বেঙ্গলি সেক্স চটি – রাতের ট্রেন জার্নি – পর্ব ১

আকাশ। এক মেধাবী কলেজ স্টুডেন্ট। পড়ালেখায় মনোযোগী। ঈদের ছুটিতে মামা বাড়ি এসেছিলো। ঢাকায় তার এক মামা থাকেন, সেখানেই। এখন বাড়ি যাচ্ছে।
মামা কমলাপুর স্টেশন এসে তাকে রেখে যায়। আকাশের বয়স প্রায় বাইশ। রাতের ট্রেন।
সময়ের আগেই নিজ কেবিন খুজে নিয়ে সে বসে গেলো। সাথে চিপস কিনে নিয়েছে। এটা তার খুব পছন্দ। বসে বসে আপন মনে মোবাইলে ফেসবুকিং করছে। পাঁচ দশ মিনিটের মধ্যেই ট্রেন ছেড়ে যাবে। কেবিনের অন্য যাত্রীরা এখনও কেউ আসেনি।
মিনিট পাঁচেক পরেই ৩০/৩২ বছর বয়সী এক লোক ও ২৫/২৬ বছরের এক মহিলা দম্পতি কেবিনে ঢুকলো। দেখে বোঝা যায় তারা বিবাহিত, তবে হয়তো এখনও বাচ্চা কাচ্চা হয়নি। ঢুকে তারা নিজ সিটে বসলো। সাথে ল্যাগেজও আছে।
পুরুষ লোকটি ব্যাগ উঠিয়ে রাখে বউয়ের সাথে বসে পড়লো।
বেশ হাসি খুশি মনে হচ্ছে তাদেরকে। প্রাথমিক সম্বোধন হলো আকাশের সাথে।
তাদেরকে বেশ ভালো লাগলো আকাশের। তাদের প্রফুল্ল সম্পর্ক দেখে। বিশেষ করে ওই মহিলাকে।
মাঝারি হাইট ও মাঝারি গড়নের উজ্জল শ্যামলা এক মহিলা। বেশ সুন্দরীই বলা যায়। ঠোটে হালকা লিপিস্টিট, সাথে মানানসই মেকাপ করেছে, খুব বেশি না। একেবারে মডার্ন না। তবে শরীরের সাথে ফিট করা থ্রি পিস ও ওড়না দিয়ে মাথা ঢাকা। স্তনের আকারটা একটু ফোলা ফোলা। পিছন দিকটাও বেশ। শরীরে পরিমাণ মতো গোস্ত রয়েছে।
আকাশ পড়ালেখায় মনোযোগী ও ভদ্র হওয়ার কারণে কখনো মেয়েদেরকে কাছে পাওয়ার সুযোগ হয়নি। হ্যাঁ, মেয়ে ফ্রেন্ড আছে। তবে জাস্ট ফ্রেন্ড। কারো সাথে প্রেম হয়ে ওঠেনি। তাই মেয়ে শরীরের প্রতি তার আকর্ষণ খুব গভীর। তার পছন্দসই কোনো মেয়ে সে এখনও পায়নি। ফিট শরীরের মেয়ে তার খুব পছন্দ। এমন কাউকে দেখতে পেলে খুব আকর্ষিত হয়। নতুন দম্পতির বউটা তেমনই। প্রথম দেখাতেই তার শরীর আকাশকে খুব করে টেনে নিয়েছে।
ইতোমধ্যে ট্রেন ছেড়ে দিয়েছে। হয়তো আর কেউ উঠবে না কেবিনে।
কথায় কথায় আকাশের সাথে পরিচয় হয়ে যায়। দম্পতি ঢাকায় থাকে গ্রামে যাবে। ছুটি এখনও বেশ কয়েকদিন তাই বাকিটুকু গ্রামে কাটাবে। টুকটাক কথা হতে হতে ভালোই জমে উঠে তাদের সাথে আকাশের। বউটা খুব ফ্রী মাইন্ডের।
সাথে তার স্বামীও কথা বলছে দুই একটা।
আকাশ বয়সে তাদের ছোট বলে তারা কোনো সঙ্কোচ করছে না।
কথায় কথায় আকাশ ভাবী আর ভাইয়া বলে সম্বোধন করছে। ভাবী টা হাসলে খুব সুন্দর দেখাচ্ছে। সে কথা আকাশ বলেও ফেললো।
আকাশঃ ভাবী! আপনি কিন্তু খুব সুন্দর, ভাইয়ার ভাগ্যটা ভালোই।
ভাবীঃ (নাম আশা) সত্যি?
আকাশঃ হ্যাঁ ভাবী, অনেক।
আশাঃ সুন্দর না ছাই। তোমার ভাইয়া তো আমাকে পছন্দই করে না।
ভাইয়াঃ (নাম সজিব) কে বলেছে হ্যাঁ? আমার বউটাকে আমি কত্ত ভালোবাসি। বলেই একহাতে তাকে জরিয়ে ধরলো আশাকে।
আশাঃ ভালোবাসলে বউকে আদরও করতে হয়, তুমিতো আদরই করো না আমাকে!
আকাশ একটু হাসলো,
আকাশঃ ভাবী! আপনাদের বাচ্চা কাচ্চা?
আশাঃ এখনই না, আরো কিছুদিন পর।
সজিবঃ তোমার ভাবী দেখতে অসুন্দর হয়ে যাবে বলে বাচ্চা নিতে চায় না।
আশাঃ যাহ, কেবল তো বিয়ে করলাম, একটু মজা করবো না?
সজিবঃ তোমার তো মজা শেষই হবে না!
আশাঃ দেখেছো আকাশ! বলেছিলাম না! তোমার ভাইয়া আমাকে পছন্দ করে না। ওর বাচ্চাই চায় শুধু আমার কাছে, আর কিছু না।
আকাশঃ ভাইয়া! সত্যি তাই?
সজিবঃ নাহ! মিথ্যা কথা।
আশাঃ সত্যি কথা।
আকাশঃ ভাইয়া! ভাবীকে প্রমাণ দেখিয়ে দেন তো।
সজিবঃ দিচ্ছি। বলেই আশার মুখ টেনে নিয়ে ঠোটটা মুখে ঢুকিয়ে নিলো! প্রায় দুই মিনিট রাখলো।
আশাঃ উমমমম,, করে নিজেকে ছাড়িয়ে নিলো। আর কিছুক্ষণ শাষনের চোখে সজিবের দিকে তাকিয়ে থাকলো।
সজিব মুচকি মুচকি হাসছে।
আবারও আশার দিকে এগিয়ে আসলো সজিব, এবার আশা হাত দিয়ে তাকে বাধা দিতে চাইলো। কিন্তু আশাও ব্যাপারটা উপভোগ করছিলো। তাই আবারও দুইজনের ঠোট এক হয়ে গেলো। এবার অনেক্ষণ চলতে থাকলো
এদিকে আকাশ বেশ উপভোগ করছিলো তাদেরকে। সামনাসামনি কখনও সে এভাবে কাউকে দেখেনি। তাই ভিতরে ভিতরে গরম হয়ে উঠলো।
আশার শরীর প্রথমে সোজা থাকলেও এখন সজিবের ওপর সে এলিয়ে পরেছে। সজিবও তাকে ভালো ভাবে জড়িয়ে ধরেছে। কেবিনে লাইট আগেই বন্ধ ছিলো। আলো তেমন নাই।
কিছুক্ষণ পর তাদের ঠোট আলাদা হলো, কিন্তু এখনো জড়িয়ে রেখেছে একজন আরেকজনকে।
সজিবঃ দেখলে তো আকাশ!
আকাশঃ হ্যাঁ ভাইয়া! ফ্যান্টাস্টিক।
আশা একটু লজ্জা পেলো। এখন সজিবের হাত আশার শরীরে ঘুরছে। আশা একটু লজ্জা পেলেও এক বাইশ বছরের যুবকের সামনে সজিবের আদর ভালোই লাগছিলো তার। মনে মনে সে ভালোই উত্তেজিত হয়ে উঠতে লাগলো।
সেভাবে জরিয়ে রেখেই আবারও এইরকম টুকটাক আলাপ চলতে থাকলো। আকাশ হাতে মোবাইল নিয়ে আছে, নামেই শুধু এটা ওটা টাচ করছে। মনোযোগ পুরাটা দম্পতির মধ্যে। মুখে স্বাভাবিক হাসি রেখে সে আলাপ চালিয়ে যেতে লাগলো।
বেশ সময় পার হয়েছে, ততক্ষণে সজিব ও আশার সঙ্কোচ পুরাপুরি কেটে গেছে। কেবিন অন্ধকার হওয়ায় ওড়না ফেলে দিয়েছে আগেই। এখন সজিবের হাত আশার জামার ভিতরে। আশা চোখ আধ বোজা করে সজিবের আদর খাচ্ছে। এখন আর আকাশের সাথে তেমন কথা হচ্ছে না।
আকাশও তাদেরকে ফ্রী করে দিতে একটু ঘুরে বসলো, আর জানালা দিয়ে বাইরে তাকালো। সজিব সেদিকে না তাকালেও আশা তাকিয়ে দেখলো। আকাশ মাথা ঘুরিয়ে একবার তাকালে আশার সাথে চোখাচোখি হলো, আশা মুচকি হাসলো। জবাবে আকাশও হেসে আবার ঘুরে গেলো। আশা বুঝে গেল আকাশের তরফ থেকে কোনো সমস্যা নেই তাই সে সজিবের কানে কানে কিছু বললে সজিবও হাসলো। এবার আশা সজিবের ঠোটে পুরাপুরি ভাবে নিজের ঠোট ডুবিয়ে দিলো।
সজিবও নতুন উদ্দমে আশার জামাটা একটু একটু করে উঠাতে লাগলো। কিছুক্ষণের মধ্যে পুরা জামাটাই খুলে ফেললো।
আবারও আকাশ মাথা ঘুরিয়ে একবার দেখলো, আশার সাথে চোখাচোখি হলো। এবারও আশা মুচকি হেসে তাকে দেখিয়েই সজিবের কোলে ঢুকে গেলো। আকাশ এবার চোখ ফেরাতে গিয়েও পারলো না। তার সামনে আশা শুধু ব্রা আর পায়জামা পরে সজিবের সাথে চরম আনন্দে ব্যস্ত। সে মুগ্ধ চোখে তাকিয়েই থাকলো।
হঠাৎ সজিবের সাথে আকাশের চোখাচোখি হতেই আকাশ একটু ইতস্থতায় পরে গেলো। কিন্তু সজিব মুচকি হেসে আকাশকে চোখের ভ্রূ নাচিয়ে ইশারা করলো। আকাশও হাতের ইশারায় বুঝিয়ে দিলো।
এখন আর আকাশের কোনো সঙ্কোচ নেই। সে তাকিয়ে থাকলো তাদের দিকে। এদিকে আশার শরীর দেখে সে ঘেমে উঠতে শুরু করেছে। আকাশ এর আগে কোনো মেয়ের শরীর দেখেনি। মুগ্ধ চোখে দেখতে থাকলো তাদের দুইজনের ভালোবাসা।
এদিকে সজিব হাত দিয়ে আশার পায়জামায় ফিতা খুলে নামিয়ে দিয়েছে পুরাপুরি। আশা আকাশের দিকে তাকিয়ে বললোঃ
আশাঃ কি ব্যাপার আকাশ। তোমার কোনো সমস্যা হচ্ছে?
আকাশঃ না ভাবী, কোনো সমস্যা নাই।
আশাঃ আমরা তোমার সামনে এমন করছি তুমি কিছু মনে করছো না তো?
আকাশঃ ছি ছি ভাবী মনে করবো কেন! আমি বরং উপভোগ করছি। কিন্তু.. আপনারা হয়তো আমার জন্য অসুবিধা বোধ করছেন।
আশাঃ না না, আমার কোনো সমস্যা নাই। তুমি কেবিনের দরজাটা ভালো ভাবে লাগিয়ে এসে বসে থাকো।
আকাশঃ আচ্ছা ভাবী। বলে দরজাটা ভালো করে লাগিয়ে এসে বসলো। আগেই টিকেট মাস্টার এসে টিকেট চেক করে গেছে।
আশাঃ তুমিও কিন্তু তোমার ভালো লাগে এমন কিছু করতে চাইলে করতে পারো। লজ্জা করো না। তোমার বয়স তো বুঝিই।
আকাশঃ (একটু হেসে) ..আচ্ছা ভাবী।
সজিব এতোক্ষন তাদের কথা শুনছিলো, এবার আশার ঠোটে কামড় দিয়ে ফিসফিস করে বললো!
“কিরে সোনা বউ! ওর সামনে খুব মজা পাচ্ছো, তাই না?
“এহহ শুধু আমিই? তুমিও তো খুব পাচ্ছো, তাই তো উত্তেজিত হয়ে আমাকে টিপছো কামড়াচ্ছো।
সজিবঃ আকাশ! তুমি লজ্জা করো না, তোমার ভাবী খুব সেক্সি। ও কিন্তু তোমার তাকিয়ে থাকা উপভোগ করছে। আমারও সমস্যা নাই, তুমি দেখতে পারো।
আকাশ লজ্জা পেয়ে মাথা নিচু করলো।
আর কথা বাড়লো না। এবার আশা নিজেই পিঠে হাত দিয়ে ব্রা টা খুলে ফেললো। আর সজিব সেখানে নাক মুখ ঘসতে শুরু করলো।
আকাশ আশার স্তনের দিকে বড় বড় চোখে তাকিয়ে থাকলো। আশা সেটা দেখে মুচকি হাসলো। আরো কিছুক্ষন আকাশকে দেখতে দিয়ে সজিবের কোলে উঠে পরলো।
সজিব পালা করে দুই দুধ চুসতে কামড়াতে লাগলো।
আশার মৃদু উহ.. ইশশ.. আওয়াজ আকাশের কানে আসতে লাগলো। আশা এবার ঝটপট পাকা হাতে সজিবের শার্ট খুলে ফেললো। একটানে প্যান্টের জিপার খুলে দিলো। সজিব এক হাতে কসরত করে প্যান্ট নিচে নামিয়ে দিলো। তারপর আশার প্যান্টিও নামিয়ে দিলো।
আকাশের বুকে যেন হাতুড়ি পেটা শুরু হয়ে গেছে। সে পিছন থেকে আশার মসৃণ পিঠ, সরু কোমর, ভরাট পাছা, মাংশল উরু যেন চোখ দিয়ে গিলতে থাকলো। প্রথম কোনো যুবতি মেয়ের শরীর তার চোখের সামনে। তার পছন্দসই শরীর।
আশার একেকটা অঙ্গ যেন তার শরীরকে কাঁপিয়ে কাঁপিয়ে তুলছে। পুরা নগ্ন আশা চোখ বুজে সজিবের দেওয়া সুখের যন্ত্রনা সহ্য করছে। মুখ দিয়ে আহ… ইশশ … উম্মম… শব্দ সেটাই জানান দিচ্ছে। সেই সুখকর আওয়াজ যেন আরো আগুন ধরিয়ে দিচ্ছে আকাশ সজিব দুইজনকেই।
এভাবেই চলতে থাকলো অনেক্ষণ। বোঝাই যাচ্ছিলো নতুন দম্পতি হওয়ায় তারা পরষ্পরকে খুব উপভোগ করছে।
সজিব আশার ঠোট চুসতে চুসতে তার পাছা খামচে খামচে ধরছে। কখনও ঠোট ছেড়ে সুন্দর সুন্দর দুধ দুইটাতে মুখ ডুবিয়ে দিচ্ছে। কামড়ে খাচ্ছে। সেই সাথে আশার মুখ থেকে হাল্কা গোঙ্গানি বের হয়ে আসছে।
উম্মমম.. আহহ করে সে সুখের আওয়াজ করছে। হয়তো জোরেই আওয়াজ করছে কিন্তু ট্রেনের শব্দে তা আস্তে শোনা যাচ্ছে।
হঠাৎ যেন আশার মনে হলো আকাশের কথা..।
ঘুরে তাকালো আকাশের দিকে। চোখাচোখি হতেই আকাশ একটু অপ্রস্তুত হয়ে পরলো। কিন্তু চোখ ফিরালো না আশার শরীর থেকে। আকাশ যেন ছুটে গিয়ে ধরতে চাইছে আশার সুগঠিত শরীরটা। খুবলে খেতে ইচ্ছা করছে। স্তন দুইটা এতো সুন্দর যে, জিবে পানি এসে যাচ্ছে লোভে। কামড়ে খেয়ে নিতে ইচ্ছা করছে। সুন্দর লদলদে পাছা টা দেখলে তার পুরুষাঙ্গ ফেটে বের হতে চাচ্ছে।
কিন্তু… কোন এক বাধার কারণে সে পারছে না।
আশা তার অবস্থা বুঝে একটু হাসলো, মনে দুষ্টুমিও আসছে।
আশাঃ আকাশ! তোমার ওইটা কে বের করে নাও।
অনেক্ষণ পর প্রথমে আশা কথা বলে উঠলো।
আকাশঃ কোনটা ভাবী?
আশাঃ আরে ওইযে ওইটা। হাত দিয়ে দেখিয়ে দিলো।
বুঝে গেছে আকাশ ভাবী কোনটার কথা বলছে। সে সজিবের দিকে দেখলো, সে মুচকি হাসছে।
আশাঃ বের করে একটু বাতাস লাগাও, বেচারা কষ্ট পাচ্ছে তো।
বলে সে সজিবের কোল থেকে নিচে নেমে গেলো। সজিবের ছোট প্যান্ট নামিয়ে দিয়ে তার পুরুষাঙ্গকে হাত দিয়ে আদর করতে লাগলো। একটু পর তাতে কয়েকটা চুমু দিয়ে মুখে নিয়ে নিলো। সজিবের মুখ থেকে আস্তে করে আহহহ…. শব্দ বের হয়ে আসলো।
এদিকে আকাশের একেবারে কাছে চলে এসেছে আশা। আশার নগ্ন শরীরটা তার একেবারে হাতের কাছে। হাত বাড়ালেই ধরতে পারবে। কোনো এক অজানা বাধা তাকে থামিয়ে দিচ্ছে। কখনও সে কোনো মেয়েকে ছুঁয়ে দেখেনি। তার হাত পা কাঁপতে লাগলো। তার থেকে সামান্য দুরেই আশার সুন্দর পাছা টা। মন দিয়ে সে সজিবের পুরুষাঙ্গ চুষে যাচ্ছে।
একটু ছুয়ে দেখার লোভটা আকাশ কিছুতেই সামলাতে পারছে না।
একহাত তার নিজের পুরুষাঙ্গটি জাঙ্গিয়ার ওপর দিয়ে ধরে আছে।
আরেক হাত খালি।
সে আস্তে আস্তে হাত বাড়ালো আশার দিকে….।

Subscribe Our YouTube Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *