বোন কান্তা ও আম্মুর সাথে আমি পর্ব ৭

আমি খালাকে আবার জড়িয়ে ধরে বলি, কস্ট পেয়ে কি হবে। তোমার যে কস্ট আমি খুব ভাল ভাবেই বুঝেছি। তোমাকে শান্তনা দেওয়া ছাড়া আর কি করতে পারি। তোমাকে আমি সহ আমরা সবাই ভালবাসি। যদি আমার কিছু করার থাকে বলিও সব সময় তোমার পাশে থাকবো বা আছি।
খালা একটু ঘুরে আমার দিকে চেয়ে আমার কপালে একটা চুমা দিয়ে বলে, সো নাইস অব ইউ। আয় তোরে একটা হাগ দেই। বলেই খালা আমাকে হাগ দিয়ে নিজের বুক টেকিয়ে টাইট করে ধরে। আবার যখন বুঝতে পারলাম লোজ করে আবার টাইট করেছে তখন আমিও টাইট করে ধরি। আমি খালার মুখের ছুয়া পাচ্ছি আমার গাড়ে। শ্বাস প্রশ্বাসের ছুয়া পাচ্ছি।
খালা আমাকে ছেড়েই ওফস বলে শব্দ করে এবং সাড়া শরীর ঝেড়ে ঝেড়ে বলে, তোর শরির তো দেখি পাঠাতন। টাইট মাসল। নাইস বডি ম্যান।
ওফস করলে কেন খালা, ঝাড়া দিলে কেন। যেন বিজাড়া মারছে।
তোর যে বডি, শক্ত সামর্থ লাইক বডি বিল্ডার, এই বডিতে অপুসি মেয়ের শরির কি সক খাবে না। আমি জানি তুই আমার ভাগিনা। আমার রক্ত, আমার শরির, আমার কামনা কি তা বুঝে?
আমার বডি যেমন তোমার কাছে শক্ত মনে হয়েছে ঠিক আমারও তাই মনে হয়েছে,, নরম তুলতুলে। সেক্সি বডি, যেন স্ব্য়ং দেবী আমাকে হাগ দিয়েছে।
তাই নাকি। আজ কয়বার আমার দিকে মানে সেক্সি সেক্সি খেলা খেলেছিস। অই যে বলছিলে মনে মনে বলিস।
আমি যতবারই দেখে থাকি। তবে তুমি তোমার নাভী দেখিয়ে শড়ির বাজ আর দিও না। একটু উপরে দিও কিন্তু। নয়তো কেও জোর করে ধরে ফেলতে পারে।
কি রে এই সেই আসার পর থেকে আমার নাভীর পেছনে পরলে, আবার আমার শাড়ি বুকে টাইট করত্র পারলি
তুই কি মেয়েদের নাভীর আর বুক পছন্দ করিস।
খালা কে না করে। মেয়েদের বুক যার সুন্দর সেই আবেদন ময়ী। আর নাভী হলেই হল না। তোমারটা খুব সুন্দর মসৃন। এবং শাড়ির বাজটা আরো আকর্শনীয় করে তুলেছে। যেন মনে হচ্ছে এই বুঝি পরে যাবে, এই বুঝি পরে যাবে।
হা হা হা, এই বুঝি পরে যাবে আর কিছু একটা দেখে যাবি, এই তোদের মনে ঘোরপাক খায়। তোরা সব পুরুষ এক, মেয়েদের কিছু একটা দেখলেই লোল পরে।
আমি তো শুধু একটা কথার কথা বললাম। তুমি মাইন্ড করেছ নাকি।
দিস ইস ফেক্ট। এইটাই বাস্তব। আমাদের মন যা চায় তাই আমরা করি। আমাদের শরির কোন সম্পর্ক বুঝেনা। চোখ একটা কিছু দেখে আর আমাদের শরির সেটার রেসপন্স করে। আমাদের শরীর যদি অন্য একটা শরিরের সাথে ঘর্ষন লাগে তাহলে ক্রিয়ার সৃস্টি হয়। সেই ক্রিয়ের নামই হল সেক্সিয়াল অরিয়েন্টেশন। সেটা মা বোন খালা সবার সাথেই হয় তখন আমরা সম্পর্কের জন্য নিজের মনকে শাসন করি।আর সেই প্রবৃত্তি থেকে বাহির হয়ে আসি। পুরুষ মহিলা সবার বেলায়ই হয়। পুরুষ বলে বেড়ায় আর মহিলারা চুপ থাকে। ইংরেজিতে সেটার অর্থ হল ডিজায়ার।
যেমন তোর আজ আমার নাভী দেখে ডিজায়ার উদয় হয়েছে। আসলে বাস্তব হল নাভীতে কিছুই নাই।
তাহলে নাভীতে মানুষ আকৃস্ট হয় কেন?
কারন মেয়েদের কাছে পুরুষের দিজায়ারের মুল স্তান নাভীর খুব কাছেই, নাভীতে আসলেই মনে করে এইতো পৌছে গেছে গন্তব্যে। কোন গন্তব্যে পৌছানো সব সময় আনন্দের।
এত কিছু বোঝার ক্ষমতা আমার নাই। আমি সরাসরি দেখি যা ভাল লাগে তাই দেখি। আমি অন্যায় মনে করিনা। আজ তুমি জান আমি আসবো তাও এমন পাতলা শাড়ি ও হাইলি সেক্সুয়্যাল মেকাপ নিয়েছ। আমার দেখতেই হবে জান। এতে পুরুষের কি দোষ।
আই ওয়ান্ট টু বি লুকিং গুড। আর তুই কম্পলিমেন্ট করেছিস এবং বলেছিস বুকে একটু টাইট হলে আরো সুন্দর লাগবে। আমি তাই করেছি কারন আমি দেখতে সুন্দর লাগতে চাই। মেয়েরা কম্পলিকেট পছন্দ করে।
তবে সত্যি খালা আজ তোমাকে আসলেই সুন্দর লাগছিল। টাইট করায় আরো সুন্দর বেড়ে গিয়েছিল।
আমি বুকে বেশি টাইট করে রাখা পছন্দ করি না কারন ফোকাস হয়ে থাকে। সবাই দেখে। তোর পছন্দ তাই করেছি। অনলি ফর ইউ।
আমার জন্য কেন?
তুই আজ আমার সাথে যাবি। সব সময় তোর খালুর জন্য ড্রেস আপ করি আমার পার্টনারের জন্য। তুই আজ আমার পার্টনার ছিলে তাই করেছি।
লাকি টু বি পার্টনার উইত আ বিউটিফুল লেডী।
আজ অনেকদিন পর কারো সাথে এই বাস্য কথা বলছি। টাইম পাস করছি। হউক সেটা ভাগিনা। পুরুষ তো।
আমি খালার দিকে চেয়ে দেখি চোখে আবার পানি। তখনই খালা উটে গিয়ে হলের বড় আয়নার সামনে দাড়ায়। আয়না থেকেই আমার দিকে চেয়ে বলে অংকিত আসলেই কি আমি সেক্সি। তাহলে তোর খালু কেন মদ ছেড়ে আমার কাছে আসেনা।
আমি দাড়িয়ে খালার কাছে যাই। পেছন থেকে হালকা ভাবে জড়িয়ে ধরে বলি। তুমি ভাল করে চেয়ে দেখ তুমি একটা রাজ কন্যা। এই রাজ কন্যাদের সবাই পেতে চায় কিন্তু সবাই ব্যাবহার করতে পারেনা। হয়তো জানেনা হাও ডু ইট। ইউ ডিজার্ভ স্পেশাল কেয়ার বাই খালু।
এই পরিস্থিতিতে তুই কি করতি।
তোমার পায়ের কাছে বসে থাকতাম।তোমার এই নাভীতে মোমবাতি জালিয়ে পুজা করতাম সকাল বিকাল।
হা হা হা, বলে তুই কি আসলেই নাভী প্রেমিক নাকি শুধু আমারটা তোর ভাল লাগছে। খালা পেছনে দুই হাত নিয়ে আমার দুই হাত ধরে নাভীর কাছে নিয়ে বলে টাস কর। এখানে কিছু না।
আমি আস্তে করে আংগুল দিয়ে নেড়ে বলি, কিছু না কিন্তু আমাকে ঝড় তুলে। দেখ এই ঝড়ের কবলে তুম পরেছ। তোমার শরির কাপছে। সাইক্লোন হতে পারে।
খালার মাথাটা পেছনে হেলে দিয়ে বলে, সাইক্লোন হলে সব লন্ডভন্ড করে দেয়। ভেংগেচুরে চুরমার করে দেয়।
খালার তলপেটের চারপাশে আমার হাত ঘুড়ে বেড়াচ্ছে আর খালা আমার হাতের উপর হাত রেখে চোখ বন্ধ করে নিয়েছে। তাই আমি বলি সাইক্লোন আগাত করার আগে নিরাপদ আস্রয়ে চলে গেলে মালের ক্ষতি হলেও জান নিরাপদ থাকে।
খালা আমার কাছ থেকে সরে যায়। ফ্রিজ থেকে টান্ডা পানি পান করে আমাকে বলে পানি খাবি।
না আমি টান্ডা পানি খাবনা। গরম ক্ষেতে ইচ্ছা করছে।
খালা মুছকি হেসে বলে তাহলে কপি দেই।
তুমি যা দিবে তাই খাব।
চল এইখানে সব আছে। নিজেই গরম করে খেয়ে নে।
আমি কেন চল দুইজনে একসাথেই গরম করে খাই। ভাল লাগবে।
আবার মুছকি হেসে বলে না, আমি গরম আছি তাই ঠান্ডা খেয়েছি। তুই চাইলে আমি গরম করে দিতে পারি।
আমিও মুছকি হাসি দিয়ে, বলি ঠিক আছে আমিই আমারটা করি। তবে আফসুস থাকবে খালার বাসায় আসলাম কিন্তু খালা গরম করে দিলনা।
আমি নিজের গরম নিজের টান্ডা এখন নিজেই করি। কারো সাহায্য দরকার নাই।
খালা আমি কিন্তু নিজের চেয়ে মানুষের জন্য বেশি করি। তোমার জন্যও এক কাপ কপি করছি। সোফায় বস গিয়ে।
অংকিত তুও কপি বানানো হলে ডাকিস। এতক্ষনে কাপড়টা পাল্টাই।
খালা প্লিজ। আমি যতক্ষন আছি ততক্ষন এই শাড়িতে থাক। চলে গেলে চেইঞ্জ করো।
খালা আবার হেসে বলে ঠিক আছে স্যার। আজ আমি তোমার মডেল।
আমি দুইকাপ কপি বাননিয়ে সোফায় যাই। খালার পাশাপাশি বসি।
খালা কপি মুখে দিয়ে বলে নাইস কপি।
দেখতে হবে না কে বানিয়েছে। আমি অনেক কিছুই ভাল পারি।
তা আমি বুঝতে পারছি। ইউ নোও হাও ট্রিক এ লেডি। এট লিস্ট।
ট্রিক? নট অল। আমি সাধারন ছেলে।
সাধারন ছেলে নিজের খালাকে শাড়ি চেঞ্জ না করতে অনুরুধ করে। কারন খালাকে এই শাড়িতে দেখতে খুব সেক্সি লাগছে। আফ খালাও সায় দিয়ে রাজী হয়ে গেছে। দিস ইস নট এ ট্রিক। আন্ড ইউ উইন।
হনেস্টলি আই ইঞ্জয় ইট। আমাদের মাঝে একটা ফরভিডেন হার্ম্লেস লুকুচুড়ি খেলা হয়ে গেল।
কপি শেষ করে আমি উঠে বলি আমি আজ যাই।
ঠিক আছে বলে দরজার কাছে চলে আসি। দরজা খুলার আগে খালা আমাকে জড়িয়ে ধরে হাগ দেয় আর বলে ধন্যবাদ সুন্দর সময়ের জন্য।
আমিও খালার খোলা পিটে আদর করার মত করে হাত বুলিয়ে বলি আমার জন্য মেমোরিবল হয়ে থাকবে। আমি খালার বডিতে কম্পন শুনতে পাচ্ছি। এই কম্পন অন্য কিছুর নয়। খালা নিড এ গুড সেক্স রাইট নাও। আমি খালাকে ছাড়িয়ে চোখে চোখ রেখে গালে চুমু দিয়ে বিদায় নিতেই খালা মুখ গুরিয়ে নিলে খালার ঠুটে চুমি লেগে যায়।
খালা আমার এম্নারেস বুঝে বলে ইটস ওকে। খালা আবার আমার ঠুটে একটা চুমু দিয়ে বলে বাই।
আমি দরজার নভ গুরিয়ে দরজা একটু খুলতেই খালা আমার বাম হাতটা ধরে খুব করুন ভাবে বলে
প্লিজ ডোন্ট গো। স্টে উইত মি টু নাইট।
ইউ সিয়র?
প্লিজ!
আমি আর কথা না বলে ভেতরে চলে আসি। আর মোবাইল্টা বাহির করে দেখি বেটরী নাই। খালা তোমার ফোনটা দাও আম্মুকে ফোন করে বলি আমি বাসায় যাবনা।
খালার ফোনেও ব্যাটারি নাই। চার্জে লাগাতেই ফোন চলে আসে আম্মুর।
কিরে রুক্সি গুলশানে টেররিস্ট হামলা হয়েছে শুনে আমরা সবাই চিন্তিত। তোদের কাওকে পাচ্ছিনা।
হ্যা আপু, আমরা পুলিশের রাস্তা বন্ধের কারনে আটকা পরেছিলাম। ফোনের চার্জ ছিলনা। এখন বাসায় আসতেই চার্জে লাগাতেই দেকি অনেক ফোন। আমরা ভাল আছি। অংকিত আজ যেতে পারবে না।
ঠিক আছে বলে ফোন রেখে দেয়। খালা আমাকে সব বলে দেয় কি বলতে হবে কালকে সবাইকে তারপর বলে আমি দুইটা স্ট্রং কপি বানাই। সারা রাত ঘুমাবো না। গল্প করবো।
গল্প করবো? আমি ভাবছিলাম ক্রিকেট খেলবো।
ওয়েদার চেক কর‍তে হবে। পিছ কন্ডিশন চেক করা উচিত। এখন কপি নিয়ে আসি ওয়ার্ম আপ কর।
এত ওয়ার্ম আপ। বেশি ওয়ার্ম আপ করলে আবার টায়ার্ড হয়ে যাব।
প্রাক্টিস এন্ড কন্ট্রোল মেইক পারফেক্ট।
টেস্ট,ওয়ান ডে, টি২০ অনেক প্রকার ক্রিকেট আছে।
খালা আমার দিকে চেয়ে মুছকি হাসি দিয়ে বলে, আমিতো টেস্ট প্লেয়ার। ওয়াদার ইন ফেভার।
আমি ওল রাউন্ডার এন্ড কন্ট্রোল বেটসম্যান ইন এনি ওয়েদার এন্ড কন্ডিশন।
খালা আবার হেসে দিয়ে বলে, লাকী ইউ। অনেকে সাক্ষাতকার ভাল দেয় আর ফার্স্ট বলে আউট।
গ্রাউন্ড ভাল হলে আর বেট ভাল হলে রান হবেই। আমাকে কেও সেঞ্চুরি ছাড়া আউট করতে পারেনা।
সাউন্ড বেরী গুড। ভাল প্লেয়ার হলে খেলতে মজা বলে আমার হাতে কপি দেয়।
আমি কপি মুখে দিয়ে বলি এত স্ট্রং কপি।
কপি জাগে থাকতে সাহায্য করে। টায়ার্ডনেস দুর করে। আমি এত রাতে কখনো সাজাগ থাকি না। আর্লি স্লিপ আর্লি ওয়েক লেডি।
আমার পিটে খুব ব্যাথা করছে। ব্লাউজটা খুব টাইট।
খুলে দাও।
ব্লাউজ? ইউ মিন।
আই মিন পেছনের হুক খুলে দাও।
তাই করি। ভাল হবে। বলেই আমাকে বলে খুলে দিতে।
আমি খুলে দিতে খালা আহ শান্তি বলে অহফ। এতক্ষন যেন শেকল পরানো ছিল।
এখন কেমন লাগছে?
ভাল কিন্তু ব্লাউজ জুলে থাকলে ভাল লাগেনা বলেই খালা ব্লাউজটা খুলে দুরে চুড়ে ফেলে দেয়। পিংক কালারের ব্রা বাহির হয়ে আসে।
ওয়াও, নাইস ভিউ।
পাহাড় ছোট হউক আর বড় হউক ভিউ সুন্দর হয়। যদি ভিজিটরের চোখ ভাল হয়।
এমন সুন্দর ভিঊ দেখলে ভিজিটর অভাব থাকবেনা। ভিজিটদের ছোখ ফেরাবে না।
তাতো দেখছি। কপি না খেয়ে ভিউ দেখছে।
এত সুন্দর রসে ভরা কমলা থাকলে কেও কপি খেতে পারে?
খানেওয়ালার মর্জি, কপি খাবে না কমলা খাবে। হোস্ট পরিবেশন করেছে গেস্ট নিবে আর খাবে।
গেস্ট প্রথম প্রথম আসলে অনেক সময় লজ্জাওতো পেতে পারে।
হোস্টের কি লজ্জা নাই।
আমার কপি শেষ করেই কাপ্টা রেখে দাড়িয়ে বলি, খালা তুমি কোন রোমে ঘুমাও। আই মিন তোমার বেড রোম কোনটা।
খালা ডান হাত উঠিয়ে দেখিয়ে বলে ওটা।
আমি খালার হাতটা ধরে হাটতে থাকি আর বলি, চল ঘুম আসছে ঘুমাবো। খালা একটি কথাও না বলে রোমের দিকে হাটে। আমি রোমে ডুকেই দরজা বন্ধ করে দেই। খালা অন্য দিকে চেয়ে আছে। আমি খালার পেছন থেকে গলার কাছাকাছি দুই হাত রেখে
খালা একই পজিশনে থেকে শুধু বলে, শাড়ি পরেই ঘুমাবো নাকি খুলে।
অসুবিধা নাই আমি খুলে নিব।
কথা শুনেই খালা শিহরিত হয়ে উঠে আর বলে, ঠিক আছে তুইই খুলিস।
 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *