এক যে ছিল সুখপিয়াসী নারী – চন্ডাশোক থেকে ধর্মাশোক – ৪

আগের পর্ব
সকালে ঘুম থেকে উঠে রীনা অবজ্ঞাভরা হাসি হেসেছিল। নীচে হাত পা পিছমোড়া করে বাঁধা অশোক সেরকম ই পড়ে আছে ।। ফ্লোর ভিজে রয়েছে গড়াচ্ছে অশোকের পেচ্ছাপ। রীনা নেমে এলো খাট থেকে হাতে রিভলবার “জানোয়ার কোথাকার প্যান্টে মুতে পড়ে আছিস! পরিস্কার করবে কে? তোর বাবা?” অশোক এর চোখে জল চলে এলো আবার, মৃত বাপ মা কে খিস্তি খাওয়াচ্ছে এমন কুলাঙ্গার ছেলে সে। কাল অবদি তুমি তুমি করছিল রীনা, আজ সোজা তুই তে নেমে এসেছে। অশোক জানে ওর পতন অনিবার্য। কোথায় গিয়ে থামবে সে ও জানে না।
রীনা অশোক কে দেখিয়ে পিস্তলে বুলেট ভরলো,কাল ফাঁকা পিস্তল নিয়ে ভয় দেখাচ্ছিল। গুলি ভরে অশোকের নাকে ঠোঁটে উষ্ণ আদর করল রিভলবার দিয়ে। মুখ থেকে বের করল প্যান্টি, তারপর অশোকের মুখে পিস্তল এর নল ঢুকিয়ে দিয়ে রীনা বলল ” এখন বাঁধন খুলে দিচ্ছি। মনে রাখবি সব সময় আমি তোর প্রভু আর তুই আমার পোষা কুকুর । তোর সব কিছুই তোর প্রভুর হিসেব মতো হবে। আমি উঠতে বললে উঠবি বসতে বল্লে বসবি। আমার সব র র আদেশ অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলবি।মনে ত্থাকবে কুত্তা?””
পিস্তল মুখে ভরা অস্ফুটস্বরে অশোক হু বলে ঘাড় নাড়ল সম্মতিসূচক।
অবজ্ঞাভরা কন্ঠে রীনা নতুন বর কে বলল “গুড বয় । প্রথমদিন ক্ষমা করলাম। ফ্লোর ধুয়ে মুছে পরিস্কার কর । আর আমার জন্য ব্রেকফাস্ট তৈরি কর । আমি বাথরুম থেকে ফ্রেস হয়ে আসি ততক্ষনে ব্রেকফাস্ট রেডি থাকে যেন ” ।
তারপর থেকে আজ অবদি তৈরিই থাকে ব্রেকফাস্ট। বরের হাতের ব্রেকফাস্ট ছাড়া চলে না রীনার ।
ধীরে ধীরে রীনা অশোক কে কুকুরের ও অধম বানিয়ে ছেড়েছে।
অশোক এসবিআই এর বাটানগর ব্যাঞ্চের ব্র্যাঞ্চ ম্যানেজার । সোম থেকে শনি সকাল থেকে বিকাল ও ব্যাঙ্ক কর্মীদের ‘ স্যার ‘ থাকে। ডিউটি থেকে ফিরে বউ এর সেবা করতে করতে করতে তার সকাল হয়ে যায়। রবিবার রীনা বন্ধু দের সাথে সকালে বেরোয় ফেরে রাতে। কে জানে কোনো বন্ধুরুপী কারো সাথে শোয় ও হয়ত ওর বউ।
দিন দিন অশোকের অধঃপতন হচ্ছে। প্রথম যেদিন রীনার জুতো চেটে পরিস্কার করতে হয় অশোক আপত্তি করছিল। রীনার মারের চোটে অশোকের বাস্তব সামনে চলে আসে। বাস্তব এটা যে সে তার বৌয়ের পা চাঁটা গোলাম ছাড়া কিছু নয়। রীনার হুকুমের দাস। অবশেষে বউ এর জুতো চাটতে হয়। তারপর থেকে রোজ ই। একদিন এমন ও সময় আছে রীনার ইচ্ছা হয় অশোক কে পায়খানা খাওয়াবে। বার্হরুমে নিয়ে যায় রীনা বর কে। কমোড থেকে উঠে রীনা মলদ্বারে লেগে থাকা গু অশোক কে চেটে খেতে বাধ্য করে। তারপর অশোকের মাথা চেপে ধরে ঢুকিয়ে কমোডের ভিতর । টয়লেটের চটি পরা পা দিয়ে অশোকের মাথা চেপে চেপে চুবিয়ে দিচ্ছিল কমোডের নোংরা জলে। তারপর ফ্ল্যাস চালিয়ে দিয়েছিল।
অসহায় অশোক যখন মুক্তির রাস্তা খুজছিল তখন রীনা পেয়ে গিয়েছিল অশোক কে চিরবন্দি বানানোর উপায়। রোজ রোজ মেরে ধরে কিংবা বন্দুক তাক করে অশোক কে গোলামি করাতে ভাল লাগছিল না রীনার । মেরে ধরে হুকুম তামিল করাতে হাত পা ব্যথা হয়ে যায়। অশোকের রীনা অনলাইনে আমদানি করল একটা অত্যাধুনিক চ্যাস্টিটি ডিভাইজ । পনেরো গ্রাম ওজনের এই বেড়ি টি অশোক কে রীনার পা চাটা কুত্তা বানাবে। একটা স্টেইনলেস স্টিলের পেনিস কেজ কিনে ছিল রীনা। সেটা অশোকের বাড়াতে পরিয়ে লক করে দিয়েছিল।
অশোক এটা খুলে পেচ্ছাপ করতে পারে না। এই ছোট স্টিলের খাঁচার মধ্যে দিয়েই অশোক কে টয়লেট করতে হয়। আর একটা ডিভাইজ স্টেইনলেস স্টিলের বেড়ি…. ছোট্ট সাইজ কিন্তু তার যে কি ক্ষমতা অশোক হাড়ে হাড়ে বুঝতে পারে। ডিভাইজ টা রীনা অশোকের বিচির চামড়ায় পরিয়ে দেয় বলস গুলো নীচে আর উপরে বাড়ার চামড়া শুরু হচ্ছে এমন যায়গায়। তারপর বেড়ি টা লক করে দেয় দেয় রিমোট দিয়ে। খাঁচাবন্দি বাড়া আর বেড়ি বন্ধ বিচির দিকে আতঙ্কিত চোখে তাকায় অশোক। অদ্ভুত লাগে তার । সঙ্গে সঙ্গে মুখ বিকৃত করে এক ঝটকা তে ফ্লোরে আছড়ে পড়ে অশোক, শব্দ করে হেসে ওঠে তার বউ। হাতের রিমোটের বার্টনে আঙ্গুল ছুইয়েছে রীনা, বিচিতে দুশো কুড়ি ভোল্টের শক দিয়েছে ছোট্ট পনেরো গ্রাম গ্রামের বেড়ি টা।
“টেস্টিং কিন্তু এখোনো শেষ হয়নি” রীনা টাচ কন্ট্রোল রিমোট টার সুইচ অফ করে জিন্সের পকেটে ঢুকিয়ে খটখট জুতোর আওয়াজ তুলে ঘর থেকে বেরিয়ে গেল। মেঝেতে পড়ে রইল অশোক ।
শকিং ডিভাইজ টার গুনাগুন হাড়ে হাড়ে বুঝেছে অশোক। ডিভাইজ টায় জিপিএস ট্র্যাকার আছে। রীনা হাতের ব্যান্ডে হলোগ্রাম মোবাইলে “শুভ” কে বল্লেই মোবাইল রানার “শুভ” প্লে স্টোর থেকে “Where is my chastity” app ডাউনলোড করে নেবে, হয়ে যাবে। যেখানেই থাকুক অশোক সব সময় নজরের মধ্যেই থাকবে রীনার । অশোকের অবস্থান দেখাবে হলোগ্রাম ফোন। অশোক বাইরে বেরোলে সঙ্গে থাকবে আরো একটি ডিভাইস। আগেকার যুগের স্মাটফোনের মতো আকারের অটো কন্ট্রোল মেশিন। কানেকসান লস্ট করলে বাড়ি ফেরার পর রীনার হাতে জুটবে চরম কস্টদায়ক শাস্তি। অশোকের কারেও থাকবে একটা ডিভাইস কার থেকে তিনশো মিটার দুরে গেলে অশোক দারুন ইলেক্ট্রিক শক খাবে সরি অশোক বলা ভুল অশোকের বিচি। বিচিতে পরানো রিং সাতটা কিনেছে রীনা, বিভিন্ন কালারের এই যেমন আজ রবিবার অশোক পরে ডার্ক ব্লু কালারের ।
অশোকের হাতের ব্যান্ড হলোগ্রাম ফোনে ব্যাঙ্কের কাজ দরকারি কাজ থাকে কিন্তু ওল্ড যুগের স্মার্টফোন সবসময় অশোক কে ক্যারি করতে হয় না খুব অন্য ব্যাপার হয়ে গেলে রীনা তখন ওকে দেয় । যাইহোক ওই ওল্ড ফোনের গুনাগুন বল্লে এবার পাঠক গালাগালি ই না দিয়ে বসেন?? ।
যাইহোক অশোকের অবনতি হতে হতে এমন পর্যায় প্রতি রবিবার রীনার বা রীনার বন্ধুদের এটো করা বাঁচা মদ খেতে খেতে সুইসাইড করার কথা ভাবে। প্রতিবার ও পিছু হঠে আসে। প্রতিবার ই দৃঢ় সংকল্প করে রীনা নামক ডাইনি রাক্ষসী কে বধ করার । রীনা নামক সাইকো পাগল বউকে শাস্তি দেওয়ার, ওর পাপের ফল ভোগ করানোর স্বপ্ন সত্যি করার । প্রতিশোধ ই অশোকের বাঁচার মুল মন্ত্র হয়ে আছে।
অশোকের সবচেয়ে মন ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায় দুটো সময়ে , মেয়েদের পা চাটতে হলে, শিবাঙ্গী গৌরাঙ্গীর কাছে অপমানিত হতে হলে দ্বিতীয় টা রবিবার কখোনো যদি রীনা সঙ্গে করে কোনো ছেলে বন্ধু কে নিয়ে আসে ফ্ল্যাটে। অশোকের বাস চলত তো এই শয়তান মেয়েছেলের গাড় ফাটিয়ে দিত। এই আজ রাত বারোটার সময় যে রাস্কেল টাকে সাথে করে আনলো রীনা অশোকের ইচ্ছা করে ন্যাড়া করতে শুয়োরের বাচ্চা টা কে। কাধ পর্যন্ত চুল, মুখ একদম ন্যাকা ষষ্ঠি, যেন ভাজা মাচ টি উলটে খেতে পারেনা, গৌরাঙ্গীদের সামনে পড়লে রাস্কেল টা রীনাকে “রী আন্টি” “রী আন্টি” করে । কিন্তু বিছানায় গেলে “রীনা” বলে অশোক ভাল করেই জানে।
হাজার সৎ মেয়ে হোক । অশোকের মরে যেতে ইচ্ছা করে এই কারনেও।
আজ সকালেই গৌরাঙ্গীর পা চেটে চেটে খুম ভাঙ্গাতে হলো গৌরাঙ্গীর থুতু খেতে হলো শিবাঙ্গী দু পায়ের মাঝে লাথি মারল ।। ওহ গুডনেস অশোক কেন মরেনা ।। এই কদিন ওরা আবার কি শিখেছে, না শুধু জাঙ্গিয়া পরিয়ে “বুড়ো” অশোক কে চাবুক মারবে। আজ অবশ্য বেঁচে গেছে ওরা অশোক কে অন–রেস্টুরেন্ট থেকে আনানো কাটলেট ঘুষ দিয়ে শিবাঙ্গী ফ্রেন্ডস দের সাথে সিনেমা দেখতে গেছে আর গৌরাঙ্গী ওর বয়ফ্রেন্ডের সাথে দেখা করতে গেছে। হাজার হোক স্টেপ ডটার কিন্তু ওরা তো জানে অশোক কে বাবা বলে। অশোকের চোখ দিয়ে অঝোরে ঝরে পড়তে লাগল পেটের মদ।
অশোক কে এবার নেমে যেতে হবে ছাদ থেকে ব্যাঙ্কের কিছু কাজ করতে হবে , ওদিকে দেবী দের ব্রেকফাস্ট রেডি করে ডাইনিং টেবিলে চাপা দিয়ে না রাখলে বা দেরী হয়ে গেলেই জুটবে ভয়াবহ সব শাস্তি।
অশোককে এবার নামতে হবে। পুর্ব দিক কমলা কমলা হয়ে আসছে। ভোরের আকাশে উড়ে চলেছে কিছু স্কাইকার । মাতাল আকাশে সেই পুরোনো সূর্য আবার নতুন করে পৃথিবীতে নিয়ে আসবে ভোর ।।
গৌরাঙ্গী জীবনে এত আনন্দ পায়নি। ওর শরীরের প্রতি রোমকুপ দিয়ে যেন ঝরে পড়ছে ভালোলাগা। আজ পুরোনো ধুকতে থাকা কলকাতা, প্রাচীন nকলকাতার প্রানকেন্দ্র ধর্মতলায় গিয়েছিল জিশানের সাথে। আদিম যুগের নিউ মার্কেটে এখোনো পৃথিবীর সব কিছু পাওয়া যায়। উফ! জিসানের সাথে লুপ্তপ্রায় মেট্রো চড়ার কি যে অনুভুতি হয়ে ছিল গৌরাঙ্গীর বলতে পারবে না।
জিশানের সব কিছুই ওর ভালো লাগে। ওর সঙ্গে সময় কাটাতে গৌরাঙ্গীর দারুন লাগে, গৌরাঙ্গী কোনো কিছুতেই এই সুখ উপলব্ধি করতে পারে না। জিসানের সাথে কাটানো প্রতি একটা সেকেন্ড ওর জীবনের সবচেয়ে দামী মনে হয়। আজ সন্ধের মুখে মেট্রো চড়ে ভিক্টোরিয়ার ওখানে গিয়ে ফুচকা খেয়েছে , জিশানের হাত ধরে হেটেছে। ওহ ! কি শক্ত পুরুষালি জিশানের বাহু, বাথটবে গরম জলে শুয়ে গোলাপি যোনিতে আঙ্গুল বোলাচ্ছে গৌরাঙ্গী। ওর শরীরের লোম যেন ছুয়ে যাচ্ছে জিশানের শক্ত হাত।
অন্ধকার নির্জন দেখে গাছের তলায় বাঘিনীর মতো ঝাপিয়ে পড়েছিল গৌরাঙ্গী জিশানের উপর ।।
তারপর চার ঠোঁট মিলে মিশে একাকার হয়ে গিয়েছিল।।
চলবে…………
পাঠক বন্ধুরা রগরগে কিছু লিখতে পারছি না?
ইশ তোমরা বলেছিলে আমার ফ্যান হয়ে গেছ আর আমি পারছি ই না লিখতে ?
তোমরা আর ফ্যান হবে না আমার ভালো লাগে ??
সরি বন্ধুরা হ্যাজাতে বসেছি? ।
আমায় ফেমিনিস্ট বলবে, গাল পাড়বে কিন্তু এগুলো জাস্ট মজা করে আমি সত্যিই পুরুষতান্ত্রিক সমাজে বিশ্বাস করি। সমাজের পুরুষ এর অবদান অনেক। কিন্তু কিছু খারাপ পুরুষের জন্য নারী পুরুষ সমান সমান দাবি টাবি এসব গল্প আমি বিশ্বাস করি না।
মেয়েরা রা মা হতে পারে আর পুরুষ ছাড়া তো সেটা পারছে না। সমান সমান কর্মীরা কি চায় কি ওদের দাবি ? যত্তসব পাগলের দল।
এবার তোমরা আমার মুন্ডুপাত করবে ?। চলো এখন টাটা। ভালো থেকো।। luv u all

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *