ছোটবেলার আন্টি আমার কামদেবী-সেক্স থ্রিলার পর্ব-২

আন্টির খোঁপাটা টেনে আমি আন্টির ঠোঁটে নিজের ঠোঁট মিলিয়ে দিলাম। প্রায় নয় বছর পুরোনো একটা কামনা আজ পূর্ণতা পাচ্ছে। আজ আর আন্টির পেনে আমার বীর্য মাখাতে হবে না আজ আন্টির যোনিতেই আমার পেনটা ঢুকিয়ে বীর্য ঢালব। ঠোঁটে ঠোঁটে চুম্বনটা আস্তে আস্তে গভীর হতে থাকল। আন্টির জিভ আর আমার জিভ মিলিত হল। দুজনের লালারস দুজনে চুষে খাচ্ছিলাম।
আন্টি একটু আগেই দুপুরের খাবার খেয়েছে তাই আন্টির লালায় একটু খাবারের গন্ধ মেশানো। তবে এটা আমার জন্য অমৃতই। আন্টির মুখের স্বাদ আমায় পাগল করছিল। আন্টির নাম মৌসুমী। ঠিক মৌসুমী বাতাসের মতোই আমার জীবনে এসেছিলো। সেই ছোটবেলা থেকে আজও আমায় ভিজিয়ে চলেছেন উনি। ওনার বাড়ি আমার বাড়ি থেকে মাত্র পাঁচ মিনিট। আমি ওনার বাড়িতেও এসেছিলাম ছোট বেলায়। কিন্তু ছোট ছিলাম তাই কিছু করতে ভয় পেতাম।
আমি সর্বদা চাইতাম উনিই আমার প্রথম হোক। উনিই নিজে আমায় যৌনতার সাথে পরিচয় করাক কিন্তু বাস্তবে সেরকমটা হয়নি। যদিও আমার হাতে খড়ি আমারই আরেক আন্টির কাছে কিন্তু তিনি স্কুলের তৃষা ম্যাম। এই প্রসঙ্গে পরে আসবো। ক্লাস সিক্সের পর থেকে আর পড়িনি মৌসুমী আন্টির কাছে। মাঝে মাঝেই পাড়ায় দেখা হত। একদিন হঠাৎ অনেক দিন পর দেখা হয়। আন্টি বাজার করে ভারী দুটো ব্যাগ নিয়ে ফিরছিলেন। একটু কষ্ট হচ্ছিল ওনার। আমি দেখতে পেয়ে ওনার একটা ব্যাগ ধরলাম। উনি অবাক হয়ে গেলেন। আমি বললাম, “চিনতে পারছেন?”
আন্টি, “হ্যাঁ অনেক বড় হয়ে গেছো যে!”
আমি, “হ্যাঁ এই আর কি এটা আমি ধরছি আপনার কষ্ট হচ্ছে।”
আন্টি, “না না কি কষ্ট, আমিই নিচ্ছি ”
আমি, “না না দিন না আমি ধরে দিয়ে আসছি বাড়িতে।”
আন্টি, “কষ্ট হবে তোমার শুধু শুধু!”
আমি, “এই বলছেন বড় হয়ে গেছি আবার বলছেন কষ্ট হবে?”
আন্টি, “বড় হলে কি কষ্ট হয় না?”
আমি, “তাহলে তো আপনারও কষ্ট হওয়াটা খুব স্বাভাবিক ”
আন্টি হেসে ফেললেন, “বাহ্! কথাবার্তায় বড় বড় ভাব এসেছে দেখছি!”
আমি হাসলাম। আন্টি, “কোন ক্লাস এখন?”
আমি, “সেকেন্ড ইয়ার”
আন্টি, “এত বড় হয়ে গেলি?”
আমি, “শরীর বড় হলে বড় তো হতেই হবে!”
আন্টি, “হ্যাঁ শরীরও টের বড় হয়েছে । জিমে যাস নাকি?”
আমি, “না না এই বাড়ি তেই টুকটাক।”
কথা বলতে বলতে আন্টির সাথে সাথে আমি ব্যাগ ধরে আন্টির বাড়ির দিকে যেতে থাকলাম। আন্টির বাড়িতে অঁনেকদিন পর আবার ঢুকলাম। আন্টি বলল, “বস খাটে, আমি আসছি।”
মনে পড়ল, এই ঘরেই আমি আগেই বসে পড়েছি। আন্টির এই খাটেও আমি হ্যান্ডেল মেরে চাদর করকরে করেছিলাম এক সময়। আন্টি কিচুক্ষন পর একটু মিষ্টি নিয়ে এলেন। তখন আন্টিও পশে বসে কথা বলেন। আন্টি আমায় বললেন মাঝে মাঝে আস্তে। আমি ও বললাম আপনার যখন যা অসুবিধা হবে বলবেন আমি চলে আসবো। আন্টি হেসে মাথা নাড়লেন। আসলে আন্টির অনেক আগেই ডিভোর্স হয়ে গেছে। এটা আন্টির বাপেরবাড়ি। আগে আন্টির অসুস্থ বাবা ও ছিলেন এখন বোধহয় মারা গেছেন, তাকে দেখলাম না। আন্টি এখন বাড়িতে একাই থাকেন। আমার বরাবরই আন্টির বিয়ে নিয়ে কৌতূহল ছিল তাই সেদিন জিজ্ঞাসাই করলাম, “আছে আপনার বর থাকেনা এখানে?”
আন্টি, “আমারতো কবে ডিভোর্স হয়ে গেছেরে। এখন একই থাকি”
আমি, “আপনার বিয়ে কবে হয়েছিল?”
আন্টি, “আমার তো লাভ ম্যারেজ ছিল। আমার তখন ২৩ বয়েস। বিয়ে করে নিয়েছিলাম পালিয়ে!”
আমি, “আপনি তো খুব সাহসী!”
আন্টি, “সাহসের কিছু নেই মূর্খামি ছিল”
আমি, “তারপর কি হলো?”
আন্টি, “বিয়ের পরপরই একটা মেয়ে হয়েছিল। তারপর থেকেই অশান্তি ঝগড়াঝাটি। আরো চার বছর কোনোরকমে ছিলাম তারপর আর পারলাম না।”
আমি, “আপনার মেয়ে?”
আন্টি, “ও বাবার সাথেই থেকে গেছিলো। আমার সাথে আসেনি। মাঝে মাঝে আসে দেখা করতে এখন।”
আমি, “ও”
আন্টি, “সব কৌতূহল শেষ?”
আমি লজ্জা পেয়ে, “আপনার একা একা লাগে না?”
আন্টি, “ও সয়ে গেছে। আগেতো বাবা ছিল এখনতো বাবা ও নেই।”
আমি ভাবলাম এই বিষয়ে আর কথা না বাড়ানোই ভালো। আমি বললাম, “আপনি ফেসবুকে আছেন?”
আন্টি, “না রে নেই ওসব কি আর আমাদের জন্য নাকি?”
আমি, “আপনাকে একটা ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খুলে দেব তাহলে আপনি যখন মনে হবে আমায় ম্যাসেজ করবেন। তাতে মন ভালো থাকবে!”
আন্টি, “মন কারাপ হলে তাহলে তোকে জ্বালাতে বলছিস?”
আমি হেসে, “না না তোমার আরো বন্ধু থাকবে তাদের সাথেও কথা বলবে।”
আন্টি, “আচ্ছা দিস খুলে। কিন্তু ওসব কি আর আমার দারা হবে?”
আমি, “কেন হবে না সবই বাবহার করে। কাল খুলে দেব তাহলে। আজ বাড়ি যাই দেরি হয়ে গেল।”
আন্টি, “আচ্ছা কাল আসিস। কখন আসবি?”
আমি, “ওই বিকেলেই ”
আন্টি , “আচ্ছা।”
আমি মনে মনে আন্টিকে লাগানোর সুযোগ করছিলাম। ফেসবুক খুলিয়ে কথা বলে আন্টিকে যদি রাজি করানো যায় তাহলে তো সোনায় সোহাগা। আর এই সুযোগ যে পেয়েও যাবো তা আমি তখন ভাবিনি। সেই সুযোগেরই দৌলতে আজ আন্টিকে আমি ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে মুখের ভিতর জিভ ঢুকিয়ে ডিপ কিস করে যাচ্ছি। এখন প্রশ্ন একটাই যে আমি কি করে আন্টিকে রাজি করলাম? আন্টি খুবই সুন্দরী ও ভালো ঘরের মেয়ে। সে কোনোই বা আমার মতন একজন উর্তী বয়সী ছেলেকে নিজের শরীর দেবে? এই রহস্যটাই আপনারা জানতে পারবেন এই গল্প চলতে চলতে!
জীবনে সবচেয়ে কাঙ্খিত কাজটি আমি করছিলাম। আন্টিকে চুম্বন করছিলাম। এরকম নয় চুম্বনটা এক তরফা ছিল। সেটা ছিল উভকামী। আন্টিরও সমান প্রতিক্রিয়া ছিল সেখানে। ঘাড় বেকিয়ে ঘাড় ঘুরিয়ে মাথা এদিক ওদিক করে চুমুটা চলছিল। আন্টি মাঝে মাঝে হাপিয়ে যাচ্ছিলেন, প্রতিক্রিয়া কমিয়ে দিচ্ছিলেন তখনি আমি আবার আন্টির খোপে চেপে আন্টির মুখ আমার মুখের ভিতর ঢুকিয়ে দিছিলাম। আন্টির নাক, চোখ, গাল আমার মুখের সাথে ঘষা খাচ্ছিলো।
আন্টি চোখ বন্ধ করেই ছিলেন। আমি মাঝে মাঝে চোখ খুলে তাকাচ্ছিলাম। আর দেখছিলাম আন্টির ঠোঁটের লেপ্টে যাওয়া লিপস্টিকের দাগ, ঘেটে যাওয়া চোখের কাজল। আমি দাঁত দিয়ে আন্টির নিচের পাতলা ঠোঁটটা কামড়ে কামড়ে ধরছিলাম। আন্টি বলে উঠল, “আঃ সুমন কামড়াস না প্লিজ।” এখনো আন্টি একটা হাত দিয়ে স্তনটা চেপে রেখেছে আর একটা হাত দিয়ে আমার মাথা ধরে আছেন। আমি যেই হাতটা দিয়ে আন্টির গলা ধরেছিলাম সেটা নামিয়ে আন্টির নাভির নিচে জড়িয়ে থাকা শাড়ীর ভিতর হাত ঢোকানোর চেষ্টা করলাম।
নাভির সামনে দিয়ে হাতটা গলিয়ে ভিতর এ ঢোকানোর জন্য চাপ দিলাম। আন্টি আমায় ছাড়িয়ে পিছনে সরার বৃথা চেষ্টা করলো। আমি খোঁপা ধরে চুমু খেতেই থাকলাম। আর জোর করে চাপ দিয়ে শাড়ী সায়া ভেদ করে হাতটা আন্টির শ্রোণী দেশে প্রবেশ করিয়েই দিলাম। আঙ্গুলি চালান করে বুঝলাম ভিতরের জিনিসটা একটু খসখসে লাগছে।
বুঝলাম এটা আন্টির যোনি নয় এটা যোনির ওপরের আস্তরণ প্যান্টি। আবার হাত বের করে প্যান্টির ওপরে দিকদিয়ে হাত ঢোকানো অনেক কষ্ট সাপেক্ষ। তাই হাতটা আরেকটু নিচে নামিয়ে দু পায়ের মাঝে নিয়ে গেলাম। পায়ের কোনা মানে কুঁচকির কাছ দিয়ে প্যান্টির শেষ প্রান্তটুকু টেনে গুটিয়ে দিলাম একটা কোনায়। অমনি আঙুলে ঠেকেগেল রসসিক্ত যোনি। ছোটবেলায় শুধু কল্পনাই করতাম। কল্পনা করেই খাতার পিছনে ছবি আঁকতাম আন্টির যোনির। কিন্তু একদিন সেই যোনিতে হাত ঠেকাব তা ছোটবেলায় ভাবিও নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *