বোন কান্তা ও আম্মুর সাথে আমি – পর্ব ১

বোন কান্তা ও আম্মুর সাথে আমি।
সন্ধার আকাশে মেঘ জমেছে এক সাথে। মেঘগুলির আলিংগনে ও ভালবাসার উত্তাপে মেঘগুলি আর স্তীর থাকা সম্ভব নয়। অঝোর ধারায় বৃস্টির নামে কল কল করে নিচে পড়ছে। বৃস্টির সাথে মানুষের অনেক মহব্বত আছে। একটি আকর্ষন আছে। গম্বির হয়ে যায় মন, প্রেমিক প্রেমিকার মন চুয়ে যায় অজানা এক আকর্শনীয় লোভাতুর চাওয়ায়।, চুয়া পেতে চায়। কাছে টানে।
আমি ২৩ বছর বয়সের যুবক। আমার আজ মনটা কেমন করছে। বারান্দায় বসে বসে নিতর দেহে বৃস্টির খেলা দেখছি। মন জুড়ে চিনচিন করছে। বড়ই একা লাগছে। কিছু একটা আমার নেই। আমার কিছু একটা চাই।
ভাইয়া কি করছিস?
আমি হম্বিতম্বি করে চেয়ে দেখি আকাশী-নীল টিশার্ট পড়ে আমার গা ঘেষে দাঁড়িয়ে আছে আমার ছোট বোন কান্তা। আমি মুখ তুলে বলি বসে আছি। বৃস্টি দেখছি।
তা আমি দেখছি ভাইয়া কিন্তু তোমাকে খুব বিষন্নতা একাকীত্বের ভেতর ডুবে থাকা মনে হচ্ছে। তোমাকে আমি অনেক বার বলেছি, জলি আপার আহবানে সাড়া দাও। জলি আপা তোমার জন্য পাগল। দুইজনে বসে বৃস্টির খেলা দেখতে খুব মজা পাবে।
কান্তা আমার দুই বছরের ছোট। ভীষন চটপটে হাসিখুশি মেয়ে। পাতলা গড়নের লিকলিকে শরীর। যেমন সুন্দরী তেমন লেখাপড়াতেও খুব ভাল। আমি জিবনেও কান্তার সাথে কথায় জয়ী হতে পারিনা। কান্তা কথার সাথে কথা মিলিয়ে খুব সাবলিল ভাবে কাবু করে দেয়। আমাদের মাঝে খুব মিল। ভাই বোনের সম্পর্ক হলেও তুই তুকারী সম্পর্ক। বাহিরে গেলে কেও বুঝতেই পারেনা যে আমরা ভাই বোন। সবাই মনে করে বন্ধু। কান্তা জলিকে খুব ভালবাসে তাই কান্তার আশা আমি জলির সাথে প্রেম করি। জলিও অনেকদিন যাবৎ আমার সাথে সম্পর্ক করতে চেস্টা করে যাচ্ছে।
আমি প্রায় এক বছর ইয়াবা আসক্ত ছিলাম। কান্তার কারনেই আমি সেখান থেকে ফেরত এসেছি। কান্তা আমাকে খুব ভালবাসে। মা আমার নারী আন্দোলন করে যা আমার পছন্দ নয়। নিজেকে প্রচার আর প্রসার করায় আম্মা খুব ভালবাসে তাই নিজের টাকা খরচ করে আন্দোলন করে কিন্তু নিজের অনেক ভুল নিজেই দেখেনা। সন্তানের উপড় অধিকার আছে তবে তাদের দেখার সময় উনার নাই। আমরা ভাই বোন ছোট থেকেই কেয়ার করিনা আম্মাকে।
আব্বা খুব ব্যাস্ত ব্যাবসায়ী মানুষ। তিনি আমাদেরকে টাকা দিলেই সব দায়িত্ব শেষ এমন ধারনা পোশন করেন। দেশ বিদেশ ঘুরে বেড়ায়। মা বাবার মধ্যে তেমন কেমেস্ট্রি আছে বলেও মনে হয়না।
আমরা দুইজন নিজেদের ভুবন সাজিয়ে রেখেছি। আড্ডা মারা, বাহিরে যাওয়া, ঘুরে বেড়ানো সব আমরা এক সাথেই করি।
কান্তা আমার ঘাড়ে হাত রেখে বলে, ভাইয়া জলি আপা খুব ভাল মেয়ে। তোমাকে সুখি রাখবে। হ্যা বলে দাও। আমি ফোন করে দেই দেখবে এই বজ্রপাতে কাক ভেজা শরির নিয়ে তোমার কাছে হাজির হয়ে যাবে।
কাকা ভেজা শরির দিয়ে আমি কি করবো?
কি বল ভাইয়া, মোস্ট রোমান্টিক দৃশ্য হল মেয়েদের ভেজা শরির।
তুই এত কিছু জানিস কি করে?
কেন ভাইয়া, আমি কি ফিডার খাই। আমি এখনো বাচ্চা নাকি?
তুই কি কারো জন্য ভিজিস নাকি?
ভাইয়া, সিরিয়াল আছে না। তুমি শুরু করলে আমি চেস্টা করতাম। তোমার জন্যই আমি কিছু করতে পারছিনা।
তোরে কে বাধা দিচ্ছে। যা খুশি কর।
কি বল? বিয়াদবি হয় না। দুনিয়াতে তুমি আগে আসছো তাই তোমার আগে কিছু করতে হবে।
না রে, আমার এই কমিটমেন্ট কমিটমেন্ট খেলা ভাল লাগে না। মা বাবার আচরণ দেখে এই খেলার প্রতি মন নেই।
ভাইয়া সেটা তাদের ব্যাপার। তাই বলে কি আমরা সেটা দেখে এখন নিজেদের কস্ট দেব? ওদের মাঝে ভালবাসা ছিল আর সেটার প্রমান তুমি আর আমি। বাবা গরিব ছিল তাই টাকার অভাব দুর করতেই টাকার প্রতি আগ্রহ বেশী। আম্মা আব্বার জন্য ঠিক নয়। তাই বলে কি আমরা ভুল করবো?
এত কিছু ভাবিস কি করে? তোর কেও থাকলে বল। বিয়ে দিয়ে দেই।
ভাইয়া, আমি তোমার চিন্তা করি। তুমি এত হ্যান্ডসাম একজন মানুষ। আর তোমার গার্লফ্রেন্ড নাই। কি করে হয়। তোমার দিকে সব মেয়ে চেয়ে থাকে হা করে তুমি কি জান?
তাই, তুই কি এই সব দেখে বেড়াস নাকি? আমি হয়তোবা দেখতে ফানি কার্টুন তাই সবাই দেখে।
না ভাইয়া, তুমি ফানি না তুমি তাদের কাছে হানি। ওরা তোমায় দেখে দেখে গিলে খায়।
যা কি বলছিস।
ভাইয়া তুমি আসিলেই খুব হ্যান্ডসাম কিন্তু সেই ফিগারটাকে কাজে লাগাচ্ছনা। ইচ্ছা করলে অনেক মজা করতে পার।
কি করে?
একটু এফোর্ট দাও দেখবে প্রতিদিন তুমি বেড ডেটিং করতে পারবে।
তুই কি করছিস নাকি এসব।
আমি কোথায় পাব। কেও আমাকে পছন্দই করেনা। সব সময় তোমার সাথেই থাকি। অপরিচিত সবাই মনে করে তুমি আমার বয়ফ্রেন্ড।
ভাই বোন হলেওতো আমরা ফ্রেন্ডেরর মতই চলি।
ফ্রেন্ডের মত কিন্তু বয়ফ্রেন্ড না ভাইয়া। তবে তুমি আমার ভাইয়া না হলে জোর করে হলেও তোমাকে বয়ফ্রেন্ড বানিয়ে নিতাম। যেকোনো মেয়ে তোমার জন্য পাগল হবে ভাইয়া। বলে আমার পেছেন থেকে আমার গলা পেছিয়ে ধরে পিঠে ছোট ছোট দুধের চাপ দিয়ে বলে তুমি একটা হানক ভাইয়া।
আমি বাধা না দিয়ে বসে থাকি। আর কান্তা আমার বুকে হাত বুলিয়ে দিয়ে বলছে জলি আপা তোমার এই সুটাম দেহের পাগল ভাইয়া। হাত বাড়িয়ে দাও। ইঞ্জয় কর।
কান্তার হাত যেন থামছেই না। কেমন যেন কামুকী হয়ে খেলা করছে কান্তার হাত। আমার শরীরে তৈরি হচ্ছে এক ধরনের কেমিস্ট্রি। চোখ বন্ধ হয়ে আসছে আরামে।
আমি হাত ধরে ছাড়ানোর চেস্টা করে বলি কিরে তোর কি হয়েছে। তুই কি জলি হয়ে গেছিস নাকি। যেভাবে হাত দিচ্ছিস যেন তুই নিজেই জলি।
কেন ভাইয়া, আমাকে কি জলি আপা মনে হচ্ছে। আমিতো জলি আপার মত সেক্সি না।
কে বলছে তুই অনেক সুন্দরী। কে আছে তোর মত এত সুন্দর।
আমি যদি তোমার বোন না হতাম তুমি কি আমার সাথে প্রেম করতে।
অবশ্যই করতাম। তোর মত রূপবতী রাজকন্যা পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার।
কান্তা চট করে আমার সামনে এসে বসে আমার দুই পায়ের ফাকে। আমার দিকে চেয়ে থেকে বলে ধন্যবাদ ভাইয়া, তোমার কাছ থেকে কম্পলিমেন্ট পেয়ে আমি অনেক খুশি। ইউ ডিজার্ভ এ কিস ফ্রম মি। বলেই আমার টোঠে কিস করে দেয় আমি কিছু বোঝার আগেই।
কি করছিস কান্তা,
কেন ভাইয়া ভাল লাগেনি।
ভাইবোনে লিপ টু লিপ কিস দেয় নাকি?
কুইক হয়। নো প্রবলেম ভাইয়া। বলে আমার মুখের খুব কাছাকাছি মুখ রেখেই কথা বলছে।
সত্যি বলতে কি আমার ভালই লেগেছে। কান্তা যেমন বুঝে গেছে সেটা তাই চট করে বলে ঊঠে ইউ ইঞ্জয় ইট ভাইয়া।
তুই চট করে আমার ঠুটে ঠুট রাখলি সেটা আবার ইঞ্জয়ের কি আছে।
কুইক হওয়ার কারনে ইঞ্জয় করতে পারনাই সেটা বল। নো হার্ম ভাইয়া। You want to enjoy a fress kiss from me. বলেই আবার আমার ঠুটে ঠুট লাগিয়ে ধরে রাখে। আমিও সাড়া না দেওয়ায় ঠুট চেপে রেখেই বলে মুখটা একটু ইজি কর।
আমি আমার ঠুট ইজি করে দিতেই কান্তা চুসার মত ফ্রেন্স কিস দিয়ে চুসতে থাকে। আমি ছাড় ছাড় করে যাছছি কিন্তু কথা আসছে না। কান্তার নরম জিহভা প্রবেশ করে দেয় আমার মুখে। আমি আর থাকতে না পেরে কান্তাকে সাড়া দিয়ে দেই। বেশ কয়েক মিনিট আমরা এইভাবেই করতে থাকি। হঠাৎ আমার হিতাহিত জ্ঞ্যান ফিরে আসলে আমি মুখ সড়িয়ে বলি এই কান্তা কি করছিস এগুলি। যা তোর রোমে যা।
কান্তাও কেমন লজ্জায় মুখ লাল করে। আমার দিকে চেয়ে বলে সরি ভাইয়া। উঠে দাড়িয়ে রোমে চলে যায়। আমি সেখানে বসে থাকি অনেক্ষন।
কাজের মেয়ে ডাকে সাড়া দিয়ে খাবার খেতে যাই। কান্তা আজ খাবেনা তাই আমি একাই খেয়ে রোমে গিয়ে ঘুমিয়ে যাই।
কান্তার সাথে আমার দেখা হয়না আজ দুইদিন। লজ্জায় আমিও দেখা করার ইচ্ছা করিনি কিন্তু আজ আমাদের নানীকে দেখতে যাওয়ার কথা এবং খালাতো ভাইয়ের বিয়ের ব্যাপারে আমাদের অনুস্টানের পরিকল্পনা নিয়ে সকল আত্বীয়স্বজন নিয়ে মিটিং আছে সন্ধায় খালার বাসায়। কান্তার মোবাইলে টেক্সট দিয়ে আমাকে জানিয়ে রেখে বলে সে খালার বাসায় চলে যাবে যেন আমি মিস না করি কিন্তু নানীর বাসায় সে যাবেনা।
আমি নানীর বাসা থেকে খালার বাসায় গিয়ে দেখি সবাই বসে আছে। আমাদের মিটিং শেষ করে রাত ১২টায় হোভার ডেকে বাসায় আসি। প্রায় সবাই গাড়ি নিয়েছিল কিন্তু কান্তা কারো লিপ্ট নিতে নারাজ।
বাসায় এসে যার যার রোমে চলে যাই। আম্মা জানতে চাইলো মিটিং কেমন হল এবং আমরা কি কি করবো। আমরা দুইজনই কালকে বলবো বলে বিদায় নেই। আম্মা শুধু বললো আগামী কাল আমরা কক্সবাজার যাব তোরা কি যেতে চাস নাকি? আমি বললাম না। কান্তা জবাব না দিয়ে চলে যায়।
আব্বা আম্মা দুপুরের ফ্লাইটে কক্সবাজার চলে গেলে আমি আর কান্তা বাসায় বসে আছি তখন কান্তা বলে ভাইয়া চল আজ আমরা বাহিরে ডিনার করি। আমি রাজি হতেই কান্তা ধন্যবাদ দিয়ে কাজের মেয়েকে বলে আমরা রাতে খাবনা আজ। তুই ইচ্ছা করলে ছুটি নিতে পারিস। কালকেও আমরা থাকবোনা।
আমাদের আগেই কাজের মেয়ে চলে যায় তার স্বামীর বাসায়। আমরা বিকালে বাহির হই ডিনারের জন্য। কান্তা ইচ্ছা করে খুব সুন্দর একটা ড্রেস পরে। দেখতে খউব সুন্দর লাগছিল। ড্রেস দেখে কেউ বলবে না আমি তার ভাই। ভাইয়ের সাথে ডিনার করতে যাচ্ছে।
কান্তার চেয়ে থাকা যেন আমার ভাল লাগছে না। কি যেন সে বলতে চায়। কি যেন লুকিয়ে আছে কান্তার ভেতরে।
ভাইয়া তুই আমার প্রতি রেগে আছিস। সেটা কিন্তু একটা ফান ছিল। কেমন করে যেন একটু বেশি হয়ে গেল। তাই না। সরি ভাইয়া।
বাদ দে সেই কথা। আমরা তো ভাই বোন কিন্তু বন্ধুও বটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *