কাকিমাদের ভালবাসা – তৃতীয় পর্ব

কাকিমাদের ভালোবাসা – দ্বিতীয় পর্ব
সোমা কাকিমার বাড়ি থেকে বেরোনোর ২০ মিনিট পর বাড়ি পৌছেগেলাম | বাড়ি পৌঁছে মা জিজ্ঞাস করল প্রথম দিন কেমন হল,তারপর আমি আমার রুম এ চলে গেলাম | রুমে ঢুকে ড্রেস চেঞ্জ করে মা খেতে ডাকলো | যথারীতি খাওয়া দাওয়া করে রুম এ পৌঁছে লেখাপড়ায় মন দিলাম | ১১ টার দিকে পড়া শেষ করে শুতে গেলাম | বিছানাতে শুয়ে ভাবতে লাগলাম আজকের দিন টা, কিন্তু সবার প্রথম মনে পড়লো সোমা কাকিমার কথা, কি সুন্দর মহিলা যেমন হাইট তেমন গায়ের রং তেমন চেহারা,সত্যি ভগবান যেন সময় নিয়ে গড়েছে |
শুধু তাই না ভগবান ওনাকে প্রতিটা জিনিস এমন দিয়েছেন যা ছেলে থেকে বুড়ো সবাইকে আকর্ষণ করবে | মনে হল কাকু কি লাকি |এইসব ভাবতে ভাবতে কখন যে ঘুমিয়ে পড়লাম জানি না | পরদিন সকালে উঠে পড়া শেষ করে মা কে বললাম আজ একটু বন্ধুদের সাথে মুভি দেখতে যাব | মা ও মানা করল না তাই বেরিয়ে পড়লাম | মুভি দেখে ফিরে স্নান করে খেয়ে একটু ঘুমিয়ে পড়লাম |মায়ের ডাকে ঘুম থেকে উঠে বিকেলের চা নাস্তা আমরা মা বেটা একসাথে গল্প করি এবং এইসমই বিভিন্ন ধরনের গল্প হয় আমাদের | আমি মা কে জিজ্ঞাস করলাম ” মা সোমা কাকিমারা খুব বড়োলোক তাই না
মা- কি করে বুঝলি?
আমি- ওদের বাড়িতে ঢুকলেই বোঝাযায়, বাড়ির ভেতরের সাজসরঞ্জাম দেখলে যে কেও বলে দেবে |
মা – হ্যা ঠিক বলেছিস , সোমার বর মানে তোর কাকু খুব বড় ব্যবসায়ী, ওই বাড়িটা ছাড়াও ওদের দুটো ফ্ল্যাট আর একটা ফার্ম হাউস আছ
মার সাথে র তেমন কিছু কথা হল না | একটুপর নিজের রুমে এসে মনে মনে ভাবতে লাগলাম আজ নিজেকে একটু সংযত করতেই হবে ,কাকিমা যদি বুঝতে পারেন যে আমি ও ভাবে তাকাই তাহলে কিছু খারাপ ভাবতে পারেন,এই সংকল্প নিয়ে বেরিয়ে পড়লাম | প্রায় ৬:৩০ নাগাদ পৌছে গেলাম ,বেল বাজাতে কাকিমা দরজা খুলল | ভিতরে যেতে কাকিমা বলল ” ঋষভ আজও তোমাকে একটু অপেক্ষা করতে হবে ,শিল্পা ওর কাজিন দের সাথে শপিং এ গেছে, একটু পরেই আসবে | আমি বললাম ” ঠিক আছে কাকিমা আমি না হয় ১ ঘন্টা পরেই আসছি |
কাকিমা – কেন আমার সাথে গল্প করতে বুঝি ভালোলাগে না?
কাকিমার হঠাৎ এইরকম প্রশ্নে থতমত খেয়ে গেলাম | একটু ঢোক গিলে বললাম ” না না কাকিমা তা না ,আপনারও তো কিচেন এ কাজ আছে তাই আমি একা বসে বোর হব তাই বললাম |
কাকিমা- ঠিক আছে তুমিও আমার সাথে না হয় কিছেনেই বসো,আমার কাজ ও হবে আর তোমার সাথে গল্প করাও হবে
আমি – বেশ তাই চলুন
এই বলে কাকিমা কিচেন এর দিকে যেতে লাগলো | কিচেন এর লাইট কাকিমার নাইটির উপর পড়ায় তা যেন ভেদ করে আমার কাছে পৌছতে লাগলো আর এর ই মাঝে ভেসে উঠল কাকিমার নাইটির ভেতরের দৃশ্য আবছা হলেও বুঝতে পারলাম কাকিমা ভেতরে শুধু প্যান্টি পরে আছে আর এটা দেখে আমার শরীর শিউরে উঠলো, এবার মন কে মানালেও চোখ কে মানাতে পারলাম না |কাকিমা ফ্রিজ থেকে কিছু খাবার বের করে আমাকে খেতে দিলেন আর নিজের কাজ করতে লাগলেন | খেতে খেতে আমি বললাম ” কাকিমা আপনার কিচেন টা কিন্তু খুব সুন্দর
কাকিমা – শুধু কিচেন আর আমি না ?
আমি – না না আপনি ও খুব সুন্দর
কাকিমা – আরে মজা করছিলাম ,আমি সব পছন্দ করে লাগিয়েছি ,তোমার কাকুর ওতো সময় কোথায়
আমি – আপনার চয়েস কিন্তু খুব ভাল
কাকিমা – থাঙ্কস
এই বলে আমি খেতে লাগলাম আর কাকিমার দুধ দেখতে লাগলাম | কাকিমাও মাঝে মাঝে আমার দিকে তাকাতে লাগলো আর মনে হয় কাকিমাও বুঝতে পারছিলেন যে আমি ওনার দুধ দেখছি,কিন্তু কিছু বললেন না | ১০ মিনিট পর কাকিমা বললেন “চলো আমার কাজ শেষ ,বাইরে বসা যাক ” | বাইরে এসে কাকিমা বলল “ঋষভ তুমি একটু বসো, আমি একটু গা ধুয়ে আসি ,কিচেন এ কাজ করার স্নান না করলে আমার ভাল লাগে না” বলে কাকিমা বাথরুম এ চলে গেল |
বসে ভাবছি কি করবো হঠাৎ চোখ গেল কাকিমার বেডরুমের দিকে,মনে হল দেখি কাকিমার বেডরুম টা কেমন ,ভাবতে ভাবতে কাকিমার বেডরুম এ ঢুকে পড়লাম শুধুমাত্র কৌতূহল বসত | বেশ সুন্দর যেন ৫ স্টার হোটেলের কোন রুম | এক সাইড এ আলমারির পাশে কিছু ড্রযার ,খুলে দেখলাম ব্রা তে ভর্তি ,কম করে ৩০-৪০ টা তো হবেই সব গুলোই ৩৪D,নীচের ড্রযার টা প্যান্টি তে ভর্তি, ভয় ও করছে তাই তাড়াতাড়ি রেখে বাইরের এলাম | কিছুক্ষণ বসার পর কাকিমা বেরিয়ে এলো একটা টাওল পরে বেরিয়ে এলো যা হাঁটুর উপর থেকে বুক অবধি,
কাকিমা রুমে ঢুকে গেলো কিন্তু দরজা বন্ধ করল না | একটু পর কাকিমার গলা শুনতে পাওয়া গেলো| “কিছু হল নাকি” এই ভেবে কাকিমার রুমের দিকে গেলাম, দেখলাম কাকিমা একটা সায়া পরে র ব্রা পরে দাঁড়িয়ে আছে কিন্তু ব্রার হুক লাগানো নেই | কাকীমা বলল ” ঋষভ বাড়িতে আর কেও নেই তাই তোমাকেই ডাকতে হল,আমার ব্রার এই হুক তা লাগিয়ে দাও না |
দেখলাম দুধে আলতা পিঠে দু এক ফোঁটা জল গড়িয়ে পড়ছে, আমি তখন কাকিমার পিঠ দেখাই এতই ব্যস্ত যে ভুলেই গেলাম হুক লাগানোর কথা | কাকিমার ডাকে হুস ফিরলে কাকিমা বলল ” কি হল লাগিয়ে দাও হুক টা | হুক লাগাতে গেলাম কিন্তু আমার হাত কাপছিল,কাকীমা সেটা বুঝতে পেরে হাত দুটো পেছন এ করে আমার হাত দুটো ধরলো এবং বললো “লাগাও” | লাগিয়ে দেওয়ার পর কাকিমা বলল ” কি হল হাত কাপছিল কেন?আগে কারও ব্রা তে হাত দাও নি নাকি? আমি- না
কাকিমা- সেকি! আমিতো শুনেছি ছেলেরা প্রথম তাঁদের গার্লফ্রেন্ড এর ব্রাতে হাত দেই
আমি – আমিতো প্রথম আপনার ব্রাতেই হাত দিলাম
কাকিমা- কিন্তু আমিতো বিবাহিত , তাই তোমার গার্লফ্রেন্ড হতে পারব না ,হ্যা গার্ল-ফ্রেন্ড হতে পারি | আমি বললাম ‘ঠিক আছে’ এই বলে কাকিমা একটা নাইটি বের পরে পরে নিল | এরপর বলল এসো বলে কাকিমা আমাকে জড়িয়ে ধরল ,কাকিমার বড় বড় দুধ দুটি আমার বুকে চেপটে যেতে লাগলো | ৪-৫ মিনিট জড়িয়ে থাকার পর বলল “এটা আমাদের প্রথম ফ্রেন্ডশিপ হাগ্”
এমন সময় কলিং বেল বেজে উঠলো| বাইরে বেরিয়ে এসে আমি সোফাতে বসলাম এবং কাকীমা গেলো দরজা খুলতে………….চলবে
এরপর কি হল তা জানতে পরের পার্ট এ চোখ রাখুন | পরবর্তী পার্ট তাড়াতাড়ি পেতে চাইলে আমাকে জানান গল্প টি সম্বন্ধে আপনাদের মতামত নিছে দেওয়ায় মেইল এ
[email protected]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *