এখনকার কলকাতা আধুনিক জীবন পর্ব ১

গল্পের শুরু অর্ণব এর কথায় ,
নমস্কার আমি অর্ণব | কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে Masters শেষ করে কলকাতায় কাজ এর জন্যে এসেছিলাম। ইচ্ছে ছিল কিছুদিন এখানে থেকেই কাজ এর সন্ধান করবো। ও বলতে ভুলে গেছি , আমার জেঠুর ছেলে মানে অয়নদা এখন এ থাকে।
আমি আগে কলকাতা এলেও সেইভাবে ঘোরার সুযোগ পাইনি । তবে অয়নদা কয়েক বছর ধরে ওর বৌ এর সাথে কলকাতায় বসবাস করছিলো । জেঠুর মুখে শুনেছিলাম দাদার কলকাতায় নিজের ফ্ল্যাট কিনেছে । দাদা কলকাতায় থেকেই বিয়ে করেছিল, বৌদি ও কলকাতার মেয়ে। তাই আমার ফাইনাল year পরীক্ষা থাকার জন্যে আমি ইচ্ছে থাকতেও আস্তে পারিনি। বিয়ের পর থেকে দাদা খুব একটা দেশ এর বাড়ি যেত নাহ। তাই আমিও বৌদি কে সেই ভাবে দেখার সুযোগ পাইনি।
যাই হোক এবার বর্তমান এ ফিরে আসি। আমার ট্রেন সকাল ৭ টা নাগাদ হাওড়া স্টেশন এ পৌঁছানোর কথা ছিল। আমি ট্রেন এ থাকতেই দাদার কাছ থেকে ওর ঠিকানা নিয়ে রেখেছিলাম । সত্যি বলতে কি আমি ফোন-টোন করে সকালে দাদা কে বিরক্ত করতে চাইনি। যতই হোক নিজের দাদা নয়। তবে বৌদি কে দেখার ভীষণ আগ্রহ ছিল। সামনা-সামনি যদিও দেখিনি তবে ফটো তে দেখছিলাম।
সত্যি বলতে কি আমি অয়নদা এবং বিশেষত ওর বৌ সাথে দেখা করার জন্য আগ্রহী হয়ে উঠছিলাম কারণ অনেক দিন পর ওদের সাথে দেখা হতে চলেছিল । যাত্রাটি মোটামুটি ৮ ঘন্টার ছিল আর ফোনে গেম খেলা, গান শোনা ছাড়া আমার আর কোনও উপায় ছিল না।
হাওড়া তে যখন নামলাম তখন ওই ৭.৩০ টা হবে। তারপরে হাওড়া থেকে directly ট্যাক্সি বুক করে দাদার ঠিকানায় পৌঁছাতে প্রায় ১ ঘন্টা সময় লেগেছে । জায়গা আর কোথাও নয়… সাউথ সিটি কমপ্লেক্স।
রুম নম্বর A২৩০। নক করে দরজার সামনে দাঁড়িয়ে আছি। কিন্তু কোনো সাড়া নেই। ভাবলাম ভুল লোক এর বাড়িতে নক করিনি তোঃ। আবার বাজালাম তবে এবার কয়েক মিনিট পরে ভিতরে থেকে কিছু আওয়াজ শুনতে পেলাম।
দরজা কিছুটা খুলে গেল। ভিতর থেকে একটি স্টিলের বাটি বের করে দিল, আমি প্রথমে থতমত খেয়ে গেছি। লক্ষ্য করলাম যে হাতটি একজন মহিলার। উনি আমাকে বাটি নিতে ইঙ্গিত করার চেষ্টা করছিলেন।
আমি দরজায় টোকা মেরে ভিতরের মানুষটিকে হ্যালো বললাম। এবার দরজাটা আরো কিছুটা খুলে গেলো। চোখ এর সামনে একজন সুন্দরী মহিলা দাঁড়িয়ে, কোনও মেকআপ ছাড়া ,নিদ্রাহীন চোখ এবং এলোমেলো চুল.. দেখে মনে মনে ভাবলাম অয়ন দার বৌ নয় তোঃ।
মহিলা : কে আপনি ?
আমি একটু ঘাবড়ে গিয়ে : ইয়ে মানে আমি অর্ণব, ওয়াচম্যান বললো এটাই অয়ন রায়ের ফ্ল্যাট।
এবার মহিলার মুখে হাসি দেখতে পেলাম। আমায় বললো : ও তুমি অর্ণব। এস এস ভিতরে এস।
তিনি দরজা পুরো খুলতে খুলতে বললেন : অয়ন কাল রাতেই আমাকে বলেছিল যে তুমি আজ আসছো। আমি তোমার বৌদি।
মনে মনে ভাবলাম, শালা আমার দাদা টা তো ভালোই মাল কে বিয়ে করেছে।
পুরো দরজাটা খোলার পর আমার মাথা ঘুরে যাওয়ার মতো অবস্থা। বৌদি আমার সামনে দাঁড়িয়ে একটা সাদা শার্ট পরে ছিল , যেটা ওর থাই এর ঠিক মাঝখানে শেষ হয়েছিল।
বৌদি : তুমি কোন ট্রেনে এলে ?
আমি যতটা সম্ভব না তাকানোর চেষ্টা করে উত্তর দিলাম : কা… কামরূপ।
বৌদি : অয়ন আমাকে বলেছিল যে তুমি সকালে পৌঁছে যাবে, কিন্তু আমি এতো তাড়াতাড়ি আশা করিনি ।
আমি : I am really sorry বৌদি। আমার একটু স্টেশন এ অপেক্ষা করে আসা উচিৎ ছিল।
বৌদি : আরে ধ্যাৎ। ওসব কিছু নয়। আসলে একটু পরেই দুধের লোক দুধ
আসবে। আমি ভেবেছিলাম দুধওয়ালা এসেছে।
এতক্ষন কথা বলতে বলতে আমরা ড্রয়িং রুম এ চলে এসেছিলাম। সত্যি বলতে আমি তো চোখ তুলে তাকাতেই পারছিলাম নাঃ ।
বৌদি আমার দিকে হাত বাড়িয়ে : আমার নাম ঐশী। আচ্ছা তুমি তো আমাদের বিয়েতেও আসনি।
আমি: হ্যাঁ মানে আমার তখন ফাইনাল ইয়ার পরীক্ষা ছিল বৌদি ।
হঠাৎ বৌদি আমার দিকে ফেরে এবং বুঝতে পারে যে আমি ওর শরীর এর দিকেই তাকিয়ে আছি ।
তবে বৌদি স্বাভাবিক ভাবেই বললো : তুমি আমায় বৌদি বোলো না প্লিজ।
আমি তো শালা অবাক। বলে কি মেয়েটা।
বৌদি : দেখো আমি যতদূর জানি তুমি আর আমি প্রায় সম বয়সি। তাই বৌদি শুনতে কেমন যেন লাগছে। তুমি আমায় ঐশী বলে ডেকো।
আমি : কিন্তু আপনি অয়নদার বৌ। আমি কিভাবে আপনাকে নাম ধরে ডাকতে পারি সবার সামনে ।
যদিও বৌদি বললে একটা আলাদা অনুভূতি আসে, তাই আমি আরো জোর করে বলতে চাইছিলাম।
বৌদি : তাহলে এক কাজ করো। তোমার দাদা ও বাকি দের সামনে আমায় বৌদি বলে ডেকো কিন্তু যদি আমি এক থাকি তখন ঐশী বলে ডাকতে হবে। ওহ হ্যাঁ , এই আপনি বলা চলবে নাঃ।
আমি : না, আমি আপনাকে নাম ধরে ডাকতে পারি না, আপনি আমার সমবয়সি হলেও দাদার বৌ। সম্পর্কে বড়ো। দাদা ধরে মারবে।
বৌদি : অফো! এই জায়গায়, প্রত্যেকে তাদের নাম দিয়ে একে অপরকে সম্বোধন করে। ঠিক আছে একটা কাজ কর, সবার সামনে বৌদি বলবে । তবে অন্য কোথাও যদি আপনি/ বৌদি বোলো তো আমিই তোমায় মারব – বলেই বৌদি মুচকি মুচকি হাসতে লাগলো |
এতক্ষন আমরা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়েই কথা বলছিলাম। হঠাৎ ঐশী হাই তোলার জন্যে হাত ওপর এ করলো আর আমি লক্ষ্য করলাম ওর শার্ট থাই থেকে আরো উঠছে। এদিকে আমার অবস্থা তো আরো খারাপ হচ্ছে ।
আমি সেই সময় ভিতরে কোনও জাঙ্গিয়া পরে ছিলাম না, তাই যখন বুঝলাম আমার বাড়া তা শক্ত হচ্ছে , আমি তাড়াতাড়ি সেটা লুকানোর জন্য সোফায় গিয়ে বসলাম । কিন্তু কোনো লাভ হলো না। ঐশীর মুখে হাসি বলে দিচ্ছে যে সে ইতিমধ্যে দেখে ফেলেছে ব্যাপার তা।
বৌদি : তুমি যদি নিজেকে হালকা করতে চাও তো ওয়াশরুম ওই দিকে।
আমি : আমি তো শালা শুনে অবাক। যদিও শুনেছি শহর এর মেয়েরা খুব আধুনিক তবে এতো টা হয়, ভাবতেই পারিনি।
বৌদি : অয়নের ওঠার সময় হয়ে গেলো । আমি ভাবছি আজ এই দুধের লোকটা কোথায় গেলো ? একটা কাজ করো নাঃ প্লিজ। আমি বাটি টা এখানে রেখে যাচ্ছি , যদি সে আসে তবে তার কাছ থেকে দুধ টা নিও। আমি এক্ষুনি আসছি।
বলে ঐশী ওর রুমে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দিল। কয়েক সেকেন্ড পরে, তার ঘর থেকে কিছু শব্দ এল, ভাবলাম দাদা হয়তো উঠেছে। এদিক ওদিক দেখছি হঠাৎ বেল বেজে উঠল।
ঐশী রুমের ভেতর থেকে বলল।
ঐশী : অর্ণব ! নিশ্চই দুধওয়ালা এসেছে , প্লিজ ওর থেকে দুধ টা নাও নাঃ।
আমি বাটি নিয়ে দুধের লোকটির কাছ থেকে দুধ নিতে গেলাম।
দুধ দেওয়ার সময় সে জিজ্ঞাসা করল: দাদা আপনি কে? ঐশী ম্যাডাম কে দেখছি না ?
আমি: আমি অয়নদার ভাই, তোমার ঐশী ম্যাডাম ব্যস্ত এখন।
দুধওয়ালা : ঠিক আছে, আমি ভাবলাম অয়ন দা ভিতরে ছিলেন, এ কারণেই। ঠিক আছে কোন সমস্যা নেই। শুধু ঐশী ম্যাডামকে বলবেন যে আমি আগের মাস-এর টাকা চেয়েছি।
আমি: ঠিক আছে।
আমি দরজা বন্ধ করে দুধওয়ালার কথা ভাবতে লাগলাম। কী বোঝাতে চেয়েছিল যখন বললো, “ঠিক আছে, আমি ভাবলাম অয়ন দা ভিতরে ছিলেন, এ কারণেই ”। আমি রান্নাঘরে গিয়ে দুধ রান্নাঘরের টেবিল এ রেখে রান্নাঘর এবং ফ্লাট এর অন্যান্য রুম গুলো দেখছিলাম।
তোমরা যারা সাউথ সিটি গিয়েছো তারা নিশ্চই যেন যে এখানের ফ্ল্যাট গুলো কেমন হয় । খুব বড়ো লিভিং রুম, modular রান্নাঘর, তিনটি বেডরুম ও একটি বারান্দা ছিল যেখানে থেকে শহরের অনেক তাই দেখা যায় । আমি ওদের রুম এর পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় কিছু আওয়াজ পেলাম।
তবে আমি ওদের আলোচনা উপেক্ষা করে আমার ভালোমানুষি বজায় রাখার চেষ্টা করছিলাম ।
মনে পরে গেলো , অয়নের তার কলেজের মেয়েদের সাথে ফ্লার্ট করা এবং তাদের বিছানায় .. আরও কত কি । সেই অয়ন এর কপাল এ এমন সুন্দর বৌ জুটেছে । শালা একেই বলে কপাল।
আমি এসব ভাবছিলাম, লক্ষ্য করিনি কখন ঐশী বেরিয়ে এসেছে রুম থেকে । এখন ঐশী একটা নাইটি পরে ছিল। হয়তো ও আমার সামনে ওর শার্টে ঘুরে বেড়াতে লজ্জা বোধ করছিলো । কিন্তু তবুও, নাইটি ওপর দিয়েই আমি ওর থাই দেখার চেষ্টা করছিলাম ।
হঠাৎ লক্ষ্য করলাম ঐশীর নাইটির একপাশে একটি চেরা ছিল, যা এখন ঘুরে বেড়াতে গিয়ে ওর থাই সামান্য দেখা যাচ্ছে। আমি আড়চোখে ব্যাপার তা উপভোগ করছিলাম কিন্তু মনে হলো ঐশী বুঝতে পেরেছে তাই আমি অন্য দিকে তাকানোর চেষ্টা করতে থাকলাম।
রান্নাঘরে হেঁটে যাওয়ার সময় ঐশী বলল : তো অর্ণব, কেমন লাগলো তোমার দাদার ফ্লাট ?
আমি : ফাটাফাটি বৌদি , আচ্ছা এর ভাড়া কত?
ঐশী : আবার তুমি আমায় বলছো। বলে কপট রাগ দেখালো, যেটা ওর মুখ দেখলেই বোঝা যায়।
আমি: আচ্ছা ঐশী। এবার ঠিক আছে ? বলছিলাম যে তোমাদের এখন এ কি কি সুযোগ সুবিধা আছে ?
ঐশী : অনেক কিছুই আছে। এই যেমন ধরো জিম, বাচ্চাদের জন্যে পার্ক, পুল , কমিউনিটি হল , রেস্তোরাঁ , মল , স্কুল , বার… আরো অনেক কিছু।
আমি : বাহ, সুইমিং পুলও?
ঐশী : হ্যাঁ, কেন? তুমি সাঁতার কাটতে পারো ? আমার ধারণা তুমি জিমে যাও , তাই না ?
আমি: হ্যাঁ, দেখো আমি গ্রাম এ মানুষ হয়েছি তাই আমার কাছে সাঁতার জানা টা কোনো নতুন ব্যাপার নয় তবে পুলে কখনো করিনি।
ঐশী : ঠিক আছে, তাহলে আমি তোমাকে এখানের পুল ইনচার্জের সাথে পরিচয় করিয়ে দেব, তুমি ও পুল এ নামতে পারবে।
তখনই অয়ন তার ঘর থেকে বেরিয়ে এসে আমার দিকে তাকিয়ে বলল: আরে বাবান ! কখন এলি ?
প্রায় ৪ বছর পর দাদাকে দেখলাম । আগেও যেমন ছিল, এখনও তেমন।
আমি : আমি ভালো আছি দাদা। আসলে ট্রেন টা এতো তাড়াতাড়ি চলে আসবে বুঝতে পারিনি। বৌদির ও অনেক আগে ঘুম ভেঙে গেলো আমার জন্যে।
এটা বলে আমি মাথা নিচু করলাম।
অয়ন : আহা, এরকম কিছু না রে , আমি ঐশী কে তোর আসার কথা কালকেই বলেছিলাম। তবে আমার একটু তাড়াতাড়ি ওঠা উচিৎ ছিল আজ।
ঐশী : আর অর্ণব , তুমি এতো কিছু মনে করো না তো। আমার অভ্যাস আছে সকাল এ ওঠার। ওই দুধওয়ালা র জন্যে।
হঠাৎ আমার দুধওয়ালার কথা মনে পড়ল, বললাম : ওহ হ্যাঁ বৌদি , ওই দুধওয়ালা ওর টাকা চাইছিলো।
ঐশী : ওহ ঠিক আছে আমি তাকে পরের দিন দিয়ে দেব আমি প্রায় ভুলেই গিয়েছিলাম।
অয়ন : ওহ হ্যাঁ ঐশী কাল আর তোমায় বলা হয়নি। আমি কাল সকালে বেঙ্গালুরু যাচ্ছি ।
ঐশী : এ আবার নতুন কথা কি। ঠিক আছে। আচ্ছা এবার আমি সবার জন্যে চা করতে যাই ? নাহলে আবার অর্ণব বাড়ি গিয়ে আমায় নাম বদনাম করবে কাকির কাছে। হা-হা-হা
আমি : নাহ বৌদি। আমি মোটেই সেরকম ছেলে নোই।
ঐশী : ওহ, সত্যি ! তাহলে আমাকে একটা সুযোগ দাও মিঃ অর্ণব , আমি এমন চা বানাবো যে তুমি খেয়ে বলবে “ওয়াহ তাজ” হা-হা-হা !
অয়ন : তুমি কি শুধু এ নিয়ে নিজের তারিফ এ করবে নাকি তৈরী করবে ? তাড়াতাড়ি করে দাও, আমাকে অফিসের জন্য রেডি হতে হবে।
ঐশী অয়নের দিকে মুখ করে বলল : হুহঃ , তোমার ভাইয়ের সামনে আমার উপর ঝাঁপিয়ে পড়া বন্ধ কর।
বলেই ঐশী রান্নাঘরের দিকে এগিয়ে গেলো । আমি এখন লক্ষ্য করলাম যে ওর নাইটি এর ওপর অংশ ব্যাকলেস এবং মাত্র দুটি স্ট্রিং ক্রস করে। যার জন্যে আমাকে ঐশীর খালি কাঁধ এবং পিছনে সম্পর্কে খুব স্পষ্ট আইডিয়া দিচ্ছিলো । বুঝলাম ঐশী কোনো ব্রা পরে নেই এখন । আর এটা ভেবেই আমার আবার শক্ত হতে শুরু করলো।
হঠাৎ ঐশী পিছন ফিরে আমার দিকে চোখের পলকে তাকাল।
ঐশী : অয়নও আমার টাং-খিচাই করতে কোনো সুযোগ ছাড়ে নাঃ।
এই বলে ঐশী এক চোখ মেরে আমার দিকে তাকালো। আমি লজ্জায় মাথা নিচু করে ছিলাম। কি ভাগ্গিস দাদা অন্য দিকে মুখ ঘুরিয়ে ছিল তাই কিছু এ বুঝতে পারেনি।
তারপরে দাদা এবং আমি বাড়ির ব্যাপার নিয়ে কথা বলতে ব্যস্ত ছিলাম। ঐশী ট্রেতে তিন কাপ চা নিয়ে এলো । টেবিল এ চা রাখার জন্যে যেই নিচু হয়েছে, আমি স্পষ্ট ঐশীর খাঁজ দেখতে পেলাম। উফফ এসে থেকে কি দেখছি আমি। এই বয়সে কি বানিয়েছে মাইরি।
হয়তো ঐশী ব্যাপার তা বুঝতে পেরেছিলো। তাই হঠাৎ সে আমার মুখের দিকে তাকিয়ে বলল: অর্ণব ! তুমি কি শুধু তাকিয়েই থাকবে নাকি এটা খাওয়ার ইচ্ছেও আছে ?
আমি ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গিয়ে চুপচাপ বসে আছি দেখে ঐশী চা ঢালতে ঢালতে জিজ্ঞেস করলো : খাবে না আমার দুধ দিয়ে তৈরী চা?
আমার অবস্থা তো আরো খারাপ। দাদার সামনে বৌদি কি বলে যাচ্ছে তখন থেকে। আমার অবস্থা অনুমান করে হয়তো ঐশী বললো : আমি বলেছিলাম আমার চা দুধ দিয়ে তৈরি, এটি কোনও কালো চা নয়, তো তুমি কি ভাবলে ?
এবার দাদা হাসতে শুরু করে বলল: ঐশী, প্লিজ ওকে টিস্ করো নাহ। আচ্ছা বাবান, এখন এ কোথায় জব করবি কিছু ভেবেছিস ? কোনো কোম্পানি তে কথা বলেছিস কি ?
আমি : হ্যাঁ দাদা, সেক্টর v এ কিছু কোম্পানি তে কথা হয়েছে আমার।
অয়ন : বাহ্ ভাল, দেখ সেক্টর v এ সাধারণত IT কোম্পানি গুলোর অফিস।তুই masters করে ওখানে কি কাজ করবি ? যাই করিস ভেবে করবি, আমার এখন এ থাকতে তোর কোনো সমস্যা হবে নাহ আশা করি।
ঐশী : এ তো দারুন ব্যাপার। আমাদের কিকি র অফিস ও কলেজ মোরে।
অয়ন: ঐশী , তুমি তাহলে কিকি কে বোলো নাহ বাবান কে একটু হেল্প করতে !
ঐশী কাপ থেকে চায়ে চুমুক দেওয়ার সময় দুষ্টু হাসি নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে বললো
ঐশী : সেটা আমাকে বলে দিতে হবে না অয়ন। আমি অর্ণব কে যতটা সম্ভব সাহায্য করবো ।
আমি বিষয়টি পরিবর্তনের চেষ্টা করে জিজ্ঞাসা করলাম: যাই হোক কিকি টা কে ?
ঐশী : আমার বোন কিকি । ও সেক্টর v তে যব করছে । আমি ওকে তোমার সম্পর্কে বলবো।
আমি:বৌদি অনেক ধন্যবাদ, তোমরা না থাকলে আমার কত সমস্যা হতো।
ঐশী : অর্ণব চিন্তা করো নাহ। আমি সব সাহায্যের দাম সুদে আসলে তুলে নেবো তোমার থেকে। আমি একজন ব্যবসায়ীর মেয়ে , হা-হা-হা! বলে আমার দিকে চোখ মারলো।
অয়ন : ঐশী কেন ওকে বিরক্ত করছো ওসব বলে। যাও নাইটির ওপর কিছু পর আর অর্ণব কে তোমার কথাবার্তা ও জিনিস দেখিয়ে টিজিং বন্ধ কর।
আমি : দাদার মুখে এই কথা শুনে আমি তো কি বলবো ভেবেই পাচ্ছি নাঃ। এতো খোলাখুলি ভাবে কেউ কথা বলতে পারে !!!
ঐশী : ঠিক আছে, ঠিক আছে! বড় দাদা যখন বারণ করছে , হা হা হা !
ঐশী উঠে গিয়ে নিজের রুম এর দিকে এগিয়ে গেলো । তৎক্ষণাৎ কিছু একটা গায়ে জড়িয়ে বেরিয়ে এলো।
অয়ন : আমি উঠছি রে বাবান । লেট হয়ে যাবে এবার। তুই থাক, কিছু সমস্যা হলে তোর বৌদি কে বলিস।
বলে দাদা উঠে নিজের রুমে চলে গেলো।
ঐশী : চলো অর্ণব , তোমায় তোমার রুম টা দেখিয়ে দেই। বলে দাদা যেখানে বসে ছিল সেখান এ গিয়ে ঐশী চুপ করে বসে থাকলো।
ওর মুখ দেখে জিজ্ঞাসা করলাম: কি হয়েছে ঐশী ?
ঐশী : আমরা প্রেম করে বিয়ে করেছি, নিশ্চই জানো ? তোমাদের আর আমার বাপের বাড়ির কারোর এই বিয়ে তে মত ছিল নাহ । অয়ন এর বাড়ি থেকে অনেক দিন পর কেউ এলো । এ কারণেই আমি খুব উত্তেজিত ছিলাম।
আমি : এসব কথা থাক না ঐশী। চলো তো তুমি আমায় আমার রুম তা দেখাও। এই বলে নিজের অজান্তেই ঐশীর হাত ধরে ওকে টেনে তুলতে গেলাম।
ব্যাপার তা বুঝতে পেরে আমি সরে আসতেই ঐশী দুষ্ট হাসি দিয়ে আমার হাত টা ধরে অন্য দিকে নিয়ে গেলো।
ঐশী আমাকে দরজা বন্ধ ১টা রুম এর সামনে নিয়ে গিয়ে বলল : এখন থেকে এটা তোমার ঘর। চিন্তা নেই ঠান্ডা হওয়ার জন্যে attached বাথরুম ও আছে. বলে চোখ মারলো।
লজ্জায় আমার কান অবধি লাল হয়ে গেলো। আমি কথা ঘোরানোর জন্যে বললাম : আচ্ছা এই রুম টা কার ?
ঐশী : ওহ এটা। এটা আসলে কিকির রুম । ও যখন আসে ,এই রুম এই থাকে। আচ্ছা এবার তুমি ফ্রেশ হয়ে নাও। আমি তোমার জন্যে কিছু ব্রেকফাস্ট রেডি করি।
এই বলে ঐশী ওর জিনিস দুলিয়ে কিচেন এর দিকে এগিয়ে গেলো।
এখনো বাকি আছে গল্পের . . . তোমাদের কাছে ভালো ফিডব্যাক পেলে তবেই পরের পর্ব নিয়ে বলবো তোমাদের কে |
পাঠক ও পাঠিকারা, আমি সোহম | আমি আগে অনেক বার চেষ্টা করেছি এই সাইট এ নিজের কিছু লেখার। প্রতিবার লিখবো-লিখবো করে আর হয়ে ওঠা হয়নি, তাই আজ মনস্থির করে নিয়েছিলাম লেখার।

Subscribe Our YouTube Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *