একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প – ১৩

একটি চাবুক, দুই মালকিন ও কয়েকটি যৌনদাসের গল্প – ১২
‘শোন্, একজন প্রকৃত যৌনদাস হবে এমন যে তার মিস্ট্রেস যতক্ষণ চাইবে,সে ওটাকে খাড়া করে রাখবে,মিস্ট্রেস যতক্ষন খুশি,যেভাবে খুশি ওটাকে নাড়বে কিন্তু ও চরম উত্তেজনায় পৌঁছবে না ,ভিজিয়ে দেবে না সবকিছু,কারণ…কারণ ওর ওই মাংসল দন্ডটা ওর আনন্দের জন্য নয়,ওর জন্মই ওর মিস্ট্রেসকে আনন্দ দেবার জন্য ;ওর শরীর, ওর মন সবকিছুরই লক্ষ্য ওর মিস্ট্রেসকে আনন্দ দেওয়া;কিন্তু জানিস ….ও পারেনি; না,একবারও না ; একটু থেমে নীতা আবার গ্লাসে চুমুক দেয়।’ওকে নিয়ে আমি কি ভেবে ছিলাম জানিস ?আর কয়েকদিন পরে ওকে পাঠিয়ে দেব আমার এই হাভেলির পশ্চিমের ওই লাল রঙের বাড়িটাতে….’
রিনা নীতার পুসির ভেতরে কয়েকবার জিভ বুলিয়ে বলে ,’ওই বাড়িটার সামনে তো বিশাল পাহারা,সামনে দিয়ে যেতেই ভয় করে,বন্দুক হাতে কত লোক সবসময় দঁড়িয়ে থাকে, ওখানে কি হয় মালকিন ?’
নীতা রিনার মাথাটা চেপে ধরে নেশার ঘোরে জড়িয়ে জড়িয়ে বলতে থাকে, ওই লাল বিল্ডিংটার কথা বলছিস ?……ওটা তো আমার টাকা বাড়ানোর মূল যন্ত্র রে…. ওখানে কি হয় জানিস?….. ওটা আমার তৈরি জেলখানা,যেখানে প্রায় পঞ্চাশজন কয়েদি আছে, যাদের বেশিরভাগই খুন ধর্ষণ ডাকাতি এইসব করেছে জীবনে অনেক,আইনের বিচারে জেলও খেটেছে বহুবার ,বাকি জীবনটাও যাদের কাটানোর কথা সরকারি জেলে,তাদের আমি নানাভাবে ছাড়িয়ে এনেছি ওখান থেকে,এনে রেখেছি আমার এই কয়েদখানায়….জানিস,ওই বাড়িতে বেশ কয়েকটা ডাংগিয়ন আছে,ওগুলো মানুষকে কষ্ট দেওয়ার নানা যন্ত্রপাতিতে ভরা…..ওই বিল্ডিংটাতে সেই সব মেয়েরা ঢোকে,যারা আসলে স্যাডিস্ট,মানুষকে তীব্র যন্ত্রণা দিয়ে যারা আনন্দ পায়; অনেক ,অনেক টাকার বিনিময়ে ওখানে ঢুকতে পায় ওরা;আর পায় ওই কয়েদিদের যেভাবে খুশি যত খুশি পীড়ন করার অধিকার;পায় ঐসব যন্ত্রগুলোকে ওদের ওপর প্রয়োগ করার অধিকার; ওরা ভেবে ভেবে আরো নতুন নতুন উপায় বের করে যন্ত্রণা দেয ওদের,রক্তাক্ত করে তোলে ওদের শরীরটাকে কাঁটা লাগানো চাবুকের আঘাতে,বেত মারে ওদের দণ্ডতে,কেউ কেউ ব্রেকফাস্ট খেতে খেতে,কফি খেতে খেতে উপভোগ করে ওদের যন্ত্রণার চিৎকার;জোরালো শব্দনিরোধক লাগানো ঘরগুলোর বাইরে পৌঁছয় না ওদের চিৎকার,ওদের গোঙানি…..’
শুনতে শুনতে রিনার চোখ বিস্ময়ে বড়ো বড়ো হয়ে উঠছিলো,’পুসি থেকে মুখটা তুলে ও বলে,ঐ স্যাডিস্ট মালকিনদের অত্যাচারে যদি কেউ মরে যায় ?’ নীতা উন্মাদের মতো হাসতে থাকে….একটু পরে জড়িয়ে জড়িয়ে বলে,ওখানের ওই গোলামগুলোর কথা বাইরের জগতের বিশেষ কেউ জানে না,পুলিশের খাতায় ওরা নিখোঁজ , বা এনকাউন্টারে মারা যাওয়া কোনো সাংঘাতিক অপরাধের কয়েদী ……পালতে গিয়ে মারা গ্যাছে ,বা ওইধরণের কিছু,যদিও বাকি ব্যাপারটা ওরা কিভাবে ম্যানেজ করেছে তা আমি জানি না,তবে আমি এই সব কয়েদিদের অনেক টাকা দিয়ে কিনে নিয়েছি ওদের কাছ থেকে,তাছাড়া আমার লোকেরা কিডন্যাপ করেও নিয়ে এসেছে ওদের কয়েকজনকে, আইনের কাছে ওরা নিখোঁজ বেশ কিছুদিন ধরে;এছাড়া আমার বিচারে শাস্তি পাওয়া কয়েকজনও আছে ওখানে …আমার এখানে আসা কোনো মিস্ট্রেস যদি তীব্র আনন্দের স্বাদ নিতে গিয়ে ওদের কাউকে মেরে ফেলেও,তবে আমি তার কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ বাবদ প্রচুর টাকা পাবো…..প্রচুর প্রচুর টাকা,তার কিছুটা দিয়ে আমি নতুন স্লেভ কিনব,আর ওই স্যাডিস্ট মিস্ট্রেস সারাজীবন ধরে তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করবে একটা স্লেভ কে যন্ত্রণা দিয়ে মেরে ফেলার তীব্র রোমাঞ্চকর আনন্দ….’
রিনা শিউরে ওঠে নীতার কোথায়,ওই বিল্ডিংটায় তাই তাহলে ওই জন্যে এতো নিরাপত্তার বেষ্টনী? জয় বলে ওই সুন্দর দেখতে লোকটাকে মালকিন তাহলে ওখানে পাঠানোর কথা ভেবেছে ? ওর একসময়ের প্রেমিককে ?কি কঠিন মালকিনের মন ! যে শরীরটাকে মালকিন একসময় তীব্রভাবে ভালো বেসেছিলো,তীব্র যন্ত্রণায় কু্ঁকড়ে যাওয়া সেই শরীরটার কথা ভেবে তার মালকিন তীব্র আনন্দ পেতে চাইছে ?সে বুঝতে পারে নীতা মালকিন আসলে একজন উন্মাদ স্যাডিস্ট ছাড়া কেউ নয় ;না সে ওই লোকটাকে এত কঠিন শাস্তি দিতে চায় না ,অন্তত আপাতত; সে ওটাকে তার ইচ্ছাধীন গোলাম বানাতে চায় ,চায় তার শরীরটাকে নিয়ে খেলতে , ওর স্বামী ওকে যেরকম যন্ত্রণা দিতো ও চায় তেমনি করে ওই লোকটাকে যন্ত্রণা দিতে |
ওর হঠাত মনে পারলো সেই দিনটার কথা ।আকণ্ঠ মদ গিলে এসেছিলো ওর স্বামী; তারপর সামান্য কারণে ওর চুলের মুঠি ধরে নৃশংসভাবে একটা কাঁচা কঞ্চি দিয়ে ওর সারাগায়ে রক্তের দাগ করে দিয়েছিলো ও ; সেই থেকে সে ভেবেছে যদি কোনোদিন একটা পুরুষকে পায় তার পায়ের তলায় তাহলে তাকে দলে-পিষে ওই পুরুষ জাতটার ওপর তার প্রতিশোধ নিবে; ও মারা যাওয়ার পর মালকিন অনেকবার তার আবার বিয়ে দেবার কথা বলেছে সে রাজি হয় নি, সে তার যৌন উত্তেজনা মিটিয়েছে মালকিনের সাথে লেসবিয়ান-সেক্স করে ;আজ যদি জয় বলে ওই লোকটাকে তার যৌনদাস হিসেবে পায় তাহলে তার এতদিনের সুপ্ত কামনার আগুনটা আবার দাউ -দাউ করে জ্বলে উঠবে ।।
সে জিভটাকে পুরোটা ঢুকিয়ে বেশ কয়েকবার তীব্রভাবে নাড়িয়ে দেয় পুষিটাকে; তারপর বলে,মালকিন ওকে যদি আমার হাতে দেন,আমিও ওকে যন্ত্রণা দেব প্রতিদিন,আপনি যেভাবে চাইবেন সেভাবেই আমি ওকে শেখানোর চেষ্টা করবো কিভাবে অনেকক্ষণ উত্তেজনা ধরে রাখতে হয়,প্লিজ, ওকে আমার হাতে তুলে দিন মালকিন…..’
নীতা হুইস্কিতে আবার একবার চুমুক দেয় , তারপর বলে,ঠিক আছে, তাই হবে,তোকেই দিলাম ওকে,তুই ওকে তৈরি কর ভালোভাবে,কয়েকমাস পরে ওকে নিয়ে আসবি আমার কাছে,ওটার পরীক্ষা নেবো আমি…..দাঁড়া এখুনি ডেকে পাঠাই ওটাকে, …রিনা উঠে দাঁড়ায় ,পরে নেয় ওর পোষাক;নীতা কলিংবেল টেপে,একজন মেয়ে এসে দাঁড়ায়,নীতা জড়ানো গলায হুকুম দেয়,’তেজবাহাদুরকে বল,ওই আস্তাবলে ঘোড়াগুলোর দেখাশুনা করে যে জয় বলে লোকটা, ওকে যেন এক্ষুণি এখানে হাজির করে…আর এই মালকিনকে যেন ওর বাড়িতে পৌছে দেয়’
এবার রীনাকে বলে,তুই তার আগে একটা কাজ কর-
‘কি মালকিন ‘রীনার বিস্মিত প্রশ্ন|
‘যা, ডানদিকের ওই আলমারিটা খোল ‘
রিনা উঠে গিয়ে আলমারিটা খুলেই চমকে উঠে; আলমারিটার ভিতরে কয়েকটি তাক; প্রতিটি তাকে নানারকমের শাস্তি দেওয়ার নানা জিনিস; একটা তাকে নানারকমের বেত,চাবুক।নিতা জড়ানো গলায় বলে ,ওর থেকে কয়েকটা বেছে নে………শোন,আমি চাই , জয় বলে ওই লোকটাকে তার নতুন মালিক দৈনিক শাস্তি দিতে ভুলে না যায় ; রিনা কিছুটা ঘাবড়ে যায় , তারপর ওখান থেকে হাতের কাছে থাকা গোটা দুয়েক চাবুক আর কয়েকটা নানা ধরণের বেত তুলে নেয়|
***********************************************************************************************
সারাদিনের অক্লান্ত পরিশ্রমের পর আস্তাবলের পাশে নিজের ছোট্ট ঘরটায় ঘুমিয়ে পড়েছিল জয়;হঠাৎ গার্ড এর গলা,’ম্যাডাম ডাকছেন, এক্ষুনি যেতে হবে;জন উঠে খুব দ্রুত জামাটা গায়ে দিয়ে বেরিয়ে এলো ওর সাথে ; এখন রাত প্রায় একটা;এতো রাত্রে ?তার কাজে কি কোনো গাফিলতি ধরা পড়েছে ? মালকিনের তিনটে ঘোড়াকেই তো সে অন্যদিনের মতো যত্ন করেছে !আচ্ছা কেউ কি ওর নামে নীতাকে কিছু বলেছে ?নীতার নামটা ওর মনে ওতেই ওর নিজের কাছেই কেমন বেমানান লাগলো ; ওই নাম ধরে কতদিন আগে সে ডেকেছে ….তার কাছে প্রায় একযুগ ঠেকলো…আচ্ছা , এতো রাতে কি এর জন্য মালকিন তাকে শাস্তি দেবেন ?এই আস্তাবলে পাঠিয়ে দেবার পর ওই হাভেলিতে তার কখনো ডাক পড়েনি
।আজ কি তাহলে ;এসব ভাবতে ভাবতে ও গার্ড এর পেছনে পেছনে চললো;হাভেলিতে ঢোকার আগে গার্ড একটা কালো কাপড়ে ওর চোখটা বেঁধে দিলো;ওর হাতটা ধরে ওকে নিয়ে যেতে লাগলো;একটু পরে গার্ড ওর চোখটা খুলে সামনের দরজাটা দিয়ে ঢুকতে বললো; বিশাল ঘরটায় একটা উজ্জ্বল আলো জ্বলছে ,ঢুকতেই একটা তীব্র সুগন্ধে ওর মাথাটা কেমন ঝিমঝিম করে উঠলো ;একদিকে বিরাট একটা ডিভানে আধশোয়া অবস্থায় নিতে; সামনের সুদৃশ্য ছোট টেবিলে মদের গ্লাসের তলায় একটু মদ ;আধশোয়া নীতার হাতেও একটা গ্লাস;নীতার পায়ের কাছে ছোট একটা টুল ;নীতা বাঁকাভাবে একটু হেসে ওকে ওখানে বসতে বললো ; জন হতভম্ভের মতো ওখানে বসে পড়লো; এখন জয়ের মুখটা প্রায় নীতার পায়ের কাছে ;
নীতা হটাৎ ওর বাঁপাটার তলাটা ওর গালে বোলাতে বোলাতে গলায় অদ্ভুত আবিলতা মিশিয়ে বলতে থাকল, কেমন আছো জয়?তোমার ওই কাজটা আর কাল থেকে করতে হবে না ।তোমাকে আমি আর ধরে রাখবো না;তাতে আমার কি লাভ বোলো ? বরং রিনা যদি তোমাকে ঠিকঠাক ট্রেনিং দিতে পারে তাহলে পরে আমার এখানে মজা লুঠতে আসা মেয়ে গুলোর আছে পাঠিয়ে অনেক টাকা পাবো ;’ জয় চমকে উঠলো; কি বলছে নিতা ;ও তাকে অন্য কারো কাছে বিক্রি করে দেবে ; ওর মুখ থেকে বেরিয়ে এলো ,মানে ?খিলখিল ওরে হেসে উঠলো নিতা; তারপর বললো ,একজন যৌন দাসের এরকম প্রশ্ন বেয়াদপি; ;অন্যদিন হলে হয়তো……(চলবে)
লেখিকা্-অরুণিমা
গল্প কেমন লাগছে ? অনুগ্রহ করে মন্তব্য করুণ…..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *