সুন্দরী মামী ও খালারা পর্ব-১

আমি এখানকার নিয়মিত রিডার। সময় এর অভাবে আমার নিজের গল্পগুলো এতদিন শেয়ার করতে পারিনি। এখন থেকে আশা করছি নিয়মিতভাবে আমার গল্প শেয়ার করবো।
ধৈর্য ধরে পড়বেন একটু সময় দিয়ে গুছিয়ে বলবো সব।
——————————-
আমার বয়স ২৪। কম্পিউটার সাইন্স নিয়ে বি.এস.সি করছি।উচ্চতা ৬ ফিট। কেম্পাসে অনেকের কামনার পাত্র হয়েছি, সেই গল্প অন্যদিন হবে। আজ যার সাথে গল্প তার কথা না বললেই নয়। আমার প্রান প্রিয় মামী। দেখতে যেনো পরির মতো উচ্চতা ৫.৬” হবে, গায়ের রঙ দুধে আলতা চখ গুলো যেনো সৃষ্টিকর্তা নিজে দিয়েছেন, চাহনিতে কামনা ভরপুর, টিকলো নাক মুক্তার মত দাত, ভারি ঠোট আর থুতনিতে ছোট একটা তিল,তিলটা যেকাউকে আকৃষ্ট করবে। আমার মামারা ৫ ভাই ৪ বোন। আমার মা সবার বড়। মামারা সবাই এক বাড়িতেই থাকে কিন্তু ঘড় আলাদা আলাদা। মামারা সবাই চাকরির জন্য দূরে থাকেন কয়েক মাস পর পর বাড়িতে আসেন। এখন মূল গল্পে আসি।
তখন আমি কলেজে ফাইনাল দিয়েছি ভার্সিটি ভর্তি অনেক দেরি তাই হাতে অফুরন্ত সময়। ৩ মাস হয়েছে আমার মেজো মামার বিয়ের। পরীক্ষার চাপে মামীর সাথে তখন ঠিক ভাবে কথাউ হয়নি তবে তার ৩৬ সাইজের মাই আর বিশাল পাছার কথা আমি পরিক্ষার মাঝেউ ভুলতে পারিনি। মামীর ভরাট পাছা দেখলে যেকোন পুরুষ চখ ফেরাতে পারবেনা। বিয়ের ১০ দিন পর মামা চলেযায় ঢাকায় এখনো আসতে পারেনি কাজের চাপে।
একদিন সকালে মা বললো “তর নানুকে দেখে আয় আর কিছুদিন ঘুরে আয় ভালো লাগবে”
এই সুযোগ হাতছাড়া করতে চাইলামনা তাই সাথে সাথে রাজি হয়েগেলাম। মা নানুর জন্য অনেক কিছু দিতে চাইলো আমি শুধো উনার ঔষধ গুলো নিয়ে বিকেলে বেড়িয়ে পরলাম। ৪০ মিনিটের পথ তাই সন্ধার আগেই পৌঁছে গেলাম। যাউয়ার সময় মামীর জন্য একটা গিফট কিনে নিলাম। এক বক্স ট্রিট চকলেট আর একটা গোলাপ।
বাড়ি পৌঁছে দেখলাম নানু নামাজ পরছে, মামী উনার ঘরে। আগেই বলে নিচ্ছি ইনি আমার মেজো মামার বউ। নানা মারা যাউয়ার পরথেকে নানু এই মামার সাথেই থাকে। গ্রামের বাড়ি তাই হাফবিল্ডিং, বাথরোম বাহিরে। ঘরে বারান্দার সাথে মোখোমোখি দুই রোম এর একটাতে মামী থাকে অন্যটা গেস্ট রোম, নানু থাকে মাষ্টার ব্যাডরোমে এই রোমের সাথেই রান্নাঘর।
নানু নামাজ পড়ছে দেখে আমি মামীর রোমে উকি দিলাম। মামী শুয়ে আছে সোজা হয়ে বুকের উপর উরনা না থাকায় দুধ গলো দেখা যাচ্ছে এভাবে আগে দেখিনি মামীকে। বয়সে আমার চেয়ে ৩ বছরের বড়। টাটকা যৌবন দুধ গুলো দেখেই বোঝাযাচ্ছে খারা খারা, জামার নিচে ব্রা পড়েছে হয়তো তবোও নিপল গুলো উঁচু হয়ে আছে। ছুট্ট একটা কাশি দিয়ে রুমে ঢুকে গেলাম। মামী কিছুটা অপ্রস্তুত হয়েউ সামলে নিলো। মামী বেশ আধুনিকা তা উনার পরনের হালকা মিষ্টি কালারের সেলোয়ার দেখলেই বোঝাযায়। জামাটা একটু টাইট তাই দুধ গুলো যেনো কেটে বেড়িয়ে আস্তে চাইছে। আমার চখ আটকে গেলো মামীর দুধের খাঁজে। মামীর কথায় সম্বি ফিরে পেলাম।
“আরে অলিক! কেমন আছেন?”
কিছুটা হকচকিয়ে উঠলাম আমি “ভালো ছিলাম কিন্তু এখন নেই”
“কেন আমিকী ডিস্টার্ব করেদিলাম নাকী”
বলেই মামী ঠোঁটের কোনে দুষ্টু হাসি দিলো।
“ঠিক তা নয় কিন্তু তুমি আমাকে আপনি করে বলছো তাই ভালো নেই”
“ওমা রাগ করলে নাকি! মজা করে বলেছি”
বুঝতে পাড়লাম মামী পাকা খেলোয়াড় তাই দেখে পা ফেলতে হবে।
“তুমার জন্য একটা গিফট এনেছিলাম আর দিবোনা।”
“সে কি! ঠিক আছে তুমি করেই বলবো। রাগ করোনা। ”
ফুল দেয়াটা ঠিক হবে কিনা ভাবছিলাম তখনি মামী বলে উঠলো “ফুল কার জন্য? ”
“তুমার জন্য। মামা তো সময় ই পায়না তোমাকে ফুল দেয়ার তাই ভাবলাম আমিই দেই। ”
মামার কথা বলতে মামী কিছুটা উদাসীন হয়েগেলো।
” ঠিক বলেছ তুমার মামার আমার জন্য সময় একটু কম।”
মামীর দিকে তাকিয়ে বুকের ভেতরটা মোচড় দিয়ে উঠলো, এমন সুন্দরী বউ রেখে কিভাবে থাকে মামা।
” কি দেখছো অমন করে?”
“ভাবছি মামা কিভাবে পারে তুমার মতো সুন্দরী বউ রেখে থাকতে!!”
“তুমার কষ্ট হচ্ছে বুঝি মামীর জন্য??”
মামী আবার মুখ টিপে হাসলো। সুযোগ বুঝে আমিও নো বলে বাউন্ডারি মারলাম “তাইতো মামার অভাব পূরণ করতে চলে আসলাম আমার সুন্দরী মামীর কাছে।”
“হয়েছে হয়েছে আর মামীকে লাইন মারতে হবেনা এখন ফ্রেশ হয়ে আসো নাস্তা দিচ্ছি। ”
“এই নাউ তুমার চকোলেট ”
“ধন্যবাদ! জানো অলিক আমাকে কেউ কখনো এভাবে ফুল দেয়নি তুমার মামও না।”
“কি বলছো তুমার মতো সুন্দরী রমণী ফুল উপহার পায়নি এটাউ কি আমার বিশ্বাস করতে হবে। আর তুমি যা….” এটুকো বলে আমি থেমে গেলাম। মামীও কম যায়না ” আমি কী?”
“না থাক বলবোনা তুমি রাগ করবে”
“আরে বলো রাগ কেন করবো!”
প্রশংসা শুনার জন্য মাগি মুখিয়ে আছে। “তুমি খুব সেক্সি ” একটু লজ্জার অভিনয় করলাম। মামীও যেনো লজ্জা পেয়ে বিছানা থেকে উঠেপরলো। রান্নাঘরে যেতে যেতে বললো ” ফ্রেশ হয়ে আসো।” আমি উঠেপড়লাম নানুর ঘরে গিয়ে দেখি নানুর নামাজ শেষ। নানুকে সালাম করে কেমন আছে শরির কেমন এগুলো খুজ খবর নিলাম।
ফ্রেস হয়ে নাস্তা করে নিলাম। বাকী মামীদের সাথে দেখা করে আসলাম। বলেরাখা ভালো আমার সব খালাদের বিয়ে হয়েগিয়েছে তাই এই ঘরে শুধু মামী আর নানু। নানু ঘুমের ঔষধ খেয়ে সন্ধার পরই শুয়েপরে। কিছুক্ষন বাহিরে ঘুরো ঘুরি করে ঘড়ে চলে আসলাম। রাতের খাবার খেয়ে নানু শুয়ে পরলো। আমি মামিকে বললাম চলো বাহিরে একটু বসি। এতখনে মামির পাছা আর দুধ দেখে পেন্ট এর ভেতর আমার ধন বাবাজী টন টন করছে। খাউয়ার সময় মামী যখন তরকারী দিচ্ছিলো একটু হেলে থাকায় দুধে খাজটা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিলো তা দেখে আমার অবস্থা খারাপ। নানু ঘুমিয়ে পরলো আমি আর মামী বাহিরে মাচায় বসলাম। মামী আমার সাথে শরির ঘেসে বসেছে। মামীর শরিরের উত্তাপ অনুভব করছি আমি। হঠাৎ কি মনে করে মামী আমার হাতে হাত রেখে আবার সরিয়ে নিলো।
“ইচ্ছে করলে তুমি আমার হাত ধরতে পারো।”
মামী কিছুটা সাহস দেখিয়ে হাত ধরলো অন্ধকার। আশেপাশে কোন মানুষ নেই, আমি বুঝতে পারলাম মামী কাঁদছে।
“কাঁদছ কেনো মামী”
তাড়াতাড়ি চখ মুছে “কই কাঁদবো কেনো!”
“তুমি কিন্তু আমাকে বন্ধু মনে করতে পারো ”
চলবে…….
ভালো লাগলে কমেন্ট করে উৎসাহ দিবেন।

Subscribe Our YouTube Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *