সেক্সি বেবি – এক বৃষ্টির রাতে – ১

নমস্কার আমার নাম সুমন কিন্তু সবাই বাবু বলেই চেনে , আমার জীবনে ঘটে যাওয়া কিছু ঘটনা নিয়ে প্রস্তুত হলাম আপনাদের সামনে । যাইহোক আমি অনেক চেষ্টা এবং খাটাখাটনির পর একটি সরকারি চাকরি পাই , আমার বয়স যখন ২৫ , এক প্রত্যন্ত গ্রামে শিক্ষকতার চাকরি পাই । ছোটবেলা থেকে আমি গ্রামে মানুষ কিন্তু চাকরির সন্ধানে আমাকে চলে আসতে হয় শহরে , কিন্তু ভাগ্যের খেলা দেখুন আমাকে আবার চলে যেতে হচ্ছে গ্রামে ফিরে । শহর থেকে রোজ যাওয়া আসা করাটা অসুবিধাজনক । তাই সেই গ্রামে একটা মোটামুটি বেশ ভালো বাড়ি ভাড়ায় নিয়ে নিলাম খুবই সস্তায় , যেখান থেকে গ্রামের স্কুলটা সামনেই ।
যাইহোক ব্যাগ গুছিয়ে নিয়ে চলে এলাম এই গ্রামের বাড়িতে । বাড়িটা মোটামুটি বড় , কিন্তু আমার পক্ষে শিক্ষকতা করে এসে সম্ভব হত না বাড়ীর কাজ করা , তাই আমি এক কাজের লোকের সন্ধান করতে থাকি সেই গ্রামে । এবং শেষমেষ আমার বাড়ি থেকে একটু দূরে থাকা এক খুবই দরিদ্র মানুষ আমার সাথে যোগাযোগ করে । সে রাজি হয়ে যায় তার মেয়েকে আমার বাড়িতে কাছে পাঠানোর জন্য , যতই হোক এত মোটা টাকা সে হয়তো আগে দেখেনি । তাই সে সিদ্ধান্ত নেয় পরদিন থেকেই তার মেয়ে আমার বাড়িতে কাজ করতে আসবে ।
পরদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে দরজায় টোকা শুনতে পেলাম । দরজা খুলতেই দেখি এক ফর্সা টুকটুকে কিশোরী মেয়ে , পরনে কালচে লাল পুরনো শাড়ি , ব্লাউজ নেই শাড়িটা বেশ পাতলা সেটা দিয়ে যথেষ্ট পরিষ্কারভাবে তার শরীরটাকে আমি অনুভব করতে পারছিলাম তার উচ্চতা প্রায় পাঁচ ফুট এবং শরীরের যেখানে যতোটুকু মেদ প্রয়োজন সেখানে ততটাই মেদ উপস্থিত , তার ফর্সা স্তন গুলো যথেষ্ট পরিপূর্ণ প্রায় ৩২ সাইজের আর পাছাটাও যথেষ্ট মেদ যুক্ত , গোটা শরীরটাই যেন মাখন দিয়ে তৈরী , এত সুন্দর একটি মেয়ে এই বিরল গ্রামে আমার দরজার সামনে , আমি এখনো ঘুমাচ্ছি না তো ।
আমি নিজের চোখ ঘষে নিয়ে ওর দিকে আবার ভালো করে তাকালাম , আমি একটা স্যান্ডো গেঞ্জী আর বারমুন্ডা পড়েছিলাম এবং আমার প্যান্টে রীতিমতো তাবু সৃষ্টি হতে শুরু করেছিল । আমি এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিলাম তার দিকে ।
হঠাৎ সে নিজে থেকেই বলে ওঠে “নমস্কার বাবু , আমাকে বাবা পাঠিয়েছে আপনার বাড়িতে কাজ করার জন্য” । কথাটা শুনে আমার যথেষ্ট অবাক লাগলো কালকের ওই দিনমজুর লোকটির মেয়ে এটা ! আমার শহরে থাকাকালীন আমি কোন শহুরে মেয়েকে এত সুন্দর হতে দেখিনি । যাইহোক স্বপ্ন দুনিয়া থেকে বেরিয়ে আমি নিজেকে সামলে নিয়ে বললাম “আচ্ছা তুমি , এসো এসো ভিতরে এসো” ।
এই বলে সে মাথা নিচু করে ঘরের ভেতরে ঢুকলো , তার হাব ভাব দেখে বোঝা যাচ্ছিল যে সে অনেক সরল । গ্রামে বলে হয়তো তাকে নিয়ে কেউ কিছু করেনি শহরে থাকলে এই বয়সে তার কত যে বয়–ফ্রেন্ড থাকত আর কতজন যে তাকে ছিঁড়ে খেত তার কোন ঠিক নেই ।
যাই হোক তাকে দেখে জিজ্ঞাসা করলাম ,
– “তোমার বয়স কতো?”
– “আঠারো” , সে আসতে আসতে বলল ।
– “কোন ক্লাসে পড়ো তুমি?”
– “পড়াশোনা করিনি , আমাদের ঘরের অবস্থা খুবই খারাপ তাই বাবা পড়াতে পারেনি আমায় ” , সে মাথা নিচু করে বলে ।
– “আচ্ছা বুঝলাম , তা তুমি মোটামুটি বাড়ির কাজ পারো তো?” জিজ্ঞাসা করলাম
– “হ্যাঁ পারি, সবই পারি , এর আগেও আমি অন্য বাড়িতে কাজ করেছি” সে বলল ।
মেয়েটির কথা শুনে আমার একটু খারাপ লাগলো এত সুন্দরী একটা মেয়ে যাকে দেখলে যেকোন ছেলে প্রেমে পড়ে যাবে , এবং তার রানী করে রাখবে । সে কিনা অন্যের বাড়িতে বাড়িতে কাজ করে বেড়ায় ।
– “চিন্তা করো না আমার বাড়িতে সেরম কোন কাজ নেই তোমার বেশি খাটালি হবে না , সারাদিন থাকতেও হবে না, শুধু সকাল ও সন্ধ্যাবেলা এলেই হল” বললাম আমি ।
– “ঠিক আছে” চাপা গলায় বলল সে ।
– “এই দেখো তোমার নামটাই জিজ্ঞেস করা হল না , কি নাম তোমার ?”
– “অর্পিতা” সে মুচকি হেসে বলল।
– “বাহ…. ভারী মিষ্টি নাম , যাই হোক দেখি অর্পিতা তুমি আমার জন্য এক কাপ চা করে দাও তো , দেখি তুমি কেমন চা করতে পারো” আমি বললাম
– “ঠিক আছে” , বলে সে চলে গেল আমার জন্য চা করতে ।
আমিও তার পিছু পিছু গেলাম তার ডবকা পাছাটা দেখতে দেখতে । সে নিজের মনে চা করে যাচ্ছে আর আমি তার শরীরের বিভিন্ন অংশ চোখ দিয়ে খেতে থাকি , বিশেষ করে তার বড় বড় দুটো দুধ গুলোকে । শাড়ির মধ্য থেকে হালকা হালকা তার কালো বোটা দুটো বুঝা যেতে থাকে । সে এদিক ওদিক একটু হাত নাড়ালেই তার বুকের দুধগুলো দুলতে থাকে এদিক ওদিক যেটা দেখে আমার ধন আবার দাঁড়াতে শুরু করে ।
চা করে এনে সে আমাকে দিতে আসে এবং আমি ইচ্ছা করে তার হাত থেকে চা নেওয়ার সময় কনুই দিয়ে তার দুধে স্পর্শ করে ফেলি , উফ্ কি নরম নরম তার দুধ দুটো । আমার বাড়াটা এবার ঠাটিয়ে দাঁড়িয়ে পড়ে । যদিও বা এসব কিছুই সে টের পায় না অত্যন্ত সরল মনের এই মেয়েটি , যৌনতা সম্পর্কে কোন জ্ঞানই তার নেই । কিন্তু তার শরীর কিশোর থেকে যৌবনে প্রবেশ করে গিয়েছে সেটা আমার বুঝতে অসুবিধা হয়নি । চা টা খেয়ে আমি সত্যি সন্তুষ্ট , সে রুপের সাথে সাথে গুনের ও সম্পন্না ।
এরপর আমি তাকে বলি ঘরটা একটু পরিষ্কার করে দিতে , এবং সাথে সাথে সে ঘরে ঝাড়ু দিল এবং ঘর মুছতে শুরু করলো । কাজ করতে করতে মাঝে মাঝে তার শাড়ি খুলে পড়ে যাচ্ছিল এবং বারবার তার দুধগুলো বেরিয়ে আসছিল এবং সে সেগুলো কে বারবার ঢাকার চেষ্টা করে । আমি দেখি আর আমার চোখ যেন তাকে গিলে গিলে খাচ্ছে । যাইহোক স্কুলের দেরী হয়ে যাচ্ছে , তাড়াতাড়ি রেডি হয়ে আমি বেরিয়ে পড়ি এবং তাকে বাড়ি চলে যেতে বলি এবং সন্ধ্যা বেলা আবার আসতে বলি ।
রীতিমত সন্ধ্যা বেলা সে এসে হাজির এবং রাতের রান্না করে আমাকে পরিবেশন করে । সে কাছে আসলেই আমি বারবার তার শরীরে স্পর্শ করার চেষ্টা করি কিন্তু সে কিছু প্রতিক্রিয়া করেনা । যাই হোক তা রান্নাও যথেষ্ট ভালো এবং বাকি কাজ সেরে রাতের বেলা বাড়ি ফেরার সময় আমি তাকে তার কুড়ে ঘরের দরজা অবধি ছেড়ে দিয়ে আসি , ঘরে ঢোকার আগে সে আমার দিকে তাকে এক মিষ্টি হাসি হাসে । যেটা যথেষ্ট ছিল আমার সারা রাতের ঘুম কেড়ে নেয়ার জন্য । মনে হয় আমি তার প্রেমে পড়ে গেছি।
এরপর দিনের পর দিন সে এসে আমার বাড়িতে কাজ করে যায় । আর আমি সুযোগ পেলেই তার শরীরে স্পর্শ করে ফেলি । এবার সেই স্পর্শের উত্তরে আমি একটা মিষ্টি হাসি পাই তার মুখ থেকে । প্রথম মাইনেটা পাওয়ার পরই আমি তাকে তার মাইনের সাথে সাথে বেশ কয়েকটা নতুন শাড়ি , ব্লাউজ ও তার বাবার জন্য একটা পাঞ্জাবী উপহার দিই ।
সে এত দামি শাড়ি কোনদিনও চোখেও দেখেনি , সে প্রথমে না নিতে চাইলেও আমি জোর করেই তার হাতে সেগুলো ধরিয়ে দিই । সে সেগুলো হাতে নিয়ে অনেক খুশি , এবং গ্রামের যে লোক গুলো আগে তার দিকে তাকাতেও না তারা আজ তার শরীরে এত দামি পোশাক দেখে অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকে অর্পিতার দিকে ।
এর কিছুদিন পর একদিন রাতে খুব ঝড় বৃষ্টি শুরু হয় । সব কাজ শেষ করে অর্পিতা বাড়ি যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হয় কিন্তু আমি কিছুতেই তাকে অনুমতি দিই না বাড়ি যাওয়ার জন্য । এবং তাকে অনুরোধ করি আমার রুমের পাশের রুমে শুয়ে পড়ার জন্য । এবং সে আমার কথামত খেয়ে দেয়ে পাশের রুমে শুয়ে পড়ে । হঠাৎই একটা বাজ পড়ে এবং চিৎকার করে ওঠে । আমি দৌড়ে গিয়ে তার কাছে যায় , এবং পাশে গিয়ে বসি । আর জিজ্ঞাসা করি
“কি হলো আর্পিতা?”
“ভয় লাগছে খুব” , সে মৃদু গলায় ভয়ে ভয়ে বলে।
“আচ্ছা বুঝলাম এসো কাছে এসো” এই বলে আমি তাকে নিজের দিকে টেনে নিই , সে আমার বুকে মাথা রাখে এবং আমি তাকে জড়িয়ে ধরি এবং এক হাত দিয়ে তার মাথায় হাত বুলায় ।
এবং আমি বলি
“চলো অর্পিতা তুমি আমার রুমে শুবে চলো”
“আপনার ঘরে , আপনার সাথে?” সে একটু ভয়ে ভয়ে বলল।
“হ্যাঁ , কেন তোমার কোন অসুবিধা আছে কি?”
“না না , আপনার অসুবিধা হবে থাক আমি এ ঘরে থাকি”
“চুপ থাকো তুমি আর চলো ওই রুমে নাহলে আবার রাতে তুমি চিৎকার করবে” এই বলে আমি তাকে ধরে ধরে নিয়ে চলে গেলাম আমার রুমে । তাকে জড়িয়ে ধরার সময় বুঝতে পারলাম তার শাড়িটা ডিজে গেছে অল্প ।
তাকে একটু জোর করেই বললাম
“একি অর্পিতা , তোমার শাড়ীটা তো ভিজে গেছে, এই ভেজা কাপড় পরে থাকলে , তোমার তো শরীর খারাপ করবে , চলো ফটাফট চেঞ্জ করো”
” না বাবু থাক আমার কিছু হবে না তাছাড়া অন্য শাড়ীও এখানে নেই ” সে বলল
“না এ বললে চলবে না , শাড়ি নেই তো কি হয়েছে এই নাও এই গামছাটা জড়িয়ে নাও শরীরে“

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *