মহারাজ মদনসিংহের অদ্ভুত জীবন – ৫

পরের দিন সন্ধ্যাবেলা সভায় সভাসদদের সামনে মহারাজ তাদের আবার জোড়া লাগালেন। তাদের দেহমিলন দেখে সবাই ধন্য ধন্য করতে লাগল আর মহারাজকে ধন্যবাদ দিতে লাগল।
অপরিচিত ব্যক্তিদের সামনে প্রকাশ্যে সঙ্গম করতে মদন আর কাজরীর আর কোনো কুন্ঠা ছিল না। মহারাজ আদেশ করলেই তারা যৌনমিলন করে দর্শকদের আনন্দ দিত। দিনে দিনে নানা প্রকারের মিলনের আসন অভ্যাস করে তারা নিজেদের আরো তৈরি করে নিয়েছিল।
এইভাবে কিছুদিন যাওয়ার পর মহারাজ মদনকে অন্য নারীদের সাথেও সঙ্গম করার অনুমতি দিলেন। এতে কাজরীর কোনো দুঃখ ছিল না। বরং সে অন্য মেয়েদের সাথে স্বামীর জোড়া লাগা দেখতে বেশ ভালবাসত এবং আনন্দ পেত। এবং তাদের মিলনে সক্রিয় ভূমিকা নিত।
মদনের সৌন্দর্য এবং তার যৌনশক্তির কথা মহিলা মহলে ছড়িয়ে পড়েছিল। ফলে অনেক অভিজাত বংশের গৃহবধূরাও গোপনে মদনের সাথে নিজেদের জোড়া লাগিয়ে যৌনইচ্ছা পূরন করে নিত। কাজরী স্বামীর আনন্দের কথা ভেবে নিজে উদ্যোগ নিয়ে মদনের সাথে এই গৃহবধূদের মিলনের ব্যবস্থা করত। মদন অবশ্য কাজরীর প্রতি কোনো অবহেলা করত না। কাজরীর প্রতিটি যৌনইচ্ছা সে চরিতার্থ করত এবং কাজরীর অনুমতি ছাড়া কখনো কোনো মেয়ের সাথে নিজেকে জোড়া লাগাত না। ফলে মদন আর কাজরীর দাম্পত্যপ্রেম অটুট রইল। এবং তারা আদর্শ স্বামী–স্ত্রীর মত বসবাস করতে লাগল।
এইভাবে সুখেই কয়েকবছর চলে গেল। মদনের ঔরসে কাজরীর গর্ভে একে একে দুটি পুত্র এবং একটি কন্যা সন্তান জন্ম নিল। মদন অবশ্য মহারাজের ইচ্ছায় যৌনকলা ছাড়াও আরো অনেক কিছু শিখেছিল। বিভিন্ন শাস্ত্রেও সে বেশ চৌকস ছিল এবং যুদ্ধবিদ্যাতেও ছিল পারদর্শী। বেশ কয়েকটি যুদ্ধে মদনের অসামান্য কৃতিত্ব দেখে মহারাজ একসময়ে মদনকে দেশের সেনাপতি করলেন।
এইভাবে আরো কয়েকবছর যাওয়ার পরে মহারাজ হঠাৎ অসুস্থ হলেন। তাঁর তিন রানীর গর্ভে তিনটি কন্যাসন্তান থাকলেও পুত্র একটিও ছিল না। মহারাজ যখন বুঝতে পারলেন যে তাঁর শেষ সময় ঘনিয়ে আসছে তখন তিনি মদনকে পুত্র হিসাবে দত্তক নিয়ে যুবরাজপদে অভিষিক্ত করলেন। এবং তারপর মহারাজের শেষ ইচ্ছানুযায়ী তাঁর মৃত্যুর পর মদনই দেশের রাজা হল।
মহারাজ মদনসিংহ নাম নিয়ে মদন রাজা হয়ে দেশশাসন আরম্ভ করল। কাজরী হল দেশের পাটরানী। মদন রাজার সমস্ত দায়িত্ব পালন করতে লাগল।
মহারাজার মৃত্যুর পর একটি বছর কেটে গেল। একদিন বিধবা বড়রানী মদনকে ডেকে পাঠালেন তাঁর মহলে।
মদন আগের মতই বিনীতভাবে ভৃত্যের মত বড়রানীর কাছে উপস্থিত হল সেখানে মেজোরানী ও ছোটোরানীও ছিলেন। মদন তাঁদের ভক্তিভরে প্রণাম করে বলল – আদেশ করুন মহারাজের অবর্তমানে আপনাদের কোনোরকম অসুবিধা হচ্ছে নাতো ?
বড়রানী বললেন – না মদন তোমার রাজত্বে আমাদের কোথাও কোন সমস্যা নেই। তবে কি জানো তো তুমি আমাদের তিন রানীর প্রতি সব কর্তব্য পালন করছ না।
মদন বলল – আমি বুঝতে পারছি না রানীমা আপনি কিসের কথা বলছেন।
বড়রানী বললেন – দেখ রাজ্যের নিয়ম অনুযায়ী একজন রাজার পরে যখন নতুন রাজা হয় তখন সে প্রাক্তন রাজার সকল যুবতী রানীদেরও স্বামী হয় এবং তাদের প্রতি সকল দায়িত্ব পালন করতে হয়। তাই তুমি বর্তমানে আমাদের তিনজনেরই স্বামী। কিন্তু তুমি এখনও আমাদের স্ত্রীর মর্যাদা দান করনি।
মদন বলল – মাপ করবেন রানীমা আমি একথা জানতাম না। আমি ভেবেছিলাম মহারাজের মৃত্যুর পর আপনারা আপনাদের বাকি জীবন বৈধব্য বেশেই কাটাবেন।
বড়রানী বললেন – গত একবছর আমরা তিনজন মহারাজের শোকে কঠিন বৈধব্য এবং ব্রহ্মচর্য পালন করেছি। কিন্তু সারাজীবন বিলাসিতা এবং সুখের মধ্যে কাটিয়ে এই বৈধব্য জীবন আমাদের কাছে অসহ্য হয়ে উঠছে। বিশেষ করে কামদেব আমাদের দেহে যে অসহ্য যৌন ইচ্ছা সৃষ্টি করছেন তা উপশম করতে না পারলে আমরা পাগল হয়ে যাব। কোনো অসাধারন যৌনক্ষমতাশালী পুরুষের সাথে রতিক্রিয়াতেই কেবল আমাদের এই কামনার উপশম সম্ভব। আর তুমি থাকতে অন্য কোন সাধারন পুরুষ আমাদের তিনজনকে ভোগ করে যাক এতো হতে পারে না।
তাই আমরা তোমাকেই পতিত্বে বরণ করে আমাদের বাকি যৌবনকাল তোমার সাথে সহবাসের মাধ্যমে যৌনসুখভোগ এবং বিলাসিতার মাধ্যমে কাটাতে চাই। তুমি কিছু চিন্তা কোর না। আমরা তিনজনেই তোমার থেকে বেশী বয়সী হলেও আমাদের দেহে যৌবন এখনও অটুট। আমরা বিবিধ প্রকারের যৌনশিল্পে দক্ষ। আমাদের শরীরে তোমার শরীর জোড়া লাগালে তুমি যথেষ্ট আনন্দ পাবে সে বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। তবুও আমরা তোমার বিশ্বাস উৎপাদনের জন্য তোমার সামনে নগ্ন হচ্ছি তুমি ভাল করে দেখে নাও আমাদের উলঙ্গ দেহ তারপর সিদ্ধান্ত নাও যে আমরা তোমার উপভোগের যোগ্য কিনা।
এই বলে তিন রানী একটি একটি করে সমস্ত পোশাক ত্যাগ করে পূর্ণ উলঙ্গ অবস্থায় মদনের সামনে হাত ধরাধরি করে দাঁড়ালেন। মদন তার অল্পবয়স থেকেই মহারাজের সাথে মিলনরত অবস্থায় তিনরানীকে দেখেছে বহুবার। মহারাজের দৃঢ় পুরুষাঙ্গটি যখন রানীদের যৌনকেশাবৃত যৌন অঙ্গের মধ্যে ওঠানামা করত সে দৃশ্য দেখে মদনেরও লিঙ্গ উথ্থিত হয়ে উঠত। সে সময় সে রানীদের নগ্ন দেহের কথা চিন্তা করে সে মাঝে মাঝে হস্তমৈথুনও করত। তখন সে চিন্তাও করতে পারেনি যে একদিন এই তিন পরমাসুন্দরী রাজরানীই তার সামনে উলঙ্গ হয়ে দাঁড়াবেন মিলন প্রত্যাশায়।
মদন নতুনভাবে তিন রানীর অনাবৃত যৌবনের সৌন্দর্য অবলোকন করতে লাগল। তাঁদের দেহে এখনও বয়সের কোনো ছাপ পড়েনি। পুরুষের উপভোগের জন্য তাঁদের মাখনের মত শরীর যেন বিধাতা বিন্দু বিন্দু করে তৈরি করেছেন। মহারাজ দীর্ঘসময় ধরে তিন রানীকেই নিয়মিত উপভোগ করে তাঁদের যোনিতে নিয়মিত বীর্যপাত করতেন। নিয়মিত যৌনসুখভোগ ও বীর্যগ্রহন করে তাঁদের দেহ হয়ে উঠেছে আরো যৌনউদ্দীপক ও কামোত্তেজনাকর। প্রথম সন্তানের জন্মদান করার পর তাঁদের যৌনপ্রবৃত্তি আরো বৃদ্ধি পেয়েছে।
তিন রানীর স্তনগুলি নিটোল এবং আকারে বেশ বড়। তাঁদের কটিদেশ ক্ষীণ এবং বৃহৎ নিতম্বের আকার যেন নিঁখুত একটি তানপুরা। তাঁদের দীর্ঘ সবল উরুগুলি যেন দুটি বিশাল মসৃণ স্তম্ভ। আর তিনরানীর দুই উরুর মাঝখানের উপত্যকাটি ঘন কালো যৌনকেশ দ্বারা আচ্ছাদিত। ওখানেই লুকিয়ে আছে তাঁদের রাজকীয় মাংসল কামতপ্ত গুহা যেগুলি মদনের পুরুষাঙ্গটিকে নিজেদের উত্তপ্ত কোটরের মধ্যে গ্রহন করার জন্য ব্যাকুল হয়ে উঠেছে।
তিন রানীর অনাবৃত দেহ দেখে মদন কামার্ত হয়ে পড়েছিল। তার পুরুষাঙ্গটি পোশাকের মধ্যে একটি বৃহৎ তাঁবু তৈরি করে দাঁড়িয়ে পড়ল।
সেদিকে তাকিয়ে বড়রানী মুচকি হেসে বললেন – দেখ মদন তোমার পুরুষাঙ্গটিও আমাদের ডাকে সাড়া দিয়েছে। এখন তুমি রাজি হলেই হয়। তুমি আমাদের শয্যাসঙ্গিনী করে আমাদের কামকাতর যোনিতে একবার বীর্যপাত করলেই আমরা তোমার স্ত্রীর মর্যাদা পাব।
এই বলে বড়রানী নিজের পদযুগল দুই দিকে প্রসারিত করলেন। তারপর তিনি নিজের যৌনকেশাবৃত যোনিরেখাটির উপর নিজের হাতের আঙুল বুলোতে বুলোতে বললেন – তোমার কি মনে হয় আমরা তোমায় কেমনভাবে যৌনআনন্দ দেব ? আমরা তিনজনেই কামসূত্রে বর্ণিত চৌষট্টিটি সঙ্গম আসনে দক্ষ। তুমি যেভাবে চাইবে আমরা তিনজনে তোমাকে সেইভাবেই যৌনআনন্দ দেব।
মদন বলল – রানীমা আমি যখন অল্প বয়সে এখানে এসেছিলাম মহারাজের ভৃত্য হয়ে তখন আপনি মায়ের মত আমার খেয়াল রাখতেন। মহারাজের সাথে সাথে আপনার স্নেহও পেয়েছি পুরোমাত্রায়। আমি ছিলাম আপনাদের ভৃত্য, আপনাদের সন্তানের মত। এখন আপনাদের সাথে শারিরীক সম্পর্ক স্থাপন করতে হবে এই চিন্তা করে কিছুটা সঙ্কোচ বোধ করছি।
বড়রানী হেসে বললেন – তোমার সঙ্কোচের কোনো কারণ নেই মদন। সময় পালটায়, যুগ পালটায় তাই আমরাও পালটাই। আজ আর তুমি ভৃত্য নও। তুমি এই রাজ্যের মহারাজা। আর আমরা সবাই তোমার সেবিকা বা দাসী। আজ তুমি হুকুম করবে আর আমরা পালন করব। একেই আমাদের মেনে নিয়ে চলতে হবে। আর মৃত্যুর আগে মহারাজও আমাকে অনুরোধ করেছিলেন যেন আমরা তিনজন উপোসী না থেকে তোমার সাথে যৌনসম্পর্ক স্থাপন করি এবং তোমাকেই পতিত্বে বরণ করি।
মদন বলল ঠিক আছে রানীমা। আপনার ইচ্ছাই পূর্ণ হোক। আমি আপনাদের তিনজনের সাথে সঙ্গম করে স্ত্রীর মর্যাদা দেব। তবে আপনাদের মত সর্বাঙ্গসুন্দরী সর্বসুলক্ষণা তিন নারীর সাথে দেহমিলন আরম্ভ করার আগে আমি একবার কাজরী ও রাজপুরোহিতের সাথে আলোচনা করে নিতে চাই। জ্যোতিষশাস্ত্র মেনে সঠিক দিনক্ষণ অনুযায়ী আমি আপনাদের সম্ভোগ করব। যাতে আপনাদের সাথে আমার মিলন শুভ ও আনন্দদায়ক হয়।
বড়রানী বললেন – এতো খুব ভালো কথা। আর আমাদের দেহে তোমার দেহ যুক্ত করার আগে একবার তোমার পাটরানী কাজরীর কাছ থেকেও সম্মতি নেওয়া প্রয়োজন। তবে আমি নিশ্চিত সে খুশিমনেই আমাদের সাথে তোমার যৌনমিলনে সম্মতি দেবে।
মদন বলল – বেশ তাই হবে।
মদন নিজের মহলে ফিরে গিয়ে কাজরীকে বলল – কাজরী তিন রানী আমার সাথে শারিরীক সম্পর্ক স্থাপন করতে আগ্রহী। এ বিষয়ে তোমার মত কি।
কাজরী বলল – মহারাজ এ তো খুবই আনন্দের খবর। এর মাধ্যমে এটাই প্রমান হয় যে তাঁরা আপনাকে দেশের সম্রাট হিসাবে মেনে নিলেন। কারন সম্রাটেরই অধিকার থাকে রাজ অন্তঃপুরের যেকোন নারীর সাথে সহবাস করার। আর আপনার সাথে মিলনের মাধ্যমেই তাঁরা প্রাক্তন রাজার বিধবা পত্নী থেকে বর্তমান রাজার বিবাহিতা রানীর মর্যাদা লাভ করবেন এবং ইচ্ছামত বিলাস ব্যসনে জীবন অতিবাহিত করতে পারবেন। অতএব আপনি নিঃসংকোচে তিন রানীকে উপভোগ করে তাঁদের যোনিতে আপনার বিজয়পতাকা উত্তোলন করুন। এতে আমার পূর্ণ সম্মতি আছে।
মদন বলল – তাহলে আমি রাজজ্যোতিষীর সঙ্গে পরামর্শ করে শুভকর্মের দিনস্থির করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *