স্বামী স্ত্রী আর বন্ধু জয় – ৮

স্বামী স্ত্রী আর বন্ধু জয়-৭
যখন আমি ঘুম থেকে উঠি তখন রাত আট টা । আমি ঘড়ির দিকে তাকিয়ে ঝট পট করে উঠলাম। দেখি আমার স্বামী দেব খাবার রেডি করে হাত মুখ ধুচ্ছে। আমাকে দ্যাখে জিজ্ঞাসা করলো এখুনি উঠলে কেনো আমি তোমাকে ডাকতাম শরীর ভালো লাগছে তো। কেনো গো? না সারাদিন যা ধকল গেলো তাই বলছিলাম।আমার বুক ধক করে উঠলো আমি মনে মনে ভাবলাম তাহলে দুপুরের সব কিছু দেব দেখেছে আমার টেনসন হচ্ছিল আমার চোখ মুখ দেখে বললো রিলাক্স করো সোনা আই লাভ ইউ তুমি আজ আমাকে অনেক সুখ দিয়েছো। তুমি আরো একটু ঘুমিয়ে নাও আমি তোমাকে ১০টার সময় ডাকবো। আজ তুমি আর আমি সারারাত গল্প করবো উমমম আআ ।
এর পর
রাত ঠিক ১০ টাই দেব আমাকে ডাকলো খাবার খাবার জন্য। আমি মুখে একটু পানি দিয়ে খাবার খাবার জন্য এলাম টেবিলে। দুজনে বসে ভাত খেলাম। মাংস রান্না দেখে আমি জিজ্ঞাসা করলাম মাংস কখন আনলে। দেব বললো। তুমি ঘুমাচ্ছিলে আমি বাজারে গেছিলাম, ভাবলাম রোজ তো আমাকে রান্না করে তুমি যত্ন করে খাবাও আজ আমি নাই করি তাই মাংস নিয়ে এলাম।
আমি বললাম আচ্ছা আমার প্রতি আজ এতো ভালো বাসা কোথা থেকে এলো গোঁ। তোমার প্রতি ভালোবাসা আজ আসেনি গোঁ তোমাকে আমি কতটা ভালো বাসি যদি আমার মনের ভিতরে দ্যাখো তাহলে বুঝতে পারবে।এই কথা শুনে আমার মন যেন কেমন একটা হয়ে গেলো নিজেকে খুব ছোট মনে হয়েছিল এই ভেবে যে ও আমাকে এতো ভালো বাসে আর আমি ওকে চ্যাটিং করছি ছি আমি কতো খারাপ হয়ে গেছি।
হটাৎ দেবের ডাকতে আমার হুশ ফিরলো দেব বলছে যে কি ভাবছো আমি বললাম কিছু না তুমি আমাকে এতো ভালো বাসো তাই ভাবছিলাম ও বললো যে ভাবতে হবে না আগে খাওয়া শেষ করো। আমরা খাওয়া দাওয়া শেষ করে দুজনে মিলে সব গুছিয়ে রান্না ঘরে রেখে লাইট বন্ধ করে বেডরুম এ আসলাম ও খাটের মাথায় বালিশ টা রেখে হেলান দিয়ে বসলো আমি বললাম দাড়াও আমি বাথরুম থেকে ঘুরে আসছি। বাথরুম এ গিয়ে আমি ভাবছি দেব আমার সাথে আজ কি গল্প করবে। কি জিজ্ঞাসা করবে এটা ভাবা মাত্রই আমার ভয় করছিল।
আমি বাথরুম থেকে বের হয়ে একটা তোয়ালে নিয়ে মুখ মুছে মুখে একটু নাইট ক্রিম লাগিয়ে খাটে চলে এলাম । খাটে আসা মাত্রই দেব আমাকে টেনে ওর বুকে আমার মাথাটা নিয়ে নিলো আমিও ওর বুকে মাথা রেখে কাত হয়ে শুয়ে পড়লাম।
দেব এবার বলতে শুরু করলো-
জানো রাখি আমার কিছু কথা তোমাকে বলা হয় নি। আমাদের বিয়ের পর থেকে বলবো বলবো ভাবছিলাম কিন্তু বলতে পারি নি পাছে তুমি কি ভাবো । আমি সাথে সাথে বললাম যে আমি তোমার স্ত্রী দেব আমাকে তোমার সব কথা বলতে পারো আমি কিছু মনে করবো না প্লিজ বলো । আমার এই কথা শুনে দেব জোরে নিঃশাস ফেললো মনে হলো যেনো এবার একটু শান্তি পেলো।
তার পর বলা শুরু করলো ।ছোট বেলায় সবাই জখন বলতো যে তুই একদম তোর বাবার মতো আমার খুব গর্ভ হতো। কিন্তু ১১ বয়েসে যখন আমাকে কেও বলতো তুই তোর বাবার মতো আমার মন করতো তাকে আমি চপ্পল খুলে মারি। আমি আমার বাবার মতো নয়।আমি আমার মতো এই দুনিয়াতে কেও কারোর মতো নয় সবার একটা একটা নিজের অস্তিত্ব আছে। কেও যদি আমাকে আমার বাবার মতো বলতো আমার রাগ কেন হতো জানো। কেন দেব বলো।
শোনো তাহলে।
আমার মা কামিনী,
যখন আমার এক বছর বয়েস তখন একদিন হটাত আমার বাবার এক বন্ধুর হাত ধরে আমার মা আমাদের ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। পরে আর কোনদিন আমাদের কাছে ফিরে আসেনি। বাবার সেই বন্ধুর সাথে মা এর নতুন পাতা সংসার যে শেষ পর্যন্ত সুখেরই হয়েছিল সেই ঘটনা আমি পরে লোকমুখে জেনেছিলাম। একটু বড় হবার পর যখন সব বুঝতে শিখলাম তখন থেকেই নিজের ঘনিস্টদের হটাত করে হারানোর ভয় সবসময় আমাকে তাড়া করে বেরাতো। বেশ বুঝতে পারতাম আমি কোনমতেই সর্ব শক্তিমান উপরঅলার পছন্দের পাত্র নই। আমি তাঁর পছন্দের পাত্র হলে শেষ জীবনে মা আমার ওপর করা তাঁর অবিচারের শাস্তি নিশ্চই পেতেন। এটাই আমি ভাবতাম । এছাড়াও ছোটবেলায় মনে আসতো নানা অদ্ভুত সব চিন্তা। কখনো ভাবতাম কত বড় দুর্ভাগা আমি যে নিজের মায়ের বুকের দুধটাও ঠিকমত খেতে পেলামনা।আমি জানতাম আমার বাবা এই ঘটনায় ভেতরে ভেতরে ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে গেলেও আমার কথা ভেবে নিজেকে প্রচণ্ড শক্ত রেখে ছিলেন, দুনিয়ার সাথে লড়ে মানুষের মত মানুষ করে তুল ছিলেন আমাকে।কিন্তু একদিন আমার সব ভাবনা পাল্টে গিয়ে ছিল কারণ।একদিন আমি একটা দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে আছি গাড়ি থেকে একটা মহিলা আমার কাছে আসলো আমাকে ডাকলো তখন আমার ১২ বছর বয়স। দেখলাম মহিলা অনেক সুন্দর, কি সুন্দর মুখ যেন দুর্গা ঠাকুর।আমাকে দেখে হটাৎ মহিলার চোখ দিয়ে জল টপ টপ করে পড়ছিল। আমি কিছু ভাবতে পারছিলাম না কেন ওই মহিলা আমাকে দেখে কান্তে আরম্ভ করলো। আমার হাতটা ধোরে বললো। সোনা আমাদের বাড়ি যাবি আমি বললাম কেনো আমি তোমাকে চিনিনা জানি না আমি তোমার সাথে বাড়ি যাবো কেন?
মহিলা আমাকে বললো তুমি আমাকে না চিনতে পারো আমি তোমাকে খুব ভালো করে চিনি তুমি সঞ্জয়ের এর ছেলে না আমার বাবার নাম যখন ওই মহিলার মুখে শুনলাম তখন আমি ভাবলাম ওই মহিলা আমাকে আর বাবাকে চেনে । তাও আমি বললাম যে না আন্টি আমি এখন বাড়ি যাবো আমার খুব খিদে পেয়েছে ।মহিলা কান্নার মতো করে বললো সোনা চল না আজ না হয় আমার বাড়ি খাবি চল আমি মাংস রান্না করেছি।
মাংসর কথা শুনে আমার জিভ দিয়ে জল গোড়াতে লাগলো। আমি গাড়িতে উঠে গেলাম সারা রাস্তা আমাকে বুকে জড়িয়ে মাথায় হাত বোলাতে বোলাতে গেলো। যখন আমার মাথায় হাত বলাচ্ছিলো তখন আমার মায়ের কথা খুব মনে পড়ছিল ভাবছিলাম যদি আমার মা আমার কাছে থাকতো আমাকে এভাবে আদর করতো এটা ভাবতে ভাবতে একটা বিশাল বাড়ির সামনে এসে গাড়ি দাঁড়ালো।
আমি তো বাড়ি দেখে অবাক হয়ে গেলাম। ঘরে ঢুকে আমাকে একটা ঘরে নিয়ে বললো মনে করো এটা তোমার ঘর তুমি হাত মুখ ধুয়ে নাও আমি তোমার জন্য খাবার রেডি করছি বাড়িতে দেখলাম অনেক কাজের লোক কিন্তু মহিলা নিজে আমার জন্য খাবার প্লেটে সাজিয়ে দিলো আর বললো খাও সোনা। আমার খাওয়ার শেষে আমার হাত মুছিয়ে দিলো। তারপর বললো চল আমরা উপরে গিয়ে বসে টিভি দেখি আর গল্প করি আমি বললাম চলো।
টিভি দেখতে দেখতে আমি মহিলা কে জিজ্ঞাসা করলাম তুমি আমার বাবাকে কি করে চেনো। মহিলা তখন আমাকে বললো যে আমি তোর মা। আমি সাথে সাথে উঠে দাড়ালাম । গলায় হাতের আগুল ঢুকিয়ে বমি করতে গেলাম। ওক ওক করতে লাগলাম। মা আমার গায়ে হাত দিতে গেলো আমি বললাম ছবেনা আমাকে আমার মা নেই আমার কাছে আমার মা মোরে গেছে। সাথে সাথে মা হাও হাও করে কান্তে লাগলো আর বলছিল এরকম কথা কেনো বলছিস আমি তো বেঁচে আছি সোনা। আমি উত্তর দিলাম , যে মা নিজের স্বামী আর বাছা কে ছেড়ে চোলে আসে তাও আবার এক বছরের বাচ্ছা কে সে আমার মা না। তুমি একবারও আমার খবর নিয়েছিলে যে তোমার ছেলে বেঁচে আছে কি মোরে গেছে। তুমি আমার কথা কি ভেবেছিলে। তুমি কি জানতে না যে তোমাকে ছাড়া আমার কি হবে? বলো উত্তর দাও?
মা কান্না থামিয়ে চোখ মুছতে মুছতে আমার কাছে এসে। শুধু একটা কথা বললো যে তোকে কে বলেছে যে আমি পালিয়ে এসেছিলাম তোর বাবা না?। সারা জীবন লোকটা এক থেকে গেলো। তুই শুধু তোর বাবার কথা শুনলি আসল সত্যি টা কি তোর বাবা আর আমি জানি আর কেউ নয়। যদি সত্যি জানতে চাও তোমার বাবাকে গিয়ে জিজ্ঞাসা করো যে মা কি সত্যি সত্যি পালিয়ে গিয়েছিল না অন্য কোনো কারণ আছে। বোলে আমাকে বললো যাও বাড়ি যাও। তার পর মা ড্রাইভারকে ডেকে বললো রামু দেব কে বাড়ি দিয়ে এসো।
আমি গাড়িতে উঠলাম মুখে কিছু কথা বলতে পারছি না মা একরকম আমাকে ধমক দিয়েছিল। আসার সময় মা এর মুখখানি দেখলাম রাগ রাগ মনে হচ্ছিল। আমি গাড়িতে উঠে ভাবতে ভাবতে বাড়ি আসছি । মা কি বলতে চাইছিল বাবা কি আমার কাছে কিছু গোপন রাখছে। তার মধ্যে ড্রাইভার রামু বোলে বসলো । বাবু ম্যাডাম তোমার জন্য অনেক কাঁদে সব সময় তোমার জন্য স্যার এর সাথে যোগড়া করে।ম্যাডাম অনেক ভালো। আমি কোনো কথা না বলে চুপ চাপ থেকে শুধু ভাবতে লাগলাম বাবাকে কে গিয়ে জিজ্ঞাসা করতে হবে।
আমাকে বাড়ির ওখানে নামিয়ে ড্রাইভার গাড়ি ঘুরিয়ে চোলে গেলো আমি বাড়ি গিয়ে দেখলাম বাবা নেই।আমি আর খেলা ধুলা কিছুই করলাম না শুধু ভাবতে লাগলাম বাবা কখন আসবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *