স্বামী স্ত্রী আর বন্ধু জয় – ১০

বাড়ি এসে দেখি বাবা নেই দৌড়ে শিপ্রা কাকি দের বাড়িতে গেলাম কাকিমাকে দেখতে পেলাম না কেউ নেই বাড়ি। আমি রাস্তা দিয়ে আসছি হটাৎ হারান কাকু বললো কি রে তুই এখানে কি করছিস আমি বললাম যে বাবাকে ঘরে দেখতে পাচ্ছি না। মানে তুই কিছু জানিসনা আমি জিজ্ঞাসা করলাম কি জানি না তুই কাল থেকে কোথায় ছিলি তোর বাবার কাল হটাৎ খুব শরীর খারাপ করেছিল ঘর থেকে জোরে জোরে গোগাছিলো শিপ্রা খাবার দিতে এসে তোর বাবার এই অবস্থা দেখে হসপিটালে নিয়ে গাছিলো সাথে সাথে তোর বাবার মৃত্যু হয় সিপ্রারা এখনো হসপিটালে তোর জন্য অপেক্ষা করছে। আমি কি শুনছি এ আমার সাথে কি হচ্ছে। ভগবান আমার সাথে এটা কি করছে কিছু ভেবে পাচ্ছিলাম না। কোথায় যাবো কি করবো আমি কিছু ভেবে পাচ্ছিলাম না আমার দুনিয়া যেন পাল্টে যাচ্ছে।
আমি মদ খাওয়া মাতালের মতো জানো টোলছি আমি যেনো এখুনি মরে যাবো মনে হচ্ছে।বুকের ভিতরে যেন কেও হাতুড়ি দিয়ে জোরে জোরে বাড়ি মারছে। আমি তাও কোনোরকমে বসে উঠে হসপিটাল যাচ্ছি। বাস থেকে নেমে আমি রাস্তা পার হচ্ছিলাম হটাৎ একটা মারুতি এসে আমাকে ধাক্কা মারলো আমি রাস্তায় পড়ে গেলাম আমার মাথা ফেটে গেলো হাত অনেকটা কেটে গেলো।তাও আমি কিছু বুঝতে পারছি না আমাকে বাবার কাছে যেতে হবে বলে আমি উঠে মারুতির ড্রাইভার কে সরি বোলে চোলে যাচ্ছিলাম তারপর আমার কিছু মনে ছিল না।
আমার জ্ঞান ফিরলো আমি হসপিটালের বেড়ে শুয়ে আছি উঠেই আমি শিপ্রা কাকি মাকে দেখে বললাম আমি এখানে কি করছি। কাকি মার চোখে জ্বল আমাকে বলেছে যে আর একটু হলে তুই ও মারা যেতিস। আমি বললাম আর বেঁচে থেকে কি লাভ হবে বলো বাবা মা দুজনকেই একসাথে হারালাম আমি। কাকিমা বললো কি বলছিস আমি তখন সব খুলে বললাম।
কাকি মা চোখ মুছতে মুছতে বললো।আমার জীবনেআমি এমন ঘটনা কোনোদিন দেখিনি বা শুনি নি। যাই হোক আজ তিনদিন হয়ে গেলো তোর বাবাকে কোল্ড রুমে রাখা আছে ওনাকে নিয়ে সোসানে যেতে হবে তুই ছিলোনা বলে আমরা নিয়ে যায়নি। আমি যায় ডক্টর এর কাছথেকে পারমিসন নিয়ে আসি। কাকি মা ডক্টরের কাছে গিয়ে পারমিসন নিয়ে এসে বাবার লাশটাকে বাড়ি নিয়ে চান করিয়ে আমাকে সাথে নিয়ে। সসানে গেলাম মা কে যেই খানে পড়ানো হয়েছিল ঠিক সেই খানই বাবা কে পড়ানো হলো আর একই যায় যায় পিন্ডি দান করা হলো। এর পর দুই দিন কেটে গেলো।
শিপ্রা কাকিমা আমাকে ভাত দিয়ে যায় কিন্তু ওরা তো আমার নিজের কেও নয় তার পরও ওরা যা করছে আমি ওদের কাছে চিরো কৃতজ্ঞ। কাকি মা আমাদের বাড়ি এসে আমাকে একটা খাতা দিয়ে গেলো আর বললো যে এর সাথে কুড়ি হাজার টাকা ও ছিলো কিন্তু হসপিটালে খরচা হয়ে গ্যাছে। যেটা তোর বাবা তোকে দিতে বলেছিল। আমি বললাম ঠিকআছে কাকি মা কোনো ব্যাপার না আর দাড়াও আমি আরো দশ হাজার টাকা কাকি মার হাতে দিয়ে বললাম তোমাদের এই উপকার আমি কোনোদিন ভুলতে পারবো না। তারপর আমি আমার মার ডাইরি টা খুলে পড়ছিলাম।
ওতে লেখা ছিলো। দেব যখন তুমি আমার এই ডাইরি টা হাতে পাবে হয় তো আমি এই দুনিয়ায় থাকবো না। তোমার বাবা কে দ্যাখো ও খুব ভালো মানুষ ওর মতো ভালো মানুষ তুমি দুনিয়ায় খুঁজে পাবে না। আমাদের দুজনের আলাদা হবার কারণ তোমার জানা দরকার।তোমাকে না জানালে আমি মোরেও শান্তি পাবনা। তোমার বাবা আর আমি খুব সুখেই ছিলাম।
আমাদের যৌন জীবন অতটা সুখের না থাকলেও আমরা একে অপরকে খুব ভালো বাসতাম। তোমার বাবা আমাকে খুব খুব ওর জীবনের থেকে ভালো বাসতো। তোমার বাবার ভালোবাসা আমাকে মুগ্ধ করেছিল।আমি যে ওকে কতটা ভালো বাসতাম আর আজো কতটা বাসী সে আমি ছাড়া অন্য কেউ জানেনা আমার জবনের প্রতিটা কোনে ওর ভালোবাসা।আছে আর থাকবে তোমার বাবাকে এটা বলো না। আমি মনে মনে ভাবলাম কি আর বলবো মা তোমার সাথে বাবাও আমাকে ছেড়ে চোলে গেলো।
যাই হোক আবার পড়তে শুরু করলাম। তার পর যখন তোমার বাবার একসিডেন্ট হয় তুমি তখন তিন মাস পেটে।কি করবো কোথায় যাবো কিছু ভেবে পাচ্ছিলাম না। আমার কাছে পয়সাও ছিলো না তাই তোমার বাবার বন্ধুর কাছে সাহায্য নিতে হলো এটাই আমার জীবনের ভুল। তোমার বাবার বন্ধু নির্মল আমাদের কে সাহায্য করলো টাকা পয়সা আর সময় ও দিলো।
তার পর ডক্টর সার্টিফিকেট দিলো যে তোমার বাবা একদিক থেকে পঙ্গু হয়ে গেছে। সঞ্জয় এর একটা কোষ গোলে নষ্ট হয়ে গ্যাছে। তুমি তখন আমার পেটে আমি সঞ্জয় কে কিছু বললাম না। ছয় মাস লাগলো তোমার বাবা কে নরমাল হতে তার পর তুমি হলে আমরা একসাথে তোমার নাম রাখলাম দেবনাথ আমরা খুব সুখি ছিলাম তার তিনমাস পর যখন তোমার বাবা আমার সাথে সঙ্গম করতে চাইছিল কিন্তু পারলো না বার বার বার্থ হবাতে ও আমি ওকে কিছু বললাম না ।
আমাকে না জানিয়ে তোমার বাবা হসপিটালে গাছিলো। সন্ধ্যা বেলা মুখ মরা করে বাড়ি এসে চুপ করে বসে আছে।আমি ওকে জিজ্ঞাসা করলাম কি হয়েছে আমাকে একটা টেনে জোরে চড় মারলো সেই প্রথম তোমার বাবা আমার গাই হাত তুললো আমার জীবনে আমি এরকম আসা করি নি। আমাকে জিজ্ঞাসা করলো তুমি জানতে তো আমার কি হয়েছে তো বলোনি কেনো। কি ভাবে তুমি আমার সাথে লুকোলে। কিভাবে তুমি নরমাল আছো। তার পর থেকে তোমার বাবা আমার সাথে খুটি নাটি যোগড়া করতো আমাকে কখনো কখনো গায়ে হাত তুলতো তাও আমি সঞ্জয় কে ছাড়ার কথা স্বপ্নেও ভাবি নি।
তোমার বাবা আমাকে সন্ধেও করতে শুরু করে। বলে নাকি আমার সাথে অন্য কারোর সম্পর্ক আছে। আমার খুব রাগ হতো তাই আমিও তোমার বাবার সাথে যোগড়া করতাম। তাও আমি তোমার বাবাকে খুব খুব ভালো বাসতাম আমি জানি ও আমাকে যতই মারুক যতই বদনাম দিক ও আমাকে খুব ভালো বাসে। তাই চুপ চাপ ছিলাম যতই বলতো যে চলে যাও আমি চলে যেতাম না। তোমার বাবার বন্ধু নির্মল তোমার বাবার সব কোথায় জানতো। আমি ওকে কোনোদিন ওই চোখে দেখিনি শুধু বন্ধুর চোখে দেখিছি।কিন্তু নির্মল আমাকে ভালো বেসে ফেলেছিল ও আমার প্রতি লোভ দিতে শুরু করে আমি জানতাম না।
যখন তোমার বাবা আমার সাথে ঝগড়া করতো নির্মল আমাকে এসে সান্তনা দিতো আর যেকোন অছিলায় আমার গায়ে হাত দিতো।আমি বুঝতে পেরে ওকে আমার থেকে দূরে থাকতে বলি নির্মাল তখন আমাকে i Love you বলে আমি একটা চড় মারি আর বলি বেরিয়ে যাও। ও আমার হাতে পাই পরে আমার শরীর এ স্পর্শ করে আমার রাগ হচ্ছিল আরো একটা থাপড় বসেই দিলাম।
নির্মল চোলে গেলো তার দুই দিন পর তোমার বাবা আমাকে আবার মারলো।সেইদিন নির্মল আবার এসেছিল আমাকে সান্তনা দিলো আর আগের দিনের জন্য সরি চাইলোআমি আর কি করি। মাপ করে দিলাম। কিছুদিন পর দুর্গা পুজো এসে গেলো পুজো আমাদের ভালো কাটলো। দশমীর দিন সারা দিন কাজ বাজ করে আমার সারা শরীর ব্যাথা হয়ে গেয়েছিল।
নির্মল ও এসেছিল আমাদের বাড়ি আমি ওকে বললাম নির্মাণ আমার গা হাত পা খুব ব্যাথা করছে। একটু ওষুধ এনে দেবে? সঞ্জয় তো রাত দশটায় ফিরবে তখন দোকান বন্ধ হয়ে যাবে। নির্মল বললো যে এখুনি এনে দিচ্ছি। বোলে চোলে গেলো আমি ডাকলাম পয়সা নিয়ে যাও ও বললো আমাকে পয়সা দেবে?। ঠিক আছে নিয়ে এস তারা তারই এস কিন্তু ।
কিছুক্ষন পর নির্মল এলো ওষুধ নিয়ে তিনটা ট্যাবলেট দিলো আমার হাতে দুটো ট্যাবলেট দিয়ে তখন খেতে বললো আর একটা এক ঘণ্টা পর। আমি দুটো ট্যাবলেট খেয়ে নিলাম আমার গা ব্যাথা একদম কমে গেলো এক ঘণ্টা পর আমি আর একটা ট্যাবলেট খেলাম শেষের ট্যাবলেট খাবার পর আমার কেমন কেমন হচ্ছিলো। আমার মন উতলা আর গরম হয়ে গেয়েছিল যেনো জ্বর এসেছে আমার আমি ছটফট করছিলাম তার কিছু খন পর নির্মল এলো আমি খাটে শুয়ে ছিলাম নানা অছিলায় আমার শরীর স্পর্শ করছিল।আমার কি হচ্ছিল আমি জানি না কিন্তু নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারছিলাম না নির্মল যখন আমাকে কিস করছিল আমাকে আমি আর নিজেকে ধরে রাখতে পারিনি।
সেই দিন আমি ওর কাছে ধরা দিয়েছিলাম। আমি পাগল হয়েগেছিলাম । আমরা এতটাই মত্ত হয়ে গেছিলাম যে জানি না খোকন রাত দশটা বেজে গাছিলো তোমার বাবা এসে আমাদের নগ্ন অবস্থায় দেখে আমাকে সেই রাতে তাড়িয়ে দিয়েছিল আমার অবস্থা একটু বোঝার চেষ্টা করিনি তোমাকে আমার কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছিল।
আমি পায়ে পড়াতেও তোমাকে দেয়নি। তার পর ও আমি তোমার বাবা কে বোঝানোর চেষ্টা করেছিলাম তোমার বাবা আমাকে আপন করে নেই নি। নির্মল আমার পায়ে হাত দিয়ে ক্ষমা চাইলো আর আমাকে বিয়ে করার জন্য প্রস্তাব দিলো। তাও তোমার বাবার জন্য এক বছর অপেক্ষা করেছিলাম ও আসে নি আর আমি গেলে দূর দূর করে তাড়িয়ে দিতো। আমাকে একা পেয়ে লোকে রা খারাপ নজরে দেখতো। বাদ্ধ হয়ে আমি নির্মল কে বিয়ে করি। কিন্তু আমি আর কোনো সন্তান নেই নি শুধু তুমি আমার সন্তান আর তুমি থাকবে।নির্মল আমাকে এখনো ভালো বসে।আর আমি ভালোবাসি তোমার বাবা কে। ইতি তোমার মা। পারলে আমাকে ক্ষমা করে দিও আর তোমার বাবার খেয়াল রেখো।
ডাইরিটা পড়ে আমি আমার কান্না পাচ্ছিল।অনেক্ষন কেঁদে নিলাম আর মার প্রতি শ্রদ্ধা আমার প্রচুর পরিমানে।বেড়ে গেলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *