মুন্নার জীবনের প্রথম অভিজ্ঞতা – ৪

মুন্নার কথা – ১
আমি মুন্না । আগের দিন মধুর সাথে শুয়ে অনেক অভিজ্ঞতা হলো। রাতে ঘুমাতে দেরী হলেও সকাল সাড়ে চারটায় কেম্পের সামূহিক এলার্ম বাজার সাথে সাথে উঠে পড়লাম। লেট্ৰিন গিয়ে পায়খানা হলো না। দাঁত মেজে মুখ ধুয়ে চায়ের লাইনে চা খেয়ে দৌড়ে গিয়ে পেরেডের লাইনে হাজির হলাম। মধু আমার সাথেই আছে। সকালের পেরেডের শেষ হলো সকালে নটায়। তারপর ব্রেকফাষ্টের পর আবার ক্লাশ । বিকাল পাঁচটায় ক্লাশ শেষ হলো। বিকালে আবার লেট্ৰিন গেলাম। কিন্তু পায়খানা হলো না। গতকাল বাড়িতেও পায়খানা হয়নি। এখন পেট ব্যথা করছে। মধুকে বল্লাম। মধু কেপ্টেইন সাহেবকে বলে ডাক্তার দেখানোর ব্যবস্থা করলো।
কেপ্টেইন সাহেব আমাকে কমান্ডারের রুমে নিয়ে গেলেন। কমান্ডার সাহেব আমাকে দেখে গাল টিপে দিলেন। বললেন ‘সুইট বয়। কিউট বয়। অসুখ ঠিক হয়ে যাবে। তুমি নিচে সিক রুমে যাও। ‘ কেপ্টেইন সাহেব আমাকে নিচে সিক রুমের বেডে রেখে বললেন যে ডাক্তার আসবে। দেখবে। ওষুধ দেবে। ‘ আমার পেট ব্যথা করছিল। ডাক্তার এলেন । উপরের রুম থেকে কমান্ডার সাহেবকে ডেকে নিলেন। পেট টিপে দেখলেন। জিজ্ঞেস করলেন যে কতদিন পায়খানা হয়নি। আমি বললাম দুদিন। ডাক্তার ওষুধ লিখে দিলেন। কমান্ডার সাহেবকে বললেন যে ডুস দিতে হবে। কে দিয়ে দেবে। কমান্ডার সাহেব বললেন , ‘আমি ওপরের রুমে থাকি।
ডাক্তার ওষুধ লিখে দিলেন। কমান্ডার সাহেবকে বললেন যে ডুস দিতে হবে। কে দিয়ে দেবে। কমান্ডার সাহেব বললেন , ‘আমি ওপরের রুমে থাকি। তাই রাতে ডুস দিতে অসুবিধা হবে না। ‘ ডাক্তার ওষুধ লিখে দিয়ে চলে গেলেন। বলে গেলেন যে রোগীকে আরাম দিতে। কঠিন ডিউটি না দিতে।
কমান্ডার সাহেব ওষুধ আনতে লোক পাঠালেন। বললেন , ‘সুইট বয়, ভেবো না। ওষুধ এলেই তোমাকে ডুস দিয়ে দিব। পেট সাফ হয়ে যাবে।‘ সাহেব সিঁড়ি বেয়ে ওপরের রুমে উঠে গেলেন। আমি সিক রুমের বেডে শুয়ে রইলাম। সিক রুমটা স্কুলের অন্যান্য রুম থেকে দূরে নির্জনে বানানো হয়েছে । ঠিক ওপরে দোতলায় হেডমাস্টারের রুমটা কমান্ডার সাহেবের জন্য দিয়েছেন। স্কুল এখন বন্ধ। তাই হেডমাস্টার এখানে থাকেন না।
কমান্ডার সাহেব বয়স্ক লোক। লম্বা দাড়ি পাঠান কিন্তু বাঙলা কথা বলেন। প্রায় ছ‘ফুট লম্বা। নাম হরকত খান। হরকত খানের আব্বা পাকিস্তানে ফৌজি ছিলেন। বাঙালী মেয়ে শাদী করে বাংলায় থেকে যান। হরকত খান একাত্তরের পর বাংলাদেশেই ফৌজের কাজে থেকে যান। ফৌজ থেকে রিটায়ার করে গাইডের কমান্ডার হয়ে জয়েন করেছেন বলে শুনেছি। খুব কড়া লোক।
সন্ধ্যার সময় খানজী সিক রুমে এলেন। আমাকে একটা লুঙীর মতো পাতলা কাপড় পরতে দিলেন। বললেন জামা কাপড় খুলে ওইটা পরে থাকতে। উনি নিজেই আমার জামা গেঞ্জি খুলে কাপড়টা আমার বুকের ওপর গিঁট দিয়ে বেঁধে দিলেন। যেরকম দেখেছি আমাদের আম্মু স্নানের সময় বুকের ওপর পেটিকোট বেঁধে বুকের দুধ ও পাছা ঢেকে রাখে। কাপড়ের নিচে পেন্ট পরা ছিলাম। খানজী বললেন পেন্ট খুলে রাখতে। কারণ ডুস দেবার সময় পেন্ট পরা চলবে না। আমি পেন্ট খুলে রাখলাম। ওপরে শুধু বুকে বাঁধা কাপড়ে আমার বুক, পাছা ও সামনের দিক ঢাকা থাকলো। নিজেকে কেমন আম্মু আম্মু মনে হচ্ছে । খা
নজী একটা মাপার ফিতে এনে আমাকে দাঁড় করিয়ে আমার উচ্চতা মাপলেন। পাঁচ ফুট । বুকের ছাতি মাপলেন। 32 ইঞ্চি। পাছার ঘের মাপলেন। 34 ইঞ্চি। কোমর মাপলেন । 26 ইঞ্চি। বললেন ’32-26-34 । ওকে।‘ মেশিনে ওজন নিলেন। 52 কেজি। সব একটা কাগজে লিখলেন। কাকে যেন ফোনে বললেন সব কিছু। মনে হয় ডাক্তারকে। ওদিক থেকে সাড়া পেয়ে বললেন, ‘ঠিক আছে। ডুস দিব।‘ আমাকে বললেন বিছানায় শুয়ে থাকতে। আমি শুলাম। খানজী আমার গায়ে একটা কম্বল টেনে দিয়ে বললেন ‘কিউট বয়।‘
তারপর দাড়ি ভরা মুখে আমার ঠোঁটে একটা চুমু দিয়ে বললেন। ‘ভেবো না। আরামে ডুস দেবো। ‘ আমি ওই দাড়ির ঘষা খেয়ে কেঁপে উঠলাম। আমার জানা নেই যে ডুস কিভাবে দেয়। তাই চুপ চাপ শুয়ে অপেক্ষা করতে লাগলাম । দেখলাম খানজী এলেন। একটা ট্রে এনে আমার সামনে রাখলেন। একটা জেলি টাইপের মলম, একটা ইঞ্চি খানেকের নরম রবারের গোল রিং, একটা ছোট বোতলে ওষুধ, দুটো রবারের বেগুনের মতো ছ ইঞ্চি লম্বা জিনিস, একটা বেগুন একটু সরু প্রায় এক ইঞ্চি ঘের, অন্যটা মোটা দু ইঞ্চি ঘের। খানজী আমাকে বললেন উপুর হয়ে শুতে।
আমি উপুর হওয়ার সাথে সাথেই খানজী আমার পাছার ওপর থেকে কম্বল সরিয়ে দিলেন। পাতলা কাপড়টাও সরিয়ে আমার পাছা লেংটা করে নিলেন। পাছার দাবনা দুটো টেনে পাছার ফুটোর ওপরে আস্তে আস্তে আঙুল দিয়ে দেখলেন। একটু পরে পাছার ফুটোর মধ্যে বিজল বিজল কিছু মাখলেন। বুঝলাম জেলির মতো ওষুধটি লাগিয়ে পাছার ফুটো পিচ্ছিল করে নিলেন। টের পেলাম খানজী পাছার দুই দিকে দুই হাতে মাংসপেশী মুঠো করে টিপলেন ও দাড়ি ভরা মুখে চুমু খেলেন। আমার পাছার ফুটো শির শিরিয়ে উঠলো। খানজী এবার ওই এক ইঞ্চি রিংটা আমার পাছার ফুটোয় সেট করলেন। জেলি মেখে পিচ্ছিল করে রিংটা পাছার ফুটোয় ঢুকিয়ে দিলেন। রিং এর সরু দিকটা ফুটোর ভিতরে ঢুকে গেল আর মোটা দিকটা বাইরে থাকলো। রিংটা পাছার ফুটোয় বসে গিয়ে পাছার মুখটা প্রায় দু ইঞ্চি খুলে দিলো।
এবার দেখলাম খানজী ওই ছ‘ ইঞ্চি লম্বা এক ইঞ্চি মোটা রাবারের বেগুনে জেলি মেখে পিচ্ছিল করে নিলেন। একটু পরে টের পেলাম আমার পাছার রিংএর ভিতরে কিছু একটা ঢুকছে আর বেরুচ্ছে । খানজী বেগুনটাকে আমার পাছায় পুরো ছ‘ইঞ্চি ঢুকিয়ে দিচ্ছেন আবার বের করছেন। পাছার মুখে রিং দিয়ে খুলে রাখার জন্য বেশি ব্যথা পাচ্ছি না। খানজী বললেন , ‘ মাই সুইট চাইল্ড। তোমার পাছার ফুটো খুব ছোট ছিল। ওখান দিয়ে কিছু ঢোকালে কষ্ট পেতে। তাই রিং লাগিয়ে মুখটা খুলে দিয়েছি। এবার বড় মোটা জিনিসও ঢুকবে । তোমার পায়খানার কষ্ট হবেনা। ‘
খানজী এবার মোটা বেগুনটাতে জেলি মাখিয়ে রিংএর মুখটা বড় করলেন। রিংটা রবারের , তাই বড় করতে অসুবিধা হচ্ছে না। রিংটা বড় হলে আমার পাছার ফুটোও বড় হচ্ছে । প্রথমে একটু কষ্ট হলেও পরে সহ্য হয়ে গেছে। এবার খানজী দু ইঞ্চি মোটা বেগুনটাকে পাছায় ঢোকালেন। আবার বের করলেন। বারবার করতে করতে আমার আর কষ্ট হচ্ছে না। খানজী জিজ্ঞেস করলেন , ‘ মাই কিউট চাইল্ড । কষ্ট হচ্ছে? ‘ আমি বল্লাম ‘না‘। খানজী খুশি হলেন। পাছার দুদিকের মাংস মুঠো করে ধরে চুমু খেলেন। আরো কিছুক্ষণ বেগুনটাকে আমার পাছার ফুটোয় যাওয়া আসা করালেন। যখন দেখলেন পাছা পুরো ঢিলে হয়ে গেছে তখন বেগুনটাকে ভিতরে রেখে রিংটা পাছার মুখ থেকে খুলে নিলেন।
পাছার মুখটা বেগুনটাকে কামড়ে ধরলো। এবার খানজী আবার বেগুনটাকে আসা যাওয়া করালেন। পাছার মুখটা টাইট হয়ে যাওয়ায় কষ্ট হচ্ছে । কিন্তু কিছু ক্ষণের মধ্যে পাছার কামড় ঢিলে হয়ে গেল। খানজী বেগুন বের করে নিলেন। পাছার ভিতরটা খালী হয়ে গেল। এবারে খানজী ছোট ওষুধের বাল্বটা আমার পাছায় ঢুকিয়ে ওষুধ ঢেলে দিলেন। বললেন ‘তোমার এখনকার ডুস কমপ্লিট। এখন লেট্ৰিন যেতে পারো।‘ আমি তাড়াতাড়ি লেট্ৰিন গেলাম। সিক রুমের সাথেই লেট্রিন। সাথে সাথে অনেক পায়খানা হয়ে পেট খালী হয়ে গেল। ‘ আমি পরিস্কার হয়ে সিক রুমে এলাম। ওই এক টুকরো কাপড় বুকে গিঁট দিয়েই ঘরে এলাম। খানজী আমাকে ধরে সিক বেডে শুইয়ে দিলেন। বল্লেন, ‘পেট ব্যথা কমেছে?’
আমি উত্তর দিলাম, ‘হ্যাঁ স্যার‘। খানজী বলিলেন, ‘বেবি, আমাকে সার বলে ডেকো না।‘ আমি বললাম, ‘তবে কি ডাকবো?’
খানজী বললেন, ‘তোমার ঘরে কে কে আছে?’
আমি উত্তর দিলাম,’আম্মু, আব্বু, তিন ভাই, চাচু, আর বুড়ি আম্মু।‘
খানজী বললেন, ‘আমি তোমার আঙ্কেলের মতো। আমাকে আঙ্কেল বলবে।‘ আমি বললাম, ‘ঠিক আছে আঙ্কেল ।‘ খানজী আমার মুখের দিকে তাকিয়ে বললেন,’ মুন্না। তুমি দেখতে খুবই সুন্দর। দারুণ ফর্সা, গোলাপী গাল। পাতলা ঠোঁট গোলাপের পাপড়ির মতো। চোখ টানা টানা। শরীরে একটুও লোম নেই। নরম। তুমি ছেলে না হয়ে মেয়ে হলে ভালো হতো। ভগবান তোমাকে ভুলে ছেলে বানিয়েছেন। তোমার বোন নেই?’ আমি খান আঙ্কেলের মুখে আমার প্রশংসা শুনে লজ্জা পাচ্ছিলাম। বল্লাম, ‘ না আঙ্কেল । আমার বোন নেই। তিন ভাই। সেজন্য ছোটবেলায় মা আমাকে মেয়ে সাজিয়ে রাখতো।‘ খান আঙ্কেল আমার গালে টোকা মেরে বললো , ‘ তুমি মেয়েই। আমার কাছে মেয়েছেলে। তোমাকে খুব আদর করতে ইচ্ছা করছে। খিদে পেয়েছে? ‘ আঙ্কেল আমাকে তুলে ওনার কোলে বসালেন। আমার সত্যিই খিদে পেয়েছে ।
রাত প্রায় নটা বাজে। আমি এখনো ওই পাতলা কাপড়টাকেই লুঙীর মতো বুকে বেঁধে রেখেছি। নিচে পেন্ট নেই। আমি আঙ্কেলের কোলে বসে বল্লাম , ‘আঙ্কেল! পেন্ট পরে নিই?’ আঙ্কেল বললো, ‘দরকার নেই। আবার ডুস দিতে হলে খুলতে হবে।‘ আমার ঠাণ্ডা লাগছিল। আঙ্কেল আমাকে কোলে নিয়ে কাপড়ের নিচে দুদিকের বুকের মাংস দুই হাত দিয়ে দলাই মলাই করছিল। আঙ্কেলের হাতগুলো খসখসে শক্ত । সারা গায়ে বুকে পিঠে হাতে ভালুকের মতো লোম। শীতের মধ্যে আঙ্কেল আমাকে জড়িয়ে ধরে গরম দেবার চেষ্টা করছিল। আমি বল্লাম, ‘আঙ্কেল! তোমার গা খসখসে। দাড়িগুলো গালে লাগছে। হাতগুলো বেশি শক্ত।‘ খান আঙ্কেল বললো , ‘বেবি! আমি ফৌজি মানুষ। সেজন্য বডি শক্ত। ত্রিশ বছর ফৌজি অভিজ্ঞতা আছে। তোমার মতো বেবিকে খুবই আদর করতে পারি।‘ আঙ্কেল আমাকে পাঁজাকোলা করে ওনার বুকের কাছে দুহাতে জড়িয়ে তুলে নিয়ে দাঁড়ালেন। বল্লেন, ‘বেবি। তোমাকে হাঁটতে হবেনা। আমি কোলে করেই ওপরে খাবার জন্য নিয়ে যাবো।‘

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *