দুই অপ্সরা: মেনকা ও উর্বশী-৩

শ্রাবণী নিজেই আমার কথার জবাব দিল, “সুবীরদা, আমি এবং আমার হাসব্যাণ্ড দুজনেই আধুনিক বিচারধারা পোষণ করি! তাই আমি সিন্দুর পরায় বিশ্বাস করিনা। আমার হাসব্যাণ্ড সেটাই পছন্দ করে। সে চায় লোকে আমায় দেখে অল্পবয়সী অবিবাহিতা নবযৌবনা মনে করুক এবং আমাদের দুজনকে স্বামী স্ত্রী না ভেবে প্রেমিক প্রেমিকা ভাবুক!
জানো সুবীরদা, আমরা দুজনেই নিজের পছন্দের কোনও বিপরীত লিঙ্গের মানুষের সাথে মেলামেশা করলে পরস্পরের কোনও বাধার সৃষ্টি করিনা। আমি আমার পছন্দের অন্য যে কোনও ছেলের সাথে শারীরিক সম্পর্কে জড়ালে আমার হাসবাণ্ড সেটা সমর্থন করে। ঠিক তেমনই সেও অন্য কোনও সুন্দরী মেয়ের সাথে যৌনসম্পর্ক করলে আমি বাধা হইনা।
শরীরের গঠন ঠিক রাখার জন্য আমি নিয়মিত জিমে ব্যায়াম এবং ডায়েটিং করি। এবং একটা নিয়ম আমি খূবই কঠোর ভাবে মেনে চলি। আমি কোনও পুরুষকেই আমার স্তন টেপা, মোচড়ানো বা কামড়ানোর অনুমতি দিইনা, শুধু হাত বুলানো বা চোষার অনুমতি থাকে। যার ফলে আমি এখনও অবিবাহিতা নবযুবতীদের মত ৩২বি সাইজের ব্রা পরি। আমার হাসব্যাণ্ডও আমার স্তনদুটির ভীষণ যত্ন করে, তাই সে নিজেও ঐগুলো টেপে বা মোচড়ায় না!
দাদা, প্রথম দেখাতেই আমি তোমার ফ্যান হয়ে গেছিলাম আর তোমায় পেতে চাইছিলাম। আমি অপর্ণাকে আমার মনের ইচ্ছে জানাতে সে বলেছিল সে তোমার পূর্ব্ব পরিচিত। সেও আমার মতই তোমার সানিধ্য পেতে চায় কিন্তু জানাজানির ভয়ে এতদিন দ্বিধা করছিল। তখন আমিই তাকে বলেছিলাম সুবীরদা কখনই এত বোকা হতে পারেনা যে আমাদের মত দুটো তরতাজা বৌ ভোগ করার পর তার বন্ধু বা তার ভাই (আমার হাসব্যাণ্ড) কে সেই ঘটনার বর্ণনা জানাবে! আচ্ছা বলো, সুবীরদা আমি ঠিক বলেছিলাম ত?”
আমি নির্বাক শ্রোতা হয়ে শ্রাবণীর দীর্ঘ বক্তৃতা শুনছিলাম। আমি কখনই ভাবতে পরিনি শ্রাবণীর মত সুন্দরী নবযৌবনা আমার সানিধ্য পেতে চায়। তার সাথে আবার সেক্সি অপর্ণাও যোগ দিয়েছে!
আমি কথা না বলতে পারলেও ততক্ষণে শ্রাবণীর কথা ও তার দাবনার উষ্ণ স্পর্শে পায়জামার ভীতর আমার যন্তরটা মাথা তুলতে আরম্ভ করে দিয়েছিল।
আমি সাহস করে দুহাতে শ্রাবণীকে জড়িয়ে ধরে বললাম, “শ্রাবণী, তুমি অপর্ণাকে একদম খাঁটি কথা বলেছ! আমি কি পাগল না আমার মাথা খারাপ, যে তোমাদের দুজনের মত যৌবন উদ্বেলিত শরীর ভোগ করার পর সেই সুখের কথা আমার বন্ধু বা বন্ধুর ছোটভাইকে জানিয়ে নিজেই নিজের পায়ে কুড়ুল মারার বোকামি করবো? একবার খেলার সুযোগ পেলে আমি সেই সুযোগ আবার এবং বারবার পেতে চাইবো! অপর্ণা, তুমি নিশ্চিন্ত থাকো, আমাদের মেলামেশা তোমার বর বা ভাসুর কেউই কোনওদিন জানতে পারবেনা।”
আমার কথা শুনে অপর্ণা আশ্বস্ত হয়ে বলল, “জানো সুবীরদা, শ্রাবণী আমায় গতকাল সকালেই তোমার সাথে আলাপ করানোর অনুরোধ করেছিল। শ্রাবণীর সাথে আমার সেই কথোপকথন আমি রেকর্ড করে নিয়েছিলাম। দাঁড়াও, আমি তোমায় শোনাচ্ছি!”
এই বলে অপর্ণা ব্যাগ থেকে ফোন বার করে আমায় সেই কথোপকথনটা শুনিয়ে দিল যেটার বর্ণনা আমি কাহিনির প্রথমেই দিয়েছি। আমার বুঝতে একটুও অসুবিধা হয়নি যে এই দুজন ছুঁড়ি পুরো প্ল্যান মাফিক আমার কাছে এসেছে।
অপর্ণা আর শ্রাবণীর কথা শুনে জাঙ্গিয়ার ভীতরেই আমার বাড়ার ঢাকা গুটিয়ে গেছিল। যেহেতু অপর্ণা আমার বন্ধুর ছোট ভাইয়ের স্ত্রী, তাই তার উপস্থিতিতে শ্রাবণীর শরীরে হাত দিতে আমার একটু দ্বিধা হচ্ছিল।
আমি মনে মনে চিন্তা করলাম অপর্ণা আমার পরিচিতা হলেও সেও ত আমার কাছে শ্রাবণীর মতই ফুর্তি করতে চাইছে এবং আমি ত আগেই আমার প্রতি তার আড়ষ্টতা এবং ভয় দুটোই কাটিয়ে দিয়েছি। অতএব এই দুই সুন্দরীকে ভোগ করার সুযোগ হারানোর আর ত কোনও মানেই হয়না। তাছাড়া লেগিংসের ভীতর দিয়েই অপর্ণার দাবনা দুটি যে ভাবে ফুটে বেরিয়ে আসছিল, আমার পক্ষে ঐ দাবনাদুটির খাঁজে মুখ না ঢোকাতে পারা অসহয়নীয় হয়ে উঠছিল।
ততক্ষণে আমার পাশে বসে থাকা শ্রাবণী ডান হাত দিয়ে পায়জামার উপর দিয়েই খপাৎ করে আমার বাড়া ধরে বলল, “ও সুবীরদা, তোমায় আর কি ভাবে বোঝাতে হবে, বল ত? তুমি কি অপর্ণা জন্য এত আড়ষ্ট হয়ে আছো? তোমার কলাটা একটু বের করো, না! দেখি, তোমার জিনিষটা কেমন!
সেদিনেও ত বাইকে বসে আমি ইচ্ছে করেই বারবার তোমার কলায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছিলাম! তুমি কি সেদিন বুঝতে পারোনি? না কি বুঝেও না বোঝার ভান করে ছিলে? শোনো সুবীরদা, নারী আর পুরুষের পরস্পরের প্রতি আকর্ষণ প্রাকৃতিক এবং স্বাভাবিক। তাই আমরা বিবাহিতা বলে অন্য কোনও পুরুষের শরীরের প্রতি আমাদের আকর্ষণ থাকবেনা বা থাকতে নেই, সেটা কিন্তু ভুল ধারণা।
আমি বেশ্যা নই, তাই টাকার বিনিময়ে পরপুরুষের কে আমার শরীর ভোগ করতে দিতে রাজী নই। আমি আগেই বলেছি, আমি স্বাধীন মনষ্কা নবযুবতী, তাই আমি আমার পছন্দের পরপুরুষের সাথে যৌনসঙ্গম করতে ভালবাসি এবং তার জন্য আমার হাসব্যাণ্ড কোনও বাধার সৃষ্টি করেনা।
তুমি নিজেই দেখেছো, অপর্ণার বর শারীরিক ও মানসিক ভাবে বুড়ো হয়ে গেছে, তাই আর তাকে অপর্ণার পাসে মানায় না। অপর্ণার ৩০ বছরের উদ্বেলিত যৌবন সামলাতে তার স্বামী অপারগ। জানি, তুমি অপর্ণার স্বামীর চেয়ে বয়সে বড় কিন্তু তুমি যে ভাবে তোমার যৌবন ধরে রেখেছ, তোমায় আমাদেরই সমবয়সী মনে হয়।
তাই তুমি নিশ্চিন্ত থাকো, অপর্ণা মুখে না বলতে পারলেও আমার মতই মনে মনে চায় যে তুমি তার উলঙ্গ শরীর ভোগ করে কামের জ্বালা মিটিয়ে দাও! এবং তুমি সেটা পারবে, কারণ আমি তোমার যন্ত্রটা হাতে ধরেই বুঝতে পেরে গেছি তোমার সেই ক্ষমতা আছে! এই অপর্ণা, তুই এই সোফাতেই সুবীরদার অন্য পাশে বস এবং আমার মতই তার দাবনা সাথে তোর দাবনা চেপে দে, তাহলে সুবীরদা আরো গরম হয়ে যাবে আর তোরও লজ্জা কেটে যাবে!”
শ্রাবণীর কথায় অপর্ণা একক সোফা থেকে উঠে এসে আমার দাবনায় নিজের দাবনা চেপে বসে পড়ল। শ্রাবণী অপর্ণার একটা হাত ধরে আমার বাড়ার উপর রেখে দিয়ে বলল, “অপর্ণা দেখছিস, সুবীরদার যন্তরটা কি বড় আর কাঠের মত শক্ত! ভাবতে পারছিস, এইটা আমাদের গহ্বরে ঢুকলে কতটা সুখ পাওয়া যাবে? এমন সুখ তোর বর আর দিতে পারবেনা রে!
দুই রূপসী নারীর নরম হাতের খিঁচুনি খেয়ে পায়জামার ভীতরেই আমার বাড়া টং টং করে উঠেছিল। আমি দুই নারীর কাঁধের উপর দিয়ে হাত বাড়িয়ে এক হাতে টী শার্টের উপর দিয়েই শ্রাবণীর ৩২বি সাইজের একটা মাই এবং অন্য হাতে অপর্ণার ৩৬বি সাইজের একটা মাই টিপে ধরলাম। শ্রাবণীর গোটা মাই পুরোপুরি ভাবে আমার মুঠোয় ঢুকে গেলেও বড় হবার কারণে আমি এক হাতে অপর্ণার একটা মাই ঠিক ভাবে ধরতে পারছিলাম না।
মাইয়ে চাপ পড়তেই শ্রাবণী ও অপর্ণা দুজনেই সীৎকার দিয়ে উঠল। শ্রাবণী বলল, “আঃহ সুবীরদা, সেদিন বাইকে বসে তোমার পিঠে আমার আমদুটো চেপে ধরতে যে কি মজা লাগছিল, আমি তোমায় বোঝাতে পারছিনা! সেদিনেও কিন্তু আমার আমের চাপে তোমার লাঠিটা বেশ শক্ত হয়ে গেছিল!
এই শোনো, তুমি কিন্তু এই প্র্থম আর শেষবারের মত আমার আম টিপলে! এরপর থেকে তুমি আমার আমদুটো শুধু চুষতে বা হাত বোলাতে পারবে, আর কিন্তু টেপার অনুমতি পাবেনা! আচ্ছা সুবীরদা, বলো ত, তোমার কোনটা বেশী ভাল লাগে – মেয়েদের বড় আম ….. নাকি ছোট আম?”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *