বেঙ্গলি সেক্স চটি – বৌন – পর্ব ৫

ফারজানা দেখি আমার খাটে এসে বসলো। আর বললো ভাইয়া এসব তুমি এখন কোথায় পেলে? আমি বললাম তোর দেখতে ইচ্ছে করছে তাই ইন্টারনেট থেকে নিলাম।
– ধর বোন তুই দেখ। আমি টিভি দেখি।
– আচ্ছা ভাইয়া মোবাইল টা আমাকে দাও।
– ধর নে।
– এই ভাইয়া টিভি বন্ধ করে দাওৃ।
– কেন রে?
– ভাইয়া তুমি সহ দেখবে আসো।
ফারজানা আর আমি পাশাপাশি শুয়ে ভিডিও টা দেখতে লাগলাম। ফারজানা কিছুক্ষণ দেখার পর বলে এসব জিনিষ আমি দেখবো না। আমি তার থেকে মোবাইল টা নিয়ে নিতে চাইলে সে বলে দাড়াও ভাইয়া আর একটু দেখি। ফারজানা দেখছিলো আর হাসছিলো। আমাকে বলে দেখছো ভাইয়া এরা কি শুরু করছে? আমি তাকে কথা না বলে দেখতে বললাম।
– ফারজানা।
– জ্বী ভাইয়া।
– তোর ভিডিও টা দেখতে কেমন লাগছে?
– ভাল লাগছে ভাইয়া।
– বোন তোকে একটা কথা বলবো রাখবি?
– জ্বী ভাইয়া, তুমি বল রাখবোনা কেন।
– তোকে একটা কিস করবো?
ফারজানা একটু চুপ থেকে বললো, আচ্ছা ভাইয়া করো। আমি ফারজানার ঠোঁটে একটা কিস দিলাম। ফারজানা হাসতে লাগলো। সে ভিডিও টা শেষ করে বললো। ভাইয়া ঘুমাই যাবো, ঘুম আসছে।
ফারজানা উঠে দাঁড়ানোর সাথে সাথে আমি তার হাত টা ধরে ফেললাম।
– ফারজানা তোকে একটু বুকে জড়াই ধরি?
– হাহাহা, আচ্ছা ভাইয়া ধরো।
আমি ফারজানা কে বুকে জড়াই ধরে তার ঠোঁটে কিস করলাম। ফারজানাও আমাকে শক্ত করে জড়াই ধরে আছে।
আমি ফারজানার দুধে হাত রাখলে ফারজানা আমার দিকে তাকিয়ে হাসি দিল। আমি আস্তে আস্তে ফারজানার দুধ টিপছি, আর তার ঠোঁটে ঘাড়ে কিস দিচ্ছি। ফারজানাও আমাকে কিস দিচ্ছে। কিছুক্ষন পর ফারজানা আমাকে সরিয়ে দিয়ে বলে, অনেক করছো ভাইয়া যাও ঘুমাও। কাল সকালে উঠতে হবে।
পরদিন সকালে ফারজানা উঠে আমাকে ডেকে দিল। দুজন ফ্রেশ হয়ে নাশতা করে হোটেল থেকে বের হয়ে গেলাম। কাউন্টারে গিয়ে অনেকক্ষন বসে আছি। আমাদের মত অনেকে বসে আছে। কাউন্টার কতৃপক্ষ একবার বলছে গাড়ী চলবেনা, আরেক বার বলছে একটু পর চলবে।
তখন জানতে পারলাম যে অবরোধ ডেকেছে সকাল বেলা। কোন গাড়ী নাকি চলতে দিচ্ছে না। এক নেতা কে অপহরন করা হয়ছে। তাকে ফিরে না পাওয়া অবধি নাকি অবরোধ চলবে।
ফারজানা কে বললাম গাড়ী তো চলছেনা, কি করা যায়। ফারজানা বললো আবার হোটেলে চলে যায়। আমি বললাম দেখ বোন এখান থেকে দূরে অনেক সুন্দর কয়েকটা জায়গা আছে। সেখান থেকে ঘুরে আসবি নাকি? ফারজানা আবারো হাসি দিল। বললো ভাইয়া তুমি না একদম, চল সেখান থেকে ঘুরে আসি।
কাউন্টার থেকে বের হয়ে ফারজানা আবার একটা দোকানে ঢুকে কিসব কেনাকাটা করে নিল। তারপর একটা সিএনজি নিয়ে জায়গা টার উদ্দেশ্য যাওয়া শুরু করলাম। পাহাড়ী সৌন্দর্য্য দেখে ফারজানা খুব খুশী, সে খুশীতে বারবার আমাকে জড়িয়ে ধরছে।
প্রায় ঘন্টা দুয়েক পর আমরা সে জায়গা টাতে পৌঁছে গেলাম। এরপর আমরা আবার রুম খুজতে লাগলাম। এখানে হোটেল নেই। যা আছে সব আদিবাসীদের ঘরের মত। মানুষ জন এখানে কমে আসছে, প্রায় চলে গেছে। এখানে আবার বৃষ্টি লেগে আছে।
বৃষ্টির সময় পাহাড় সবচেয়ে সুন্দর লাগে। খোদার কি অপরুপ সৃষ্টি তা সত্যিকার ভাবে অনুভব করা যায়।
কয়েক জায়গাই কথা বলে দেখলাম সবাই খুব দাম বলছে। তাদের কথা এখানে দাম দিয়ে নিতে হবে। দামের সাথে ঘর গুলা সুন্দর লাগছেনা। খুজতে খুজতে একটু পাহাড়ের উপর গিয়ে দেখি খুব সুন্দর কয়েকটা ঘর। ঘর গুলো এত সুন্দর লাগছে টাকা বেশী নিলেও সেখানে থাকার ইচ্ছে হল। আমরা ঘর গুলার কাছে যেতেই দেখলাম একটা ফ্যামিলি নিচে নেমে আসছে। আর আমাদের বললো তারা নাকি রুম পাই নাই। তবুও আমি সেখানে গেলাম, ঘরের মালিক বললো আপনারা যদি একটা রুম নেন তাইলে দেয়া যাবে। একটু আগে তাদের দি নাই কারন এখানে দুইটা ঘরে বৃষ্টির পানি পড়তেছে এগুলা ঠিক করতে হবে। একটা ঘর ঠিক আছে সেটা আমরা সাথে সাথে নিয়ে নিলাম।
ঘর গুলো খুব সুন্দর, সামনে বাগান বাইরে গেইট আছে। মোটামুটি সেইফ। এর নিছে মালিকের ঘর। খাবার তার থেকে নেওয়ার ব্যবস্থা আছে। তিনি খুব ভাল মানুষ,সে আমাদের ঘর বুঝিয়ে দিয়ে চলে গেল।
আজ চারদিন পর আব্বারা ইন্ডিয়া থেকে কল দিছে। আম্মা প্রথমে আমাকে বললো সেদিন নাকি আপাকে বলতে মনে ছিলনা। আমাকে জিজ্ঞাসা করলো কোথায়? আমি বললাম আম্মা চিন্তা করতে হবেনা, আমি আর ফারজানা বাসাই আছি। আমার ভার্সিটি খুলতে দেরী আছে। তাই তাদের নিশ্চিন্ত থাকতে বললাম। এরপর ফারজানার সাথে কথা বলে রেখে দিল। ফারজানা আম্মার সাথে কথা বলার সময় ভয় পাচ্ছিলো তা নিয়ে হাসাহাসি করলাম।
এরপর আমি আর ফারজানা ফ্রেশ হয়ে নিলাম। সে দুপুরের খাবার দিয়ে গেল। খাবার খেয়ে দুজনে একটু বিশ্রাম নিয়ে ঘুরে এলাম। ফারজানা তো মহাখুশী। এরপর সন্ধ্যা হতেই রুমের মালিক বলে গেল তাড়াতাড়ি খাবার টা নিতে যেতে। এরা নাকি তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে যায়।
– ভাইয়া?
– জ্বী কিছু বলবি বোন?
– তোমার মোবাইল টা আমাকে দাও তো।
– কেন?
– উফফ ভাইয়া তুমি বেশী কথা বল, বুঝনা কেন? ভিডিও দেখবো।
– হাহাহা, তাই নাকি রে বোন ধর নে।
– ভাইয়া তুমি যাও ঘুরো বাইরে, আর রাতের খাবার নিয়ে আসিও।
আমি ঘরের মালিকের বাসাই গিয়ে তাদের সাথে অনেকক্ষন কথা বললাম। তাদের সম্পর্কে অনেক কিছু জানলাম। এরপর খাবার নিয়ে এসে গেইট টা বন্ধ করে ফারজানা কে ডাকলাম। ফারজানা আমাকে বাইরে থাকতে বললো। বেশ কিছুক্ষন পর সে দরজা খুলে দিল। আমি দেখলাম ফারজানা লাল শাড়ী টা পড়ে একদম সুন্দর করে সেজে বসে আছে।
– ভাইয়া আমাকে কেমন লাগছে সেটা তো বললে না?
– তোকে অনেক বেশী সুন্দর লাগছে বোন। তুই না বলছিলি শাড়ী টা আমার বৌ এর জন্য রেখে দিতে?
– ভাইয়া এখানে যেহেতু আমাকে সবাই তোমার বৌ মনে করছে তাই এটা আমি পরতেই পারি।
– কিন্তুু বোন তুই তো আমার বৌ না।
– আমাকে তোমার বৌ করে নাওনা ভাইয়া।
– কিভাবে নিব রে? তুই যে আমার বোন।
– তাতে কি ভাইয়া। এখানে যতদিন আছি ততদিন তোমার বৌ থাকবো আর কি।
তখন আমি ফারজানা কে বললাম চল বোন দুজনে একটা কাবিননামা বানিয়ে নি। তারপর তোকে বৌ করে নিব। ফারজানা এটা শুনে হাসতেই লাগলো আর বলে ভাইয়া আমাকে দেনমোহর কত দিবে?
সে ব্যাগ থেকে কাগজ আর কলম এনে আমাকে দিল। আমি নিকাহনামার মত করে লেখা শুরু করলাম। ফারজানা আর আমার নাম ঠিকানা সহ আরো কিছু লিখে কাবিন নামার মত করে বানালাম। ফারজানা আমাকে বলে ভাইয়া দেনমোহর কত দিবে? আমি বলছি পাঁচশো, ফারজানা বলে না এক হাজার দিতে হবে। ফারজানা আমার কাছ থেকে একহাজার টাকা নিয়ে নিল। তারপর কাবিন নামাই দুজনে বর কনের জায়গাতে সাক্ষর করে দিলাম। ফারজানা আর আমি হাসতেই আছি। এদিকে বাইরে বৃষ্টির শব্দে যেন আমাদের হাসির সাথে মিলে যাচ্ছে।
– আচ্ছা ফারজানা তুই কি আমার বৌ নাকি বোন?
– ভাইয়া এখন আমি তোমার বৌন বুঝেছো।বোন হলাম বাসাই, এখানে আমি তোমার বৌ।
– তা বৌ হলে কি করতে হয় জানিস তো?
– ভাইয়া আমি সব জানি। আমাকে শিখাতে হবেনা।
– হাহাহা, তাই নাকি রে বোন?
– জ্বী ভাইয়া।
– আচ্ছা চল খেয়ে নি।
– ভাইয়া খেতে ইচ্ছে করছে না।
আরে আয় তো দুজন অল্প করে খেয়ে নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *