বিয়ের পর – পর্ব – ০১

উজান। উজান মিত্র। ভালো ছেলে ভদ্র ছেলে। জীবনে কোনোদিন কোনো মেয়ের দিকে তাকায় নি। স্কুল জীবনেও না। কলেজ জীবনেও না। তাকায় নি বলতে ওভাবে তাকায়নি, যেভাবে সব ছেলেরা তাকায়, আর যেভাবে সব মেয়েরা চায়, ছেলেরা তাদের দিকে তাকাক। স্কুল জীবন শেষ হলো। কলেজ জীবনও শেষ হলো। অতঃপর শুরু হলো চাকুরী জীবন। এখানেও উজান ভালো, ভদ্রই থেকে গেলো। বড় অফিসার পোস্টে চাকরি উজানের। সমস্ত দামী, গুরুত্বপূর্ণ ফাইল তার হাত ঘুরেই যায়। ফলে যথেষ্টই প্রেশারে থাকে উজান। এই করে আর মেয়েদের দিকে তাকানো হয় না। কিন্তু এভাবে তো সারাজীবন চলা যায় না। বিয়ে করতে হবে, সংসারী হতে হবে। বাবা-মা এর দাবী মেনে উজান বিয়েতে সম্মতি দিলো। আর একটা কারণও ছিলো। মেয়েদের দিকে ওভাবে হয়তো তাকায় না উজান। তবে সে পর্নের পোকা। ওর ফেভারিট পর্নস্টার হলো জেসা রোডস ও অ্যালেট্টা ওসান। দুজন ভিন্নধর্মী যদিও। জেসা রোডস যেমন চিকনি চামেলি তেমনি অ্যালেট্টা ওসানের আবার ভীষণ বালকি চেহারা। রাতে এই দু’জনের পর্ন না দেখলে উজানের ঘুম পায়না। তবে সকাল হলেই ওসব ভুলে যায় সে।
এক রবিবার সময় করে বেরিয়ে পড়লো সবাই। মেয়ের নাম মেঘলা। মেঘলা সেন। নার্সিং ট্রেনিং করেছে। চাকরি জয়েন করেনি। দু’ভাই বোন। দাদা অলরেডি বিয়ে করেছে। মেঘলা ছোটো। মেয়ে তো অপূর্ব সুন্দরী। দেখে চোখ স্থির হয়ে যাবার মতো। চোখধাঁধানো সুন্দরী। উজানও ভীষণ হ্যান্ডসাম। তাই ও পক্ষেরও পছন্দ। কিন্তু মনের মধ্যে একটু কিন্তু কিন্তু আছে উজানের। তার বয়স ২৯ এখন, মেঘলার সবে ২৩, অর্থাৎ সে ছয় বছরের বড়। বিয়েটা কি করা ঠিক হবে? তবে সবার পছন্দ বলে উজান ব্যাপারটা নিয়ে উচ্চবাচ্য করলো না। মানে মানে বাড়ি ফিরলো। আর কেউ না বুঝলেও মায়ের মন তো। রাত্রিদেবী ঠিক বুঝলেন। বাড়ি ফিরে ছেলেকে নিয়ে পড়লেন।
রাত্রিদেবী- কি রে বাবান, কোনো অসুবিধে আছে তোর?
উজান- আসলে মা। বয়সের গ্যাপটা অনেক হয়ে যায়। ছয় বছরের।
রাত্রিদেবী- আর কি অসুবিধা?
উজান- আর কিছু নেই মা।
রাত্রিদেবী- বেশ বাবা। আমি ভাবি। তোর বাবার সাথে আলোচনা করি।
প্রদ্যোত বাবু গায়ে মাখলেন না উজানের আপত্তি। যুক্তি দেখালেন তার আর রাত্রিদেবীর মধ্যেও তো ছয় বছরের গ্যাপ। মেয়ের আপত্তি না থাকলে বিয়ে আটকানোর কোনো কারণ নেই। আর আসলেও ধোপে টিকলো না আপত্তি। উজান আর মেঘলাকে একদিন ঘুরতে পারমিশন দেওয়া হলো। নিজেদেরকে বোঝার জন্য। মেঘলা জানিয়ে দিলো, তার কোনো আপত্তি নেই। তাহলে উজানেরও আপত্তি নেই। তাছাড়া এরকম সুন্দরী মেয়ে তো আর পাওয়া যাবে না সবসময়।
শুভ কাজে দেরি করা উচিত নয়। হই হুল্লোড় করে উজান আর মেঘলার বিয়ে হয়ে গেলো। এতদিন পর্যন্ত উজানের বিয়ে নিয়ে অন্য অনুভূতি ছিলো। বিয়ে হয়ে যাবার কিন্তু অনুভূতি পালটাতে লাগলো। বিয়ে হয়ে যাবার পর থেকেই মেঘলা তার সাথে সাথে ঘুরছে। উজানের কেমন যেন একটু অদ্ভুত ফিলিংস হচ্ছে। বিয়ের রাতে সবাই মিলে একসাথেই বিছানা হলো। সবাই বলতে মেঘলা, তার বান্ধবীরা, মেঘলার বৌদি, উজান, আর উজানের দুজন বন্ধু। আড্ডা, জমাটি আড্ডা, ঠাট্টা, মস্করাতে রাত এগোতে এগোতে তখন ভোরবেলা প্রায়। সবাই এদিক সেদিক এলিয়ে পড়েছে। উজানও ঘুমে ঢুলুঢুলু। এমন সময় মেঘলা খোঁচা দিলো।
মেঘলা- অ্যাই। অ্যাই শোনোনা।
উজান ধড়ফড় করে উঠলো- কি ব্যাপার?
মেঘলা- চলো না একটু। বাথরুমে যাবো। কে কোথায় ঘুমিয়েছে জানিনা। আর আজ রাতে আলাদা হতে নেই।
উজান- বেশ চলো।
বাথরুম থেকে বেরিয়ে মেঘলা উজানকে একটু আলাদা টেনে জড়িয়ে ধরলো। উজান এটার জন্য প্রস্তুত ছিলো না। মেঘলার নরম তুলতুলে শরীরটা তার ওপর পড়তেই উজান যেন ইলেকট্রিক শক খেলো।
উজান- এই এই এই কি করছো। কেউ দেখে ফেলবে।
মেঘলা- কেউ দেখবে না। আমার বরকে আমি জড়িয়ে ধরবো, দেখলেই বা কি?
উজান- তবুও।
মেঘলা- কোনো তবু নেই। আমাকে প্লীজ জড়িয়ে ধরো একবার।
উজান কাঁপা কাঁপা হাতে মেঘলাকে জড়িয়ে ধরলো। ইসসসসস কি নরম তুলতুলে শরীর। উজান চেপে ধরলো মেঘলাকে। উজানের পুরুষ বুকে নিজেকে সঁপে দিয়ে মেঘলার মুখ থেকেও বেরিয়ে এলো আহহহহহহহহহহহহ।
দুজনের এই গোপন অভিলাষ আরেকটু বাড়বে কি কাবাব মে হাড্ডি হয়ে প্রবেশ আরোহীর।
আরোহী- অ্যাই অ্যাই অ্যাই কি হচ্ছে কি! আমি কিন্তু লোক ডাকবো।
দু’জনে ছিটকে সরে গেলো। উজান তো প্রায় হাত জোড় করে করে অবস্থা। আবদার, অনুরোধ একটাই আরোহী যাতে কাউকে না বলে। কিন্তু আরোহী নাছোড়বান্দা। শেষে উজানকে দিয়ে একটা দামী গিফটের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ছাড়লো। মেঘলা তো অবাক।
মেঘলা- তুমি কি গো। নিজের বউকে জড়িয়ে ধরেও ফাইন দেবে?
উজান- আহহহহ বুঝছো না কেনো! আমাদের তো এখনো ফুলশয্যা হয়নি।
মেঘলা- তাতে কি? কেউ জানলে কি তোমার নামে কেস হতো না কি?
উজান- আচ্ছা আচ্ছা। আজই তো। আর তো ফাইন নিতে পারবে না।
যথারীতি সমস্ত কাজকম্ম এগিয়ে চললো। বৌভাতের সব লোকজন চলে গিয়েছে। বন্ধুরা লাস্ট মিনিট সাজেশন দিচ্ছে উজানকে। উজান মেঘলাকে রুমে পাঠিয়ে দিয়েছে। মেঘলা চড়া মেক আপ তুলে ফ্রেশ হয়ে বিছানায় এসে বসেছে। ড্রেস চেঞ্জ করেনি। আর করবেই বা কেনো? আজ তো উজান সব খুলে দেবে। মানে মানে বন্ধুদের বিদায় দিয়ে রুমে প্রবেশ করলো উজান দুরু দুরু বুকে। বিয়ের রাতে তো তবু হাত কেঁপেছিলো। আজ তো সারা শরীর কাঁপছে। রুমে ঢুকে দরজাটা লক করলো উজান। মেঘলা হাসিমুখে বিছানায় বসে আছে। সত্যি কি মায়াবী দেখতে মেঘলাকে। মেকআপ তুলে ফেলে এখন সত্যিকারের মেঘলা উজানের সামনে। কাজল কালো টানা চোখ, চোখের সাথে মানানসই আই ব্রো, গাল গুলো টসটসে কাশ্মীরী আপেল যেন। কাঁধ দেখেই বোঝা যায় নরম, কমনীয় কাঁধ। আঙুল ধরে দেখেছে উজান। হাতের আঙুল গুলো নিয়ে যেন সারাক্ষণ খেলা করা যায়। কাঁধ থেকে নামলেই…..
ইসসসসস উজানের শরীর কেমন করছে। করবে নাই বা কেনো। বহুদিন আগে একবার দার্জিলিং গিয়েছিলো। মেঘলার উত্তুঙ্গ বুক তো হিমালয়ের চেয়ে কম কিছু নয়। শাড়ির আঁচল ছেড়ে দেওয়ায় দেখা যাচ্ছে খোলা পেট। যেন ইডেনের মসৃণ মাঠ। উজান এগিয়ে যেতে গিয়েও যেন এগোতে পারছে না। পা টলমল করছে। মেঘলা বুঝতে পেরে বিছানা থেকে নেমে এগিয়ে এলো। দরজার পাশে দাঁড়িয়ে উজান। মেঘলা দু’হাতে উজানকে জড়িয়ে ধরলো। আঁকড়ে ধরলো। সাহস পেলো উজান। ফিরতি জড়িয়ে ধরলো মেঘলাকে।
মেঘলা- ভয় করছে?
উজান- হ্যাঁ মেঘলা। ভয়, আনন্দ, উত্তেজনা সব মিলে মিশে একাকার।
মেঘলা- কিসের ভয়। আজ তো ফুলশয্যা। আজ তো ফাইন দিতে হবে না। আমায় কোলে তুলে বিছানায় নিয়ে চলো। পারবে না?
উজান- পারবো মেঘলা।
দু’হাতে পাঁজাকোলা করে উজান মেঘলাকে নিয়ে বিছানায় উঠে এলো।
মেঘলা- তুমি আরাম করে বসো।
উজান খাটের একদিকে হেলান দিয়ে বসলো। মেঘলা কাছে এসে উজানের কোলের ওপর বসে পড়লো উজানের গলা জড়িয়ে ধরে। উদ্ধত বুক চেপে আছে উজানের বুকে।
উজান- এভাবে বসে থাকবে?
মেঘলা- হ্যাঁ। আগে তোমাকে স্বাভাবিক করতে হবে।
উজান- স্বাভাবিক?
মেঘলা- তা নয়তো কি? নিজের বউকে ধরতে লজ্জা পাও। ফাইন দাও। কোনো বর দ্যায়?
উজান- আর লজ্জা পাবো না।
মেঘলা- যাও যাও। জানা আছে। তাই বসলাম। আগে আমরা বন্ধু হবো। তারপর স্বামী স্ত্রী।
উজান- আচ্ছা বেশ।
মেঘলা- তোমাকে কি করে ডাকবো? উজান? না মিত্র স্যার? না ওগো?
উজান- উজান করেই ডাকবে। বাড়িতে বাবা মা বাবান করে ডাকে।
মেঘলা- বেশ উজান। আচ্ছা তুমি এতো লাজুক কেনো? ভয় পাও কেনো? অফিসেও এরকম?
উজান- না না। আসলে কোনোদিন কোনো মেয়ের সংস্পর্শে আসিনি তো। তাই ইতস্তত করি।
মেঘলা- আমি কি অনেক ছেলের সংস্পর্শে এসেছি না কি। তাই বলে কি এতো ভয়, লজ্জা পাই?
উজান- তোমার তো বান্ধবীরা বেশ সড়গড়।
মেঘলা- হ্যাঁ তো, তোমার বন্ধুরা জ্ঞান দেয় না কখনও?
উজান- ওরা আলোচনা করে। কিন্তু আমি অন্যের গার্লফ্রেন্ড বা বউকে নিয়ে আলোচনায় ঠিক স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি না। তাই সমস্যা।
মেঘলা- শোনো না। তুমি জানো ফুলশয্যায় কি হয়?
উজান- তা জানি। স্বামী স্ত্রী সেক্স করে।
মেঘলা- বাহ! তা কিভাবে করে জানো?
উজান- জানি।
মেঘলা- তাই? কিভাবে করে?
উজান- আমি পর্নে দেখেছি।
মেঘলা- হোয়াট? তুমি পর্ন দেখো?
উজান- হ্যাঁ মানে না মানে। দেখতাম। তবে আর দেখবো না। প্লীজ রাগ কোরো না।
মেঘলা- যাহ! রাগ করবো কেনো? এ তো সবাই দেখে। আমিও দেখেছি কয়েকবার।
উজান- ওহ। যাক বাঁচালে।
মেঘলা- আমাকে দেখার পর দেখেছিলে?
উজান- হ্যাঁ।
মেঘলা- কি পর্ন দেখো তুমি? কোনটা ফেভারিট?
উজান- ওরকম নেই। আমি জেসা রোডস ও অ্যালেট্টা ওসানের পর্ন দেখি। যে কোনো ক্যাটেগরি।
মেঘলা- ও বাবা! তুমি তো তলে তলে অনেক গো উজান।
উজান লজ্জা পেয়ে গেলো।
উজান- কিন্তু আমার কোনো প্র‍্যাকটিকাল অভিজ্ঞতা নেই।
মেঘলা- তাই? তা করে নাও প্র‍্যাক্টিকাল অভিজ্ঞতা। অ্যাই আমি কার মতো গো? জেসা রোডস না অ্যালেট্টা ওসান?
উজান- তুমি মেঘলার মতো।
মেঘলা উজানের ঠোঁটের কাছে ঠোঁট নিয়ে গেলো। চোখ বন্ধ করে ঠোঁট এগিয়ে দিলো উজানের ঠোঁটের দিকে। উজান উত্তেজনায় কাঁপছে। কাঁপা কাঁপা ঠোঁটে মেঘলার ঠোঁট স্পর্শ করলো উজান। মেঘলার কমলার কোয়ার মতো নরম পাতলা ঠোঁট। মেঘলা নিজের ঠোঁট দিয়ে দখল করলো উজানের ঠোঁট। দু’জনের ঠোঁট মিলেমিশে যেতে লাগলো মুহুর্মুহু। মেঘলা উজানের মাথা ধরে চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিচ্ছে উজানকে। উজান প্রথমে এমনিই করলেও আস্তে আস্তে মেঘলার মাথা চেপে ধরলো।
পর্ন কপি করে এলোপাথাড়ি কিস করতে চাইছে উজান। আর এলোপাথাড়ি চুমুর এলোপাথাড়ি সুখ মেঘলাকে ক্রমশ গলিয়ে দিতে শুরু করেছে ভীষণভাবে। আনাড়ি উজানের আনাড়ি আদরে মেঘলা আদুরে বেড়ালের মতো কুঁইকুঁই করতে করতে আদর খেতে লাগলো ভীষণভাবে। মেঘলার ঈষৎ শীৎকারে উজানের শরীর মন সব জেগে উঠতে লাগলো আরও ভীষণভাবে। দু’জনে চুমু খেতে খেতে এলিয়ে পড়লো বিছানায়। খেলা সবে শুরু।
চলবে….
মতামত জানান [email protected] এ মেইল করে অথবা hangout এ মেসেজ করুন এই মেইল আইডিতেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *