একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প – ১১

একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প – ১০
রীতা ওকে ভালোভাবে শেখাবে একজন নারীকে তৃপ্ত করার কৌশল,ও শিখবে দক্ষতার সাথে ম্যাসাজ করতে, শিখবে কিভাবে জিভের ছোয়ায় মাতাল করতে হয় নারীশরীরকে,কিভাবে ঠোঁটের ছোয়া দিতে হয় পায়ের পাতা,পুষি বা উরুর ভেতরের মাংসল অংশে….জিভের খেলায় ও পাগল করে তুলবে রীতাকে,ওর সারা শরীর ফুটতে থাকবে তীব্র উত্তেজনায়….একসময় উষ্ণ মধু ভিজিয়ে দেবে রীতার দুই উরুর ভেতরের নরম অংশকে|
যখন অফিসের অত্যধিক কাজ করতে হবে বাড়িতে,আমার সেই অসহনীয় চাপকে সীমাহীন আনন্দে ভরিয়ে দেবে ও ; ওর চিত হয়ে শোওয়া শরীরের পেটের উপর রাখব আমার ল্যাপটপ,নাইটিটা গুটিয়ে আমি বসব ওর মুখের ওপর,ওর জিভ খেলা করতে থাকবে আমার পুষিতে,আর আমি তীব্র শরীরী আনন্দে সমাধান করতে থাকব জটিল অফিসীয় সমস্যাগুলোকে|
ওকে আমি নিগৃহীত করব নানাভাবে…. উত্তেজিত করে তুলব ওকে …নিয়ে যাব চরমসীমায়… যখন ও আমাকে খুশী করার জন্য করতে চাইবে সবকিছু….আমার পরণে দামী পোষাক থাকলেও ও থাকবে নগ্ন হয়ে,আমি অফিস থেকে ফিরলেই ওএসে চুমুুু খাবে আমার পায়ে|হাত দুটো পেছনে রেখে ওমুখ দিয়ে খুলে দেবে আমার পোষাক..পরে হাঁটু মুড়ে বসবে আমার পাশে,টিভির খবরে চোখ রেখে আমি পায়ের আঙুলে খেলা করতে থাকব ওর দণ্ডটাকে নিয়ে|
কখনো আমার ডিভানে চিত করে শোয়াবো ওর শরীরটাকে ,ডিভানের চার কোণের চারটে আংটার সাথে টানটান করে বাঁধা থাকবে ওর হাত-পা…আমার হাতে ধরা উটপাখীর পালক আলতো ছোঁওয়া দিয়ে চলবে ওর বাহূমূলে,বুকে,ক্রমশ দীর্ঘ হয়ে ওঠা দণ্ডের পাতলা চামড়ায়…ওর চোখের কাতর দৃষ্টি আমার মনে ঝড় তুলবে…জাগিয়ে তুলবে আমার মনের গভীরে লুকিয়ে থাকা সীমাহীন প্রভুত্বকে|
অফিসের অতিরিক্ত চাপে যখন রাত্রে কাজ করব আমি,ও তখন আমার ইঙ্গিতে শিগারেট ধরিয়ে তুলে দেবে হাতে,তারপর আমার পাশে হাঁটুমুড়ে বসে ও হবে আমার জীবন্ত এ্যাশট্রে-আমি জ্বলন্ত সিগারেটের ছাই ফেলব ওর খোলা মুখের ভেতরে|
প্রতিদিন ও তৈরী করবে বাথটব আমার স্নানের জন্য|আমি শরীরটাকে এলিয়ে দেব বাথটবের ঈষৎ উষ্ণ জলে…সাবানের ফেনায় খেলা করব আমার শরীরটাকে নিয়ে ওর চোখের সামনে|উলঙ্গ হয়ে ও সাবান মাখিয়ে দেবে আমার সারা শরীরে…ওর হাতের উষ্ণ ছোঁয়ায় জেগে উঠবে আমার শরীরের প্রতিটি রোমকূপ…ইচ্ছে হলে বাথটবের ফেনার মাঝে ওর সাথে সংগম করব আমি|স্নানের পরে আমার শরীর ও যত্ন করে মুছিয়ে দিবে নরম তোয়ালেতে।
ম্যাডাম,ও কখনো হবে আমার জীবন্ত ও চলন্ত টয়লেট;আমার শরীর-নিঃসৃত ঊষ্ণ জল হাঁ-করে পান করবে ও তৃষ্ণার্ত চাতকের মতো|
আমি চাই না কোনো বাইরের লোককে আমার ফ্ল্যাটে ; তাই প্রতিদিনের রান্নার কাজ করবে ও ; আমি ওকে কিছুদিনের জন্যে পাঠাবো কোনো দক্ষ্ সেফ এর কাছে ট্রেনিং -এর জন্য ,যাতে ও সবসময় আমার পছন্দের খাবার তৈরি করতে পারে ; প্রতিদিন ভোরে টেবিলে রাখা কাগজটা তুলে ও দেখে নেবে আমার ঐদিনের জন্য পছন্দ করা খাবারগুলো ,তারপর তা তৈরি করবে খুব দ্রুততায়।
আমার বেডটি টেবিলে রেখে ঠিক সাড়ে সাতটায় ডিভানের নিচে বসে আমার শরীরে ঢাকা দেওয়া দামি চাদরটা সরিয়ে আমার পুষিতে চুমু খাবে ও। ঘুম ভেঙে আমার মর্জিমতো উঠে বসবো আমি,তারপর হয়তো বা ওর জিভকে অনুমতি দেব কিছুক্ষন আমার পুষিতে খেলে বেড়ানোর জন্য।
সপ্তাহের একদিন নির্দিষ্ট থাকবে ওর শাস্তির জন্য। প্রতিদিনের আমার মর্জিমতো শাস্তি ছাড়াও ঐদিন সারা সপ্তাহের অজস্র ভুল ,যা আমি লিখে রেখেছি কাগজে সারা সপ্তাহ ধরে ,কিন্তু সময়ের এভাবে শাস্তি দেওয়া হয়ে ওঠে নি ,সেই গুলোর জন্য শাস্তি দেব ওকে আমি।
আমার ফ্ল্যাটের প্রতিটা ঘরে ,ডিভানের পাশের হুকে,বাথটাবের পশে,ডাইনিং টেবিল -এর দাঁড়িয়ে থাকা বিশাল সিংহ মূর্তিটার গলায় ঝোলানো থাকবে এক একটা লিকলিকে চাবুক;লিভিং রুমের লম্বা ফুলদানিতে ফুলের বদলে রাখা থাকবে নানা আকারের কয়েকটা লিকলিকে বেত। যাতে শত ব্যস্ততার মধ্যেও ওর ভুল বা বেয়াদপির জন্য ওকে শাস্তি দিতে পারি আমি; হয়তো এসে দঁড়িয়েছে আমার অফিসের গাড়িটা,ও নিয়ে এলো আমার পোশাকের সাথে সম্পূর্ণ বেমানান জুতো জোড়া ,তখুনি আমি পাশের দেয়াল থেকে তুলে নেবো চাবুকটা ,ওর খোলা পিঠে কয়েকবার বসিয়ে দিয়ে ওর কাতরানির আমেজটুকু উপভোগ করতে করতে গিয়ে উঠব গাড়িতে।
শনিবার সকালে গিয়ে বসবো আমার হেলানো চেয়ারটাতে ; ওর বানানো কফির কাপে চুমুক দিতে দিতে ওর সারা সপ্তাহে করা ভুল গুলোর কারণ জানতে চাইবো আমি; ওর উত্তর শোনার পর প্রতিটা ভুলের জন্য আমার বিচারে পাওয়া শাস্তি লিখবো খাতার পাতায়;ঐদিন লাঞ্চ এর অর্ডার দেব কোনো ক্যাটারারের কাছে-তারপর ওকে হুকুম করবো আমার ভেতরের বিশেষ ঘরটায় গিয়ে হাঁটু মুড়ে বসতে |আপনাকে জানিয়ে রাখি ম্যাডাম ওই ঘরটাকে আমি সাজাতে চাই আপনার পরামর্শমতো ;ইতিমধ্যেই আমি ওটাকে বানিয়েছি সম্পূর্ণ শব্দনিরোধক করে। …আমি চাই না ম্যাডাম ওর কাতরানোর শব্দ শুনতে পায় আমার প্রতিবেশীরা ; আবার মুখে গ্যাগ্ পরিয়ে কাউকে চাবকানো আমার বেশ না-পছন্দের। আমার হাতের চাবুক ওর খোলা শরীরে স্পর্শ করার সাথে সাথে ওর চিৎকার ,ওর নগ্ন শরীরের কেঁপে ওঠা,শীততাপ নিয়ন্ত্রিত ঘরের মধ্যেও ওর অল্প ঘেমে ওঠা শরীর ,চাবুকের কয়েকটা আঘাতে ওর দন্ডটার খাড়া হয়ে ওঠা….এসবই তো হবে আমার পরের সপ্তাহের অজস্র কাজের চাপ নেবার রসদ। সারা শরীরে চাবুকের দাগ নিয়ে ও হামাগুড়ি দিয়ে ঢুকবে ওর ছোট্ট ঘরটায় ;আর ডাইনিং টেবিলে রাখা পছন্দের খাবারের ঢাকনা সরিয়ে ওগুলোর ঘ্রাণ নেবো আমি..রেখে দেব উচ্ছিষ্ট কিছু খাবার জন্য.
নীতা চিঠিটা রেখে উঠে পড়ে। অনেক কাজ রয়েছে। ..স্নান সেরে নিতে হবে।
************************************************************************************************
বিকেল প্রায় শেষ হয়ে এসেছে।হেলানো চেয়ারটাতে আধ শোয়া হয়ে নীতা ডায়েরিতে কিছু লিখছিল। পায়ের কাছে হাঁটু মুড়ে বসে অতীন টিপছিল ওর পায়ের আঙ্গুলগুলো।হঠাৎ মোবাইলটা বেজে উঠলো। মকবুলের ফোন। উত্তেজিত গলায় মকবুল যা জানালো তা হলো গুমঘরে আটকে রাখা সেই লোকটাকে যখন এক গার্ড খাবার দিতে যায় তখন ও কিভাবে ওর হাতের বাঁধন খুলে ওর উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ওর কাছ থেকে চাবিটা ছিনিয়ে নেয় ,তারপর পালাবার চেষ্টা করে , তবে পারেনি।.বাইরের গার্ডরা ওর চিৎকারে ছুটে আসে..ওরাই আবার ওকে ওখানে আটকে রেখেছে। শুনে প্রচন্ড রাগে কাঁপতে থাকে নীতা। ..পা দিয়ে অতীনকে ঠেলে দিয়ে উঠে পড়ে। ….দেওয়ালে ঝুলতে থাকা শংকর মাছের লেজের চাবুকটা তুলে নেয়।মকবুলকে হুকুম করে ওর গাড়িটা নিয়ে আসতে। অতীন কি করবে বুঝতে পারে না..সে আড়চোখে হাতে শংকর মাছের চাবুক নেওয়া তার মিস্ট্রেসের রাগে লাল হয়ে ওঠা মুখের দিকে আড়চোখে তাকায়; ছোট জাঙ্গিয়াটার ভিতর ওর দণ্ডটা সোজা হয়ে ওঠে।
হাভেলি থেকে বেশ কিছুটা দূরে এই গুমঘরটা. এটা একসময় নীতার দাদুর তৈরি করা; অবাধ্য প্রজাদের এখানে দিনের পর দিন আটকে রেখে অত্যাচার চালানো হতো;নীতা ওটার খুব একটা সংস্কার করে নি.সম্প্রতি সে বেশ কয়েকটি ডাঙগিওন বানিয়েছে মিস্ট্রেসদের জন্য, কিন্তু এটা ওগুলোর থেকে আলাদা।.এখানে বেশির ভাগ জিনিসই সেই আগের আমলের , দেওয়ালের আংটাগুলো ,অপরাধীকে বেঁধে চাবকানোর জন্যে কাঠের পোস্টগুলো সবই সেই আগের আমলের।.দেয়ালের রংও বিবর্ণ হয়ে এসেছে।
নীতা মকবুলের সাথে ভিতরে ঢুকলো;একপাশে কাঠের ক্রসটায় লোকটা বাঁধা। বেশ ফর্সা রং,একটু গোল ধরনের এলাকার মুখ,পরনে জিনসের প্যান্ট,শার্টও বেশ দামী।সম্ভবত গার্ডদের সাথে ধস্তাধস্তিতে কোথাও কোথাও ছিঁড়ে গিযেছে। শক্তপোক্ত চেহারা।টান টান করে বাঁধা শরীরটা।ওকে বেশ নারভাস দেখাচ্ছিল।তবু ওদের দেখেই ও চিৎকার করে উঠলো , কেন বেঁধে রেখেছেন আমাকে আপনারা। .. আমি তো বলেছি আমি ভুল করে চলে এসেছি এখানে।..অন্য কোনো উদ্দেশ্য নেই ‘..নীতা ওর কাছে এগিয়ে আসে…. ওর চোখের দিকে কয়েক মুহূর্ত তাকিয়ে থাকে; তারপর প্রচণ্ড জোরে ওর গালে একটা চড় মারে।…..(চলবে)
লেখিকা্-অরুণিমা
গল্প কেমন লাগছে ? অনুগ্রহ করে মন্তব্য করুণ…..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *