মায়ের পরপুরুষের সঙ্গলাভ – ২য় পর্ব

আমার মা নন্দিনী রায় প্রথম বার পর পুরুষের সঙ্গে রাত কাটানোর পর কোনো ভাবে আর সুস্থ্য স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারলো না। হাই ক্লাস সমাজ জীবনের মোহ বাবার মতন আমার মা কেও আস্তে আস্তে নিজের চরিত্রের চরম সর্বনাশ করার পথে ঠেলে দিয়েছিল। স্বামী পুত্র সংসারের প্রতি আগের সেই টান ও আস্তে আস্তে আলগা হচ্ছিলো। মা লোকচক্ষুর ভয়ে বাড়ির বাইরে অনাচার করতে রাজি ছিল না।
আমাদের বাড়ি র ভেতরেই শর্মা আঙ্কেল মা কে নিয়ে একান্ত অন্তরঙ্গ মুহূর্ত কাটাতে শুরু করার পর মায়ের জীবনে নতুন অধ্যায় শুরু হয়। পরপুরুষ কে নিজের বাড়ির নিজের বেড রুমের ভেতরে জায়গা করে দেওয়ার পর আমাদের বাড়ির পরিবেশ তাও মা দের পার্টি ক্লাবে দেদার খাওয়া অ্যালকোহলের মতন একই রকম বিষাক্ত হয়ে উঠেছিল।
শর্মা আংকেলের বন্ধুর পার্টি থেকে রাত নেশাতুর ভাবে ফেরার পর, মা আরো বেশি করে আংকেলের কথায় ওঠা বসা শুরু করলো। মা এমন ফাসা ফেসেছিল আঙ্কেল এর কথা না শুনে তার কাছে অন্য কোনো উপায় ও ছিল না। আংকেল এর পছন্দ করা দুজন লোককে মা বাড়িতে চট পট কাজে বহাল করলো। এই দুজন নতুন হাউস স্টাফের মধ্যে মনোজ বলে যিনি ছিলেন তিনি ভীষণ ই বুদ্ধিমান আর চটপটে ছিলেন। তার বয়স ছিল অল্প, ২৯-৩০ বছর, মাঝারি হাইট।
শর্মা আংকেলের এর মতন ওতটা ফরসা সুপুরুষ দেখতে না হলেও, মোটের উপর ভালই দেখতে। সে আমার মার সঙ্গে অল্প সময়েই বেশ ভাব জমিয়ে ফেললো। বাড়ির পুরনো লোক গীতা দির পরিবর্তে এসে বাড়ির সব কাজ কর্ম মনোজ ভালই সামলে দিচ্ছিলো। শর্মা আংকেল যেমন বলেছিল, মনোজ আসার পর দেখা গেল যে, ও সত্যি বেশ ভালো বডি ম্যাসেজ করতে জানে।
নিয়মিত পার্টি আর ক্লাবে বেরোনোর ফলে মার মাঝে মধ্যেই গা হাত পা কোমর এর মাসল ব্যাথা করতো। মনোজ মা কে বিছানায় শুইয়ে ভালো করে বডি ম্যাসেজ করে তাকে আরাম দেয়া শুরু করেছিলো। এই ভাবে অর্ধ নগ্ন অবস্থায় বিছানায় উপুড় হয়ে শুয়ে মনোজের থেকে প্রায় প্রতিদিন মিনিট ৪০ ধরে ম্যাসেজ নেওয়া মার প্রায় নিয়মিত অভ্যাস বনে গেলো।
এই ম্যাসেজ নেওয়ার ব্যাপারে মা কোনো রাখঢাক রাখতো না, দরজা খোলা থাকত। আমি বাড়িতে থাকলে এমনিতেই লজ্জাতে ম্যাসাজ নেওয়ার সময় ঐ দিক টা মারাতাম না। মনোজ খোলাখুলি ভাবে সময় নিয়ে মার বেডরুমে এসে কোনোদিন ৪০ মিনিট কখনো কখনো একঘন্টা ধরে ভালো করে ম্যাসাজ করে মায়ের শরীরের মাসেল গুলো লুজ করে দিতো। এতে মা আরাম যেমন পেতো, তেমনি দামী হার্বাল সুগন্ধি তেল দিয়ে নিয়মিত ম্যাসেজ নেওয়ার ফলে দিন দিন মার ত্বকে জেল্লা বাড়ছিল। যত দিন গেলো মা মনোজের সামনেও সহজ হয়ে উঠলো।
একদিন মার ম্যাসাজ নেবার সময় আমি মায়ের ঘরের সামনে দিয়ে পাস করছিলাম, এমন সময় কিছু কথা কানে এলো, আমি দু মিনিটের জন্য দাড়িয়ে গেলাম মা সবে মাত্র নিজের হাউস কোট খুলে বিছানায় গিয়ে শুয়েছে, এমন সময় মনোজ বললো, দিদি সাহস করে, একটা কথা বলবো? মা মুখের দিক থেকে পিছন ফিরে নিজের ব্রায়ের দিকের লেস খুলতে খুলতে বললো, ” হ্যা বলো।”, মনোজ বললো, ” দিদি, আমি আগে মিসেস মালিয়ার বাড়িতে দুই বছর কাজ করেছি। Maliya ম্যাডাম আমাকে দিয়ে একটা বিশেষ ম্যাসাজ খুব করাতেন, আমার খুব ভালো লাগবে যদি আপনাকে সেটা করে দেখাতে পারি।” মা হেসে বলল, ” ওহ তাই বুঝি, আমাকে নতুন ম্যাসাজ দেখিয়ে আরো ইমপ্রেস করবে, কি তাই তো,” ” ঠিক আছে, পারমিশন দিলাম। দেখাও কি ম্যাসাজ দেখাবে। আই অ্যাম রেডী।”
মনোজ বললো, ওকে দিদি, কিন্তু এই বিশেষ ম্যাসেজ টা করতে হলে আপনার পাশাপাশি আমাকে ও শার্ট খুলে টপলেস হতে হবে। নাহলে এটা করা যাবে না। এই ম্যাসাজ ব্যাংককে ভীষন পপুলার, যারা জানে তারা ওখানে শুধু এই ম্যাসাজ নিতেই যায়। মিসেস মালিয়া ব্যাংকক থেকে ফিরে এটাই নিতে পছন্দ করতেন। একবার এই ম্যাসাজ নিলে আপনার স্তন মন সব চুস্ত হয়ে যাবে। ”
মা কিছুক্ষন চুপ থাকার পর বললো, ঠিক আছে, বলছো যখন দেখাও তোমার ম্যাজিক। শুরু করার আগে, তুমি এক কাজ করো, দরজা টা বন্ধ করে দাও। তুমি তো জানো, আমার ছেলে সুরো আজ বাড়িতেই আছে, যদিও আজকাল আমার এদিকে খুব একটা প্রয়োজন ছাড়া আসে না। তাও কোনো রিস্ক নেওয়া ঠিক হবে না। দরজা বন্ধ করে নিছিন্ত ভাবে এসে শুরু করে দাও।”
আমি এই কথা শুনে আর দাড়ালাম না। মার এরকম অধঃপতন দেখে কষ্ট হচ্ছিল তাই চুপ চাপ নিজের ঘরে চলে আসলাম। সাধারণত ৩০-৪০ মিনিট ম্যাসাজ নেওয়ার পর মা একবার শাওয়ার নিতে যেত। আর তখন মনোজ দরজা দিয়ে মার রুমের বাইরে চলে আসতো। সেদিন মা প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে মনোজের সঙ্গে নিজের বেডরুমে দরজা বন্ধ অবস্থায় কাটিয়ে ফেললো, না মনোজ তাড়াতাড়ি বাইরে এলো না মা শাওয়ার নিতে গেলো।
দেড় ঘণ্টা বাদে শাওয়ার না নিয়েই শুধু মাত্র একটা টাওয়েল জড়িয়েই মনোজকে নিয়ে নিজের বেডরুমের বাইরে বেরিয়ে এলো। বাড়িতে মায়ের পাশের রুম তাই ছিলো আমার। সজোরে দরজা খোলার শব্দ পেয়ে আমি ঘরের বাইরে এসে একটা কোন দেখে দাড়িয়ে মা আর মনোজের কার্যকলাপ দেখতে লাগলাম। আমি লক্ষ্য করলাম ম্যাসেজ নিয়ে মা মনোজের উপর ভীষন রকম সন্তুষ্ট।
টাওয়েল পরেই ড্রইং রুমে বসে ফ্রুট জুস খেতে খেতে দরাজ গলায় জানিয়েছিল, মনোজ ও টপলেস অবস্থায় মার সঙ্গে বেরিয়েছিল। মনোজের সেক্সস অর্গান টা মায়ের শরীরের ছোয়া পেয়ে ফুলে ফেঁপে ঢোল এর মতন বড়ো হয়ে উঠেছিল। দূর থেকে আমি ওটা স্পষ্ট দেখতে পেয়েছিলাম। মা আরো ভালো ভাবে সামনে থেকে ওর খাড়া হওয়া পুরুষাঙ্গ দেখেছিল, আর দেখার পরেও ওর পাশে দাড়িয়ে কথা বলছিল।
মা প্রথমেই বলেছিল,
” মনোজ, আই অ্যাম রিয়েলি ইমপ্রেস। তুমি সত্যি ম্যাজিক জানো , ইট ওয়াজ লট অফ ফান টুডে, এটা করার পর সত্যি ভীষন হালকা লাগছে। এত আনন্দ অনেকদিন পাই নি। আমার এটার দরকার ছিলো। থ্যাংকস এ লট। এবার থেকে মিসেস মালিয়ার মতন তুমি আমাকে এই স্পেশাল ম্যাসাজ টাই করাবে। বুঝেছ?” মনোজ হেসে রিপ্লাই দিলো, “আমি জানতাম দিদি, এই স্পেশাল ম্যাসাজ আপনার ভালো লাগবেই। তবে একটা কথা বলতে বাধ্য হচ্ছি। এর আগে যাদের কেই এই ম্যাসাজ করেছি সবাই এই ম্যাসাজ নেওয়ার সময় পাগলের মতো আচরণ করতো। আমার রস বের করে নিংরে তবে শান্ত হতো, আপনি এই দিক থেকে বেশ সজ্জন ভদ্র বলতে হবে। আমার সঙ্গে কিছুই করলেন না। নিজে নিজেই প্লিজার নিলেন। এর আগেও ম্যাসাজ নেওয়ার সময় শান্ত ই ছিলেন। আজকেও আপনি একটি বারের জন্য ও নিজের নিয়ন্ত্রণ হারালেন না। আপনার মতন ম্যাডাম পেয়ে সত্যি লাকি। আপনাকে আজ কিছুটা আনন্দ দিতে পেরে আমিও ভীষণ সন্তুষ্টি পেয়েছি, তা দিদি, আপনি কি রাতেও আমাকে এক্সপেক্ট করছেন। আপনি ডাকলেই কিন্তু আমি রুমে চলে আসবো। আজকের পর আমি সব কিছু করতে পারবো আপনার জন্য। সব কিছু।”
মা বললো, ” না মনোজ আপাতত দিনের বেলায় যত খুশি তোমার ম্যাজিক দেখাও, সন্ধ্যের পর রাতের দিকে শর্মা জী রা আসবে। ওদের সাথেই আমাকে ব্যাস্ত থাকতে হবে। নাহলে ওদের ইগো হার্ট হবে। তুমি তো থাকবেই। এরপরে রাতে কোনোদিন ফ্রি থাকলে আমি কল করলে ইউ হ্যাভ মাস্ট কম ইন মাই রুম। রাতে আমার বিছানায় তোমার মাজিক কতটা কাজ করে আমি অবশ্যই টেস্ট করে দেখতে চাই, “।
মনোজ বললো, ” দিদি আপনি যা বলবেন তাই করবো। আপনাকে খুশি করা আমার ডিউটি। যা করবো মন থেকেই করবো, আপনি ও আমার কোম্পানি এঞ্জয় করবেন। এখন আপনার কি লাগবে। স্নান করবেন নিচ্ছয়।” মা উত্তর দিলো,” হ্যাঁ এই দেখো তোমার সঙ্গে এইভাবে শুধু এই টাওয়েল পরেই বেরিয়ে পড়লাম, এই মা… দেখেছো, কিছু পড়ার কথা এতক্ষন খেয়াল ও করি নি। তুমিও কিছু বললে না, যে দিদি ড্রেস ছাড়াই বেরিয়ে যাচ্ছেন রুম ছেড়ে, ছি ছি। স্নান তো করতেই হবে। আমার গিজারে গরম জল টা রেডি হয়ে কিনা একটু দেখবে মনোজ।”
হ্যা এক্ষুনি দেখছি, তবে একটা জিনিষ বলতেই হবে, আপনাকে এই টাওয়েল এ যা লাগছে না মাইরি, মাশাল্লা, আপনাকে খালি দেখতেই ইচ্ছে করছে। তাই আপনাকে কিছু পড়ার কথা বললাম না। আর পাঁচ মিনিট পাড়লে একটু বসুন না আমার সাথে” আমি ভেবেছিলাম মা হয়ত রেগে যাবে মনোজ এর এই কথা শুনে, কিন্তু মা রেগে গেলো না, বেশ হালকা ভাবে ইয়ারকির ছলে বললো, “এতক্ষন ধরে আমার সব কিছু দেখেও তোমার মন ভরে নি দেখছি। আজকের জন্য অনেক দেখেছো। বাকিটা কাল ম্যাসাজ করবার সময় দেখে নেবে, চাইলে করতেও পারো, আই ডোন্ট মাইন্ড এনিথিং। আফটার অল আফটার টুডে ইউ হ্যাভ আচ্ছিইভ ইট।”। এই ভাবে কিছুদিন যেতে না যেতে মনোজ এর সঙ্গেও মা শারীরিক যৌন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ল।
বাবা শর্মা আঙ্কেল এর পর মনোজ কে ধরলে এটা মার জীবনে তিন নম্বর পুরুষ ছিল, যে মার শরীর টা ভালো করে চিনে গেছিলো। মনোজের মতন স্মার্ট করিৎকর্মা মতন লোক, আমাদের বাড়িতে ২৪ ঘণ্টা থাকতে শুরু করার পর, মা বাড়ির সংসারের কাজ থেকে অনেকটা ঝাড়া হাত পা হয়ে গেছিলো। মা অনেক বেশি তার সাবেকী গৃহবধূর খোলস ছেড়ে আধুনিকা হতে আরম্ভ করেছিল।
বাড়ির কাজ সংসারের কাজ সব মনোজ আর সুদেব সামলে নেওয়ায় মা নিজের জন্য প্রচুর সময় বের করতে শুরু করলো। পার্লার সালোন এ গিয়ে নিয়মিত রূপ চর্চা শুরু করলো। যার ফল স্বরূপ মায়ের রূপ আর লাবণ্য যেন দিন দিন আরো খুলতে লাগলো। মা কে কোনো কাজ আর আগের মতন করতে দিত না। তাই বাড়ির কাজ করবার সংসার এর টুকি টাকি ব্যাপারে নজর রাখবার অভ্যাস তাই মার নষ্ট হয়ে গেলো।
মার রবীন্দ্র সঙ্গীত গাওয়া আর আমার পিছনে সময় দেওয়া সব কিছু ভালো অভ্যাস যা কিছু ছিল আস্তে আস্তে সব বন্ধ হয়ে গেলো। মা শর্মা আংকেল দের পছন্দের ছাচে নিজেকে গড়তে লাগছিল। সে যত নিজেকে সুন্দর পরিপাটি করে রাখা শুরু করলো, শর্মা আংকেল তাকে তত বেশি ভালোবাসায় ভরিয়ে দিচ্ছিল। কথায় কথায় দামী গিফ্ট কিনে দেওয়া তো ছিল, যৌণ সম্পর্ক টা একটা পরিপূর্ণ রূপ পেতেই, আংকেল আমার মা কে হাত খরচের জন্য বেশ মোটা অঙ্কের টাকা দেওয়া শুরু করলো।
মায়ের মতন নারী যতই আধুনিক উচ্চ অভিজাত শ্রেণীর সঙ্গে মানানসই হচ্ছিলো, ততই আমার কাছে দিন দিন কেমন জানি অচেনা হয়ে যাচ্ছিলো। তার সাজ গোজ , চলা ফেরা কথা বার্তার ধরন খুব দ্রুত আর পাঁচটা হাই সোসাইটি ওম্যান দের মতন হয়ে যাচ্ছিল। বাড়ির থেকে বাইরে হাই ক্লাস সমাজে নিয়মিত মেলামেশা করতেই নিজেকে ব্যস্ত করে ফেললো। তার ব্যাক্তিগত জীবনে র পরিসরে প্রচুর নতুন মানুষ চলে এসেছিল। যাদের কে মা একটা সময় তাদের চরিত্রের জন্য এড়িয়ে চলতো ।
বাবাকে নানা কাজে ব্যাস্ত রেখে আর নিজের খুড়তুতো বোনের সঙ্গে অ্যাফেয়ার করিয়ে দিয়ে শর্মা আংকেল মার সঙ্গে অবাধ মেলামেশা শুরু করেছিল। সে যখন খুশি তখন এসে মা কে নিজের মর্জি মত ব্যাস্ত রাখতো, সপ্তাহে অন্তত দুই তিন দিন মার সঙ্গেই এক ঘরে থেকে যেতো। যতক্ষণ ইচ্ছে সে আমাদের বাড়িতে থেকে মার সঙ্গে একান্তে সময় কাটালেও বাবা তাকে একটা কথাও বলতে পারতো না। মার চোখ থেকে বাঁচতে আঙ্কেল যেদিন বাড়িতে আসতো সেদিন বাবা বাড়ি ফিরতো না।
এছাড়া বাবার কাজের সুবাদে দিনের পর দিন বাড়ির বাইরে থাকার সুযোগে শর্মা আংকেল আমাদের বাড়িতে নিজের পজিশন টা অনেকটা শক্ত করে নিয়েছিল। আঙ্কল এর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে জড়ানোর পর মার মধ্যেও শর্মা আংকেলের অনেক গুলো বদ অভ্যাস আস্তে আস্তে দেখা যাচ্ছিল। আগে আমার মা নিজের ইনার ওয়ার ছাড়ার বিষয়ে খুব সচেতন থাকতো।
সেই মায়ের ই ব্রা পান্টি যেখানে সেখানে পরে থাকতে দেখা যাচ্ছিলো। আগে মা চুল খোলা অবস্থায় রাখত না। নিজের চুল সব সময় খোঁপা বা বিনুনি বেঁধে সুন্দর পরিপাটি করে রাখতে পছন্দ করতো। মা খোলা চুল নিয়ে বাইরের লোকের সামনে যাওয়া কে অসভ্যতা মনে করতো, আস্তে আস্তে শর্মা আঙ্কল দের সামনে আমার মা খোলা চুলে থাকতে অভ্যস্ত হয়ে যায়। শুধু তাই না, তার ওতো সুন্দর লম্বা চুল ছেটে ছোটো করে কাধের কাছে অবধি করে ফেলেছিল। যার ফলে মার চুল না বাঁধলেও চলে যেতো।
আমার বাবা বাড়িতেই অনেক বছর ধরেই অ্যালকোহল খেত। কিন্তু মা মদের বোতল গ্লাস কখনো সামনে খোলা জায়গায় রাখতো না। বাবার দেরাজে সারি সারি গ্লাস মদের বোতল সব বন্ধ অবস্থায় থাকতো, শুধু অতিথি এলে বা খাবার সময় বের করা হতো। আমার শিক্ষায় যাতে বাবার মদ খাওয়া নিয়ে কোনো কু প্রভাব না পড়ে এই বিষয়ে মা খুব সচেতন ছিল।
কিন্তু শর্মা আংকেল এর কথা মেনে যখন আমাদের ড্রইং রুমের এক কোন ড্রিঙ্কস বার ক্যাবিনেট কিনে এনে মদ আর নেশার যাবতীয় উপকরণ সব সামনা সামনি সাজিয়ে রাখবার বন্দোবস্ত করা হলো আমি মায়ের এই সিদ্ধান্তে অবাক হয়ে গেছিলাম । এছাড়া মা কবিতা আন্টি সুনাইনা আন্টি দের সঙ্গে মিশে মিশে তাড়াতাড়ি নিজের বারোটা বাজাচ্ছিল। ওরা মা কে টিপস দিয়ে দিয়ে ওদের মতন সাজ গোজ করায়, মেক আপ করায়, শরীর দেখানো পোশাক পড়াতে উৎসাহিত করছিল। মা ওদের দেখা দেখি লিপস্টিক , ফেস পাউডার, আইলাইনার এর মতন কসমেটিক এর ব্যাবহার বাড়িয়ে দিয়েছিল। এমনকি মা শুতে যাওয়ার আগে পর্যন্ত আধ ঘণ্টা ধরে আয়নার সামনে বসে প্রসাধন করবার অভ্যাস করে ফেলেছিল।
নিজের জন্য দুটো নতুন ওয়ার্ড্রোব কিনতে হয়েছিল আংকেলের দেওয়া সব গিফট আর ড্রেস গুলো কে রাখবার জন্য। খুব অল্প সময়ের মধ্যে মার ওয়ার্দ্রবে সেক্সী নাইটওয়ার আর মডার্ন কস্টিউম দের একটা ভালো কালেকশন তৈরি হয়। আংকেল দের প্রশ্রয় পেয়ে যে ধরনের পোশাক মা আগে পড়বার কথা স্বপ্নেও ভাবতে পারতো না। সেই ধরনের আধুনিক ড্রেস বাড়িতে পড়া শুরু করে দিয়েছিলো। ঘরের বাইরেও শাড়ি ছাড়া অন্য পোশাক ও পড়া আস্তে আস্তে চল করেছিল। যত দিন যাচ্ছিল মার সাহস ও বাড়ছিল।
তাই শর্মা আঙ্কল দের চাপে পড়ে শাড়ি আর ব্লাউজ ছেড়ে খুব তাড়াতাড়ি অনেক নতুন ধরনের আধুনিক পোশাক মা পড়তে শুরু করলো। আস্তে আস্তে বাবা যখন বাইরে থেকে ফিরত তখনও সেও শর্মা আংকেল এর দেখাদেখি ভদ্র সভ্য শাড়ির বদলে মডার্ন ড্রেস সিলেক্ট করে গিফট হিসাবে আনতে শুরু করেছিল। শর্মা আংকেল প্রথম রাত বাড়িতে কাটানোর পর পরই ঘন ঘন এসে মার সঙ্গে রাত কাটিয়ে যাওয়া শুরু করেছিল। শোয়ার আগে ওরা মদের আসর বসাত। কখনো শর্মা জী তার কিছু বন্ধু কে নেমন্তন্ন করে আমাদের বাড়িতে নিয়ে আসতো।
ড্রইং রুমে তাদের আসর যখন বসত, তখন ওদের মুখের ভাষা আর আচরণ এমন পর্যায়ে চলে যেতো যে ওদের সামনে যাওয়াই যেতো না। সব থেকে আশ্চর্যের বিষয় ছিল যে আমার মা নিজের অতীত ভুলে সংস্কৃতি ভুলে ঐ আসর গুলোতে বেশ এক্টিভ ভূমিকা পালন করতো। বাড়ির ভেতর আর বাইরে ক্লাবে রাখা আঙ্কল এর মিটিং গুলোয় বাবা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে অনুপস্থিত থাকতো।
বাবা থাকলেও মার রুটিনে পরিবর্তন হতো না। আর বাবা যেদিন থাকতো না, সেদিন শর্মা আংকেল ইচ্ছে করে বাবার নামে বাড়িয়ে চড়িয়ে কলঙ্ক রটাত। অঞ্জলী আর অন্য নারী র সঙ্গে বাবার শারীরিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল, সেই বিষয়ে নানা গসিপ আংকেল মা র সামনে রসিয়ে রসিয়ে পরিবেশন করতো। শর্মা আংকেল এর সঙ্গে করে নিয়ে আসা বন্ধু রাও তাতে তাল মেলাতো।
এসব গসিপ শুনে আমার মা খুব কষ্ট পেতো। সে বাবা কে ভীষন ভালোবাসতো। তাই সে তাকে ছেড়ে অন্য নারী দের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে দিনের পর দিন বাড়ির বাইরে কাটাচ্ছে এটা জানতে পেরে মার মন কষ্টে ভেঙে যেতো। তবুও মা মুখ ফুটে কিছু বলতো না, কারণ সেও আমার বাবার মতন এক পাপের ভাগীদার হয়ে উঠেছিল অনিকেত শর্মা র মতন পুরুষের সঙ্গে অবৈধ শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে। নিজের মনের হতাশা আর পাপ বোধ ঢাকতে মা শর্মা আংকেল দের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে পেগের পর পেগ হার্ড ড্রিঙ্কস খেয়ে বেহুশ হয়ে পড়তো ।
মদ খাওয়া র পর মার স্বাভাবিক হিতাহিত জ্ঞান থাকতো না। শর্মা আংকেল যা খুশি তাই করিয়ে নিতে পারতো। বিশেষ করে নন্দিনী রায়ের ৩৬ ডি সাইজের পরিণত বুকের দাবনা গুলো নিয়ে খেলতে শর্মা আংকেল খুব পছন্দ করত। এছাড়া শর্মা আংকেল সুযোগ পেলেই জমাতে নিয়ে আসা ২-১ জন বন্ধুদের সামনেই মার কাছে টেনে কাপড় সরিয়ে নিয়ে আদর করা শুরু করে দিতো।
আঙ্কল কে খুল্লাম খুল্লা মার শরীর ছুয়ে আদর করতে দেখে শর্মা আংকেল এর বন্ধুরাও সাহস পেত মার অসহায় অবস্থার পূর্ণ অ্যাডভান্টেজ নেওয়ার। তারাও এক এক করে মার দুধ থাই পেট সহ বিভিন্ন অঙ্গে মনের সুখে টাচ করবার মস্তি লুটে নিত। মা মদের নেশায় আর উত্তেজনায় তাদের কে কোনো বাঁধাই দিতে পারতো না। যেদিন আংকেলের সাথে তার কিছু বন্ধুরা মদের আসর জমাতে আসতো ,মদের আসর শেষ করে শর্মা আংকেল বন্ধুদের সাথে বাড়ি ফিরে যেতো, রাতে থাকতো না।
আঙ্কল রা মার শরীরে সেক্সুয়াল হিট তুলে দিয়ে চলে গেলে মা সেই আগুন শান্ত করতে বাধ্য হয়ে মনোজ কে নিজের বেডরুমে ডেকে আনতো। শর্মা আংকেল আমাদের বাড়িতে মার সঙ্গে বিনা বাধায় রাত কাটিয়ে যাওয়ার অভ্যাস করে ফেলবার পর, আমার মার শরীর এর বাঁধন আস্তে আস্তে পর পুরুষের সামনে খুলে যাচ্ছিলো। বিভিন্ন হাই ক্লাস পার্টি তে , ক্লাবে ,এমন কি নিজের বাড়ির ভেতরেও মা নিজেকে পর পুরুষের ভোগের বস্তু তে সফল ভাবে রূপান্তর করেছিল।
মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে আমার মায়ের এই নৈতিক আর বাহ্যিক পরিবর্তন দেখে আমি একেবারে হতভম্ভ হয়ে গেছিলাম। সে এতটাই আমার থেকে মানষিক ভাবে দুরে সরে গেছিলো, যে একটা সময় পর এক বাড়িতে থাকলেও আমাদের মা ছেলের মধ্যে কোনো কথা হতো না । এমন কি মায়ের সাথে দেখাও নাম মাত্রই হতো ।
আমার মা বাবার মতন ই নিজের জন্য আলাদা একটা জগৎ তৈরি করে নিয়েছিল। সেখানে আমার কোনো জায়গা ছিল না। আংকেল প্রথম বার আমাদের বাড়িতে রাত কাটানোর পর দ্রুত সব পরিবর্তন হয়ে গেছিলো। আংকেল এর সঙ্গে শোওয়া র এক মাসের মধ্যেই নিজের ফার্ম হাউস রিসোর্টে একটা গোটা উইকএন্ড কাটানোর ব্যাপারে শর্মা আংকেল আমার মা নন্দিনী রায় কে রাজি করিয়ে ফেলে।
একটা রোড ট্রিপ করে, শর্মা আংকেল এর diamond harbour ফার্ম হাউস রিসোর্টে দুই রাত কাটিয়ে আসার পর মা যেনো আরো বেশি করে শর্মা আংকেল এর নিয়ন্ত্রণে এসে যায়। ওখান থেকে ফিরে এসে মা শাখা সিদুর পড়াও হুট করে বন্ধ করে দিয়েছিল। আজকের আধুনিক বিবাহিত নারী রা অধিকাংশ ক্ষেত্রে শাখা সিদুর পরে না। তাই এই বিষয় টা নিয়ে আমার মনে খুট খুটামি থাকলেও আমার বাবা কোনো আমল ই দিলো না। আমি ইতিমধ্যে আড়ালে আবদারে ওদের কথা শুনে আরো একটা বিষয় জানতে পেরেছিলাম।
আমার মা শর্মা আংকেলের সঙ্গে ফার্মহউজ এ রাত কাটাতে গিয়ে, তার সঙ্গে একসাথে শওয়ার পর্যন্ত নিয়ে ফেলেছে। ওখান থেকে ফেরার পর, আংকেল ও তাদের ঐ ফার্ম হাউসের করা বার্থরুম রোমান্স বাড়ির মধ্যে আমদানি করতে চেয়েছিল কিন্তু মা তখনকার মতন তাকে আটকে দিতে সক্ষম হলো। এদিকে আমার ক্লাস ১২ ফাইনাল বোর্ড এক্সাম ও এসে গেছিলো।
আমি ফাইনাল এক্সাম নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পরলাম, তাই বেশ কয়েক দিন মার দিকে আর সেভাবে নজর দিতে পারলাম না। সেই সুযোগে মা কে সঙ্গে নিয়ে শর্মা আংকেল আবার বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান বানালো। এই দু রাতের জায়গায় পুরো একসপ্তাহের পাটায়া টুর। মা কোনোদিন আগে বিদেশ ভ্রমন করে নি। বাবার সম্মতি থাকলেও, আমার এক্সামের কথা ভেবে প্রথমে মা এই শর্মা আংকেল এর সঙ্গে ঘুরতে যাওয়ার বিষয়ে একটু দোনামোনা করছিল কিন্তু শেষ পর্যন্ত শর্মা আংকেলের ইচ্ছের জয় হলো। মা কে আংকেল পাটায়া ফুর্তি করতে যাওয়ার বিষয়ে কনভিন্স করে ফেললো। মা এই ভাবে পরপুরুষের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে দিনের পর দিন আরো অধঃপতনের দিকে এগিয়ে চললো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *