাটা…..
নিতা আবার কথাটা তোলে; বলে,তুই আজ আমাকে বহুত আনন্দ দিয়েছিস ; কি ইনাম চাস বল?
আমতা আমতা করে রিনা বলেই ফেলে , মালকিন যদি কিছু মনে না করেন, একটা জিনিস চাইবো , আপনি কিছু মনে করবেন নাতো?
নিতা ওকে আশ্বাস দিয়ে বলে , অরে বলেই ফ্যাল না;আরে তোর বাপ্-ঠাকুরদা সবাই বংশ-পরম্পরায় আমাদের নায়েব ছিল ; সেবা করে এসেছিস আমাদের জমিদারি বংশকে; এত কিন্তু করার কি আছে?রিনা একটু থেমে বলে, বলছিলাম , আপনি যদি…মানে আমার মালকিন বহুদিনের ইচ্ছা একটা পুরুষকে আমার গোলাম বানানোর।..আমি বলছিলাম ওই জয় বলে লোকটা, যে এখন আপনার আস্তাবলের কাজ করে, ওকে যদি আপনার আর না পছন্দ হয়, তাহলে ওকে যদি আমাকে দেন..নীতা প্রথমে চমকে ওঠে, তারপরেই খিলখিল করে হাসিতে ভেঙে পড়ে ; পশে রাখা হুইস্কির গ্লাসে একটু চুমুক দেয়, তারপর লিজার চুলে হাত বুলোতে বুলোতে বলে, হুঁ বুঝেছি তোর একটা তাগড়াই জোয়ান চাই নিজের জন্য যে তোর পায়ে পায়ে কুকুরের মতো ঘুর ঘুর করবে,প্রতিটা হুকুম সাথে সাথে তামিল করবে।..তুই ওকে নিয়ে তোর ইচ্ছেমতো যা খুশি করবি।.ওর শরীরটা নিয়ে খেলবি,এইতো; লিজা চুপ করে মাথা নাড়ে; নীতা নেশার ঘোরে জড়িয়ে জড়িয়ে বলতে থাকে….. (চলবে)
লেখিকা-অরুণিমা
গল্প কেমন লাগছে ? অনুগ্রহ করে মন্তব্য করুণ…..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *