বিরাজের জীবন কথা – ২১

গত পর্বের পরে –
ঢাকা শহরে তৃতীয় দিন।
স্মৃতি আপু ভাবির মাধ্যমে নাম্বার নিয়ে অপরিচিতার সাথে যোগাযোগ করে জানায় আমরা সবাই কালকে বসুন্ধরা যাবো। সেখানে আমরা তার সাথে দেখা করতে চাই! অপরিচিতাও এক পায়ে লাফিয়ে হ্যাঁ করে দিল।
রাতে ঘুমাতে গিয়ে আমি ভাবির কোলে মাথা রেখে গল্প করছিলাম। ভাবি হেলান দিয়ে বসে আছে। এটা খুব ভালো লাগে আমার! মজার মজার বিষয় নিয়ে ভাবির সাথে কথা বলতে! এখন প্রায় একটা পঁচিশ!
কিন্তু আমরা গত দুইদিন ইন্টিমেট করিনি। আমার ভিতরে ইন্টিমেট করার ইচ্ছে হচ্ছে অনেক, কিন্তু ভাবি কিছু বলছেনা/করছেনা। আমারও সাহস হচ্ছিলোনা বলতে। তিনিও সাধারণ ভাবেই মাথায় হাত বুলাতে বুলাতে গল্প করছেন।
হুট করে আমার ট্যাবলেটের নোটিফিকেশন টুং-টুং!
ভাবি তাই ট্যাবলেটটা টেবিল থেকে তুলে মেসেজ পড়লো।
ভাবিঃ বাবু দেখ কে মেসেজ দিলো!
আমি উঠে বাম হাতের নিচে দিয়ে মাথা নামিয়ে বুকের উপরে রাখলাম। তাকিয়ে দেখি অপরিচিতার মেসেজ!
অপরিচিতাঃ ঘুমিয়ে গেছ বিরাজ?
আমি মাথা বের করে ট্যাব হাতে নিতে গেলে ভাবি আবার আমাকে আগলে ধরে বুকের উপরে মাথা রাখলো। তারপর ভাবি আমার হয়ে অপরিচিতার সাথে মেসেজে কথা বলতে লাগলো-
আমি(ভাবি আমার হয়ে লিখছে): না গেম খেলছিলাম। আপনি?
অপরিচিতাঃ আপনি😒! ভাবি আছে পাশে বুঝি?
ভাবিঃ নাতো! আমিতো গেস্ট রুমে থাকি! ভাবি তার রুমে!
অপরিচিতাঃ তাহলে আপনি বললে কেন? মনে নেই আমাকে কি ঢাকবে কথা দিয়েছিলে।
” তা কি ঢাকবে বলেছো? ” আমাকে জিজ্ঞেস করল। তারপর উওর দিলো-
ভাবিঃ তুমি
অপরিচিতাঃ হুম! তাহলে তো মনে হয় ভাবির বাবুটা এখন উপোস থাকে?
( ভাবি এখনো আমার হয়ে মেসেজ করছে )
আমিঃ হুম। আঙ্কেল চলে আসার কথা না আজকে! আসছে?
অপরিচিতাঃ হুম! এসেই ঘুমিয়ে গেছে। ক্লান্ত অনেক।
আমিঃ আর তুমি কি করছিলে?
অপরিচিতাঃ তোমার কথা ভাবছিলাম।
আমিঃ আমার কথা! কেন?
অপরিচিতাঃ তোমার স্মৃতি ভাবি কল করছিলো, তোমরা সবাই নাকি কালকে এদিকে আসছো শপিং করতে?
ভাবি আমাকে জিজ্ঞেস করল স্মৃতিকে তোমার ভাবি বলছে কেন? আমি উওর দিলাম, তখন তোমাকে বাঁচাতে বলেছিলাম।
ভাবি আবার মেসেজ করা শুরু করলঃ
আমিঃ না সবাই না! আমিতো আসবো না!
অপরিচিতাঃ আরে এটা কি ধরনের কথা😒! আমি আরো তোমার জন্য তোমার ভাবিকে দেখা করতে হ্যাঁ করে দিলাম।😞
আমিঃ মানে?
অপরিচিতাঃ বুদ্দু! জানোনা কেন?
আমিঃ না বুঝলাম না!
আমি বুঝলাম ভাবি অপরিচিতার সাথে কথার খেল খেলছে। আমি তাকিয়ে রইলাম।
অপরিচিতাঃ না আমি বলতে পারবোনা! তুমি কালকে আসবেই!
আমিঃ কিন্তু আমিতো আসবোই না!
অপরিচিতাঃ ওকে ঠিক আছে! তাহলে আমিও ভাবিদের সাথে দেখা করতে যাবোনা! কাট্টি
আমি ( ভাবি লিখতেছে আমার হয়ে)- আরে কাট্টি করার কি আছে! আগে বল গেলেই বা কি লাভ হবে?
অপরিচিতাঃ আমি তোমাকে আদর করবো?
আমিঃ শপিং মলে সবার সামনে?
অপরিচিতাঃ হুম তুমি আসো তোমাকে সবার সামনে আদর করবো।
আমিঃ কিভাবে আদর করবে?
অপরিচিতাঃ তোমাকে জড়িয়ে ধরে ঠোঁটে ঠোঁট মিলিয়ে চুমু খাবো!
ভাবি আমার দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসি দিয়ে আবার লিখতে শুধু করলো!
আমিঃ তাহলে তো ভাবিরাও দেখে ফেলবে। আমিতো কাউকে বলিনি। তখন কি হবে?
অপরিচিতাঃ কিচ্ছুটি হবেনা! তুমি কালকে আসছো এটাই শেষ কথা! না হলে তোমার ভাবিদের আমি ফোন করে সব বলে দিব।
আমিঃ আচ্ছা কি বলবে আমার সম্পর্কে!
অপরিচিতাঃ এটা বলবো যে, তুমি খুব সুন্দর করে আদর করতে পারো আামাকে, আমি এখন আরো আদর পেতে চাই! তাই ছোট বাবুটাকে আমার কাছে দিয়ে যাও।
আমিঃ আচ্ছা তাহলে ভাবিদের কি হবে?
অপরিচিতাঃ ও ভাবিদের কথা মনে থাকে, আমিতো কেউই না! না?
আমিঃ আরে বাবা রাগ করছো কেন? আচ্ছা বাবা সরি! এবার একটা চুমু দিয়ে দাও?
অপরিচিতাঃ না, আগে বল কালকে তুমি আসছো।
আমিঃ হুম তবে চুমু দিতে হবে!
অপরিচিতাঃ উম্মাহ! কালকে দেখা হচ্ছে তাহলে। গুড় নাইট
আমিঃ গুড় নাইট।
ভাবি ফোন রেখে আমার নাক টেনে বললো তুমিতো দেখছি সবাইকে পাগল করে ছাড়বে। কালকে আবার চায় তোমাকে অপরিচিতা! যাবে?
আমি চুপটি মেরে বসে রইলাম।
ভাবিঃ আমি বাধা দিবো না। গতপরশু রাতের জন্য এটাতো আমি করতেই পারি! ধরে নাও যে, এটা তোমার গিফট!
আমিঃ কিন্তু কিভাবে! তোমরা সবাইতো থাকবে আমার সাথে!
ভাবিঃ ওটা জেনে তুমি বা আমি কি করবো! যার দরকার সে সব সামলাবে!
আমিঃ তুমি সত্যি রাগ করছো নাতো? আমি তোমাকে ছাড়া আর কাউকেই চাইনা।
ভাবি আমাকে বুকে জড়িয়ে নিয়ে শুয়ে গেলো আর বললোঃ না! তুমি গতপরশু রাতে আমাকে যে সুখ দিয়েছ তার উপহার হিসেবে আগামী কালকের দিন দিবো। আর আমি তোমার উপর রাগ কেন করবো?
আমিঃ না এমনি ভয় করে যদি তুমি আবার ওই দিনের মতো রাগ করো!
ভাবি কোন কথা না বলে আমার ঠোঁটে ঠোঁট মিলিয়ে বিশাল একটা চুমুর টান দিলো।
ভাবিঃ এইযে দেখ আমি রাগ করিনি!
আমিঃ আমিও চুমু খাব!
ভাবিঃ আমি আবার কবে বারণ করলাম? কিন্তু শুধু চুমু পাশের রুমে আব্বু আম্মু। আর কালকের জন্য কিছুটা শক্তি জমাও! আমায় সব দিয়ে দিলে অপরিচিতা তো খালি হাতে ফিরে যাবো।
আমি ভাবিকে জড়িয়ে ধরে বললাম। যা হুকুম মালকিন।
তারপর তাকে জড়িয়ে ধরেই ভাবির বুকে ঢুকে রাত কাটিয়ে ঢাকা শহরে তৃতীয় দিন শেষ করলাম।
ঢাকা শহরে চতুর্থ দিন।
আমরা সকাল সাড়ে নয়টায় রওনা দিলাম। পুরো দিনের জন্য গাড়ি রাখা হয়েছে। আমি, ভাবি, স্মৃতি আপু, ভাবির আব্বু আর দুই কিউট আন্টিসহ। সবাই খুব সুন্দর পরিপাটি হয়ে বের হয়েছে। আমি একটা জিন্স প্যান্ট আর সাদা টিশার্ট পরলাম, সব প্ল্যান স্মৃতি আপু করেছে। কখন কি কি করবে!
আমরা দশটার দিকে পান্থপথ হয়ে প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলের সামনে পৌঁছালাম। আমাদের সবাইকে হোটেলের ভিতরেই ড্রাইভার নিয়ে গেল। প্ল্যান স্মৃতি আপুর, তাই কেউ কিছু জানতো না।
আমরা গাড়ি থেকে নেমে ভিতরে একটা লাক্সারি রেস্টুরেন্টে ঢুকলাম। ঢুকার পর স্মৃতি আপু ওয়েটারকে কিছু একটা বলতেই ওয়েটার আমাদেরকে ভিতরে নিয়ে গেলেন।
আমরা একটা বড় টেবিলে অপরিচিতা আর একজন হ্যান্ডস্যাম ব্যাক্তিকে দেখতে পেলাম। আমাদেরকে দেখে অপরিচিতা আর ব্যাক্তিটি আমাদেরকে দাঁড়িয়ে আমন্ত্রণ করলো, আর সবার সাথে পরিচয় পর্ব শেষ হলো।
সবাইকে চিনো শুধু ব্যাক্তিটাকে ছাড়া। এনি হলেন মিঃ আনিসুর রহমান, অপরিচিতার অংশীদার, মানে স্বামী। আনিসুর রহমান কোট পরে এসেছেন। অপরিচিতা একটা long blue Sheath Dress পড়েছেন ( নামটা গুগল করে নাও, বুঝতে পারবে)। চুলগুলো খোলা, আর হাই হিল পরা।
ভাবি আমাকে টোকা মেরে বললো- মনে হয় পুরো তৈরি হয়ে এসেছে।
আমিঃ যা ফাজি!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *